১৪ নভেম্বর ২০১৮

আভিজাত্যের বিরুদ্ধে প্রেমের লড়াই

মুখোমুখি বাবা মেয়ে
-

মিথ্যা মামলা, হত্যা ও অপহরণের হুমকি এবং হয়রানি থেকে বাঁচতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন অসহায় এক কন্যা। গতকাল রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নিজের বাবার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেন কন্যা লিমা সাহা (২৮)। লিখিত বক্তব্যে লিমা বলেন, তার বাবা সুরেশ সরিষার তেল কোম্পানির কর্ণধার সুধীর চন্দ্র সাহা। বাবার অমতে নিজের পছন্দের ছেলে সৈকত পালকে ভালোবেসে বিয়ে করায় তাকেসহ তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে প্রতিনিয়ত হত্যা ও অপহরণের হুমকি দিচ্ছে তার বাবা। মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। এতে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন অবরুদ্ধ জীবনযাপন করছেন। বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন সবাই।তিনি তার ও শ্বশুরবাড়ির লোকদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সংশ্লিষ্ট স্থানীয় মন্ত্রীসহ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে স্বামী সৈকত ছাড়াও স্বজনেরা উপস্থিত ছিলেন।
লিমা বলেন, কলেজে পড়ার সময় সহপাঠী সৈকতের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। সৈকতদের চেয়ে তার বাবার আর্থিক অবস্থা ভালো এবং পারিবারিক পদবি ভিন্ন হওয়ায় শুরু থেকে সম্পর্কটি মানতে চাননি তিনি। সৈকতকে ভুলে যাওয়ার জন্য তাকে দুই বছরের বেশি গৃহবন্দী করে রাখা হয়। নিয়মিত মারধর করা হতো। শেষমেশ জোর করে ভারতে নিয়ে বিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে তিনি ভারতীয় পুলিশের সহায়তায় বাংলাদেশে ফিরে আসেন। শাহজালাল বিমানবন্দরে নেমে বাবার কাছ থেকে পালিয়ে গিয়ে গত ২৪ মে বিয়ে হিন্দু রীতি অনুযায়ী রেজিস্ট্রির মাধ্যমে সৈকতকে বিয়ে করেন।
তিনি আরো বলেন, গত ১২ জুন সৈকতকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার বাবা ভাড়াটিয়া গুণ্ডা বাহিনী পাঠিয়েছিল। তারা ঢাকার নিউমার্কেটের ১ নম্বর গেটের সামনে একটি নোয়া মাইক্রোবাসের ভেতরে সৈকতকে উঠানোর সময় পুলিশ ও জনতার রোষানালেপরে। পরে নিউমার্কেট থানা পুলিশ তাদের কয়েকজনকে আটক করে।ওই ঘটনায় একটি মামলাও করা হয়।
উল্লেখ, নিউমার্কেট থানায় দায়ের করা অপহরণেরওই মামলায় সুধীর চন্দ্র সাহাকে গত ১২ আগস্ট তিন দিনের রিমান্ডে নেয় নিউমার্কেট থানা পুলিশ।


আরো সংবাদ