২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

যৌন মিলনে অক্ষমতা ও অনাগ্রহ বাড়ছে কেন?

যৌন মিলনে অক্ষমতা ও অনাগ্রহ বাড়ছে কেন? - সংগৃহীত

অ্যামান্ডা এবং স্টিভ গত ছয় বছর যাবত বিবাহিত। কিন্তু তাদের জীবনে এখন যৌন চাহিদা নেই বললেই চলে।

‘আমি সারাক্ষণ খুব ক্লান্ত থাকি। কারণ আমার অনেক কাজ। বাসায়ও আমাকে অনেক কাজ করতে হয়। মনে হচ্ছে আমার যৌন চাহিদাও ক্লান্ত হয়ে পড়েছে,’ বিবিসির ভিক্টোরিয়া ডার্বিশায়ার অনুষ্ঠানে বলছিলেন ৩৫ বছর বয়সী অ্যামান্ডা।

তাদের ২২ মাস বয়সী একটি সন্তান আছে। অ্যামান্ডা এবং স্টিভ বলছিলেন এখন প্রতি ছয় সপ্তাহে তাদের একবার যৌনমিলন হয়।

‘বাচ্চা আশপাশে রেখে দিনের বেলায় কিংবা সন্ধ্যায় যৌনমিলন হয়না,’ বলছিলেন স্টিভ।

"যদি বাচ্চাকে দুই ঘণ্টার জন্য ঘুমিয়ে রাখি তখন মনে হয় অন্য কাজ করি অথবা আমিও ঘুমাই।"

এক জরিপে দেখা গেছে যাদের বয়স ৩০ বছরের নিচে তাদের মধ্যে ১৮ শতাংশ গত এক বছরে ১০ বারের কম যৌনমিলন করেছে।

ব্রিটেন-ভিত্তিক দুটি ওয়েবসাইট মামসনেট এবং গ্রানসনেট ২০০০ মানুষের উপর এ জরিপ পরিচালনা করেছে।

সব বয়সী মানুষের মধ্যে এ হার ২৯ শতাংশ। বিবিসি এ ধরনের তিনটি দম্পতির সাথে কথা বলেছে যারা এ শ্রেণীতে পড়ে।

সেক্স থেরাপিস্ট মার্টিন বুরো বলেন, এখন অনেক মানুষ তাদের কাছে পরামর্শের জন্য আসছে যারা যৌন জীবন নিয়ে অসন্তুষ্ট।

তিনি বলেন, ‘যৌনতা না থাকলেও আপনি একটি সফল সম্পর্ক তৈরি করতে পারেন। কিছু মানুষ আছে যাদের সুখী হবার জন্য যৌনতার প্রয়োজন নেই।’

জ্যাকব এবং শার্লট - দু'জনের বয়স ৩২ বছর। তাদের মধ্যে অনেক ভালোবাসা থাকলেও তাদের সম্পর্কের মাঝে যৌনতা নেই।

‘আমাদের চার বছরের সম্পর্ক। কিন্তু গত তিন বছর আমরা কোন যৌন মিলন করিনি এবং এটা করার কোন পরিকল্পনাও নেই,’ বলছিলেন শার্লট।

শার্লটের কোন যৌন চাহিদা নেই। যদিও জ্যাকব সে রকম নয়।

শার্লট বলেন, ‘প্রথম ছয় মাস যৌন মিলনের বিষয়টি আমাদের ক্লান্ত করে তুলেছিল। এটা আমাদের সুখী করতে পারছিল না। যিনি যৌন মিলন করতে চায় না জ্যাকবও তাঁর সাথে যৌন মিলনে আগ্রহী হয় না।’

কিছু পুরুষের কাছে বিষয়টি এমন মনে হতে পারে যে তার সঙ্গী হয়তো প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করছেন। কিন্তু জ্যাকব সে রকম নয়।

তিনি বলেন, ‘একজন চমৎকার মানুষের সাথে আমার সম্পর্ক আছে। স্নেহ প্রদর্শন করার জন্য অন্য উপায় আছে।’

শার্লট বলেন, অনেক মানুষ আছে যারা সুখী হবার চেয়ে যৌনতাকে বেশি প্রাধান্য দেয়।

কিছু দম্পতি বলেন, কোন রকম যৌন মিলন ছাড়াও তারা একে অপরের প্রতি সর্বোচ্চ আন্তরিক হতে পারে।

অ্যামান্ডা বলেন কোন ধরণের যৌনতা ছাড়াই তাঁর স্বামী স্টিভ-এর সাথে চমৎকার সম্পর্কের অন্যতম চাবিকাঠি হচ্ছে দুজনের মধ্যে ভালো যোগাযোগ।

এ অবস্থায় যেসব দম্পতি আছে তাদের মনঃক্ষুণ্ণ না হতে উপদেশ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের সবার ক্ষেত্রেই এরকম ঘটে।’

স্বামী স্টিভ-এর দিকে তাকিয়ে হাসিমাখা মুখে অ্যামান্ডা বলেন, ‘আমাদের মধ্যে আবারও এটা (যৌনতা) ফিরে আসবে। আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।’


আরো সংবাদ

Hacklink

ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme