২১ মে ২০১৯

‘পণ্যে পারদের ব্যবহার পরিবেশ ও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর’

-

পণ্যে অতিরিক্ত পরিমাণ পারদের ব্যবহার পরিবেশ ও মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এ ব্যাপারে পারদযুক্ত পণ্য ব্যবহারে যথেষ্ট সচেতন হতে হবে। তবে ২০২০ সালের মধ্যে পারদযুক্ত পণ্য ব্যবহার বন্ধে অবিলম্বে একটি আইন প্রণয়ন করতে সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।
পরিবেশ অধিদফতর ও এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন-এসডো কর্তৃক যৌথভাবে আয়োজিত কর্মশালায় এ বক্তব্য উঠে আসে। গতকাল মিনামাটা ইনিশিয়াল অ্যাসেসমেন্ট (এমআইএ) প্রকল্পের অধীনে ‘পারদ দূষণ : স্বাস্থ্যসেবা ও পরিবেশের ওপর প্রভাব’ বিষয়ক কর্মশালাটি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. সুলতান আহমেদ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত সচিব ড. মো: বিল্লাল হোসেন, অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ ইয়াসমিন চৌধুরী, এমআইএ প্রকল্প পরিচালক মাসুদ ইকবাল মো: শামীম এবং এসডো মহাসচিব ও ইউএন এনভায়রনমেন্টের পারদ বিশেষজ্ঞ ড. শাহরিয়ার হোসেন।
পারদযুক্ত পণ্য ব্যবহারে সচেতনতা বৃদ্ধি ও এর যথাযথ ব্যবস্থাপনার প্রতি জোর দিয়ে এই কর্মশালায় বিশেষজ্ঞরা মত প্রকাশ করেন। বিভিন্ন পণ্য ও শিল্প প্রক্রিয়ায় পারদের ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে, যা মানুষের স্বাস্থ্য এবং পরিবেশের জন্য একটি মারাত্মক হুমকি।
কর্মশালার প্রধান উদ্দেশ্য পারদের ক্ষতিকারক প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করা এবং ২০২০ সালের মধ্যে পারদযুক্ত পণ্য ব্যবহার বন্ধে অবিলম্বে একটি আইন প্রণয়ন করা।
এ ব্যাপারে পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. সুলতান আহমেদ বলেন, ‘পারদ ও এর যৌগগুলোর ক্ষতি থেকে মানবস্বাস্থ্য ও পরিবেশ রক্ষায় ‘মিনামাটা কনভেনশন অন মার্কারি’ একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি যাতে বাংলাদেশ ২০১৩ সালে স্বাক্ষর করেছে। ২০২০ সালের মধ্যে পারদযুক্ত বিভিন্ন পণ্যের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা উচিত।
ড. মো: বিল্লাল হোসেন, বলেন, আমরা অত্যন্ত বিপজ্জনক অবস্থায় আছি। পণ্যে অতিরিক্ত পরিমাণ পারদের ব্যবহার পরিবেশ ও মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এ ব্যাপারে আমাদের সার্বিক অর্থে সচেতন হতে হবে।
মাসুদ ইকবাল মো: বলেন, প্রায় সব ক্ষেত্রে পারদের বিকল্প পাওয়া যায়, সুতরাং আমাদের পারদযুক্ত পণ্যগুলোর ব্যবহার চালিয়ে যাওয়ার কোনো কারণ নেই।
মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী বলেন, পারদের দীর্ঘমেয়াদি ব্যবহার জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ। এটি ত্বক, ফুসফুস, কিডনি এবং স্নায়ুতন্ত্রের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে।


আরো সংবাদ




agario agario - agario