১৯ নভেম্বর ২০১৮

পাকিস্তানকে সুখোই-৩৫ দিচ্ছে রাশিয়া

পাকিস্তানকে সুখোই-৩৫ দিচ্ছে রাশিয়া - সংগৃহীত

এবার পাকিস্তানকে সর্বাধুনিক যুদ্ধবিমান সুখোই-৩৫ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাশিয়া। মস্কোর সাথে ভারত যৌথ উদ্যোগে ফিফথ জেনারেশন এয়ারক্রাফট তৈরি করতে চায়নি বলে রাশিয়া ভারত থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে পাকিস্তানকে প্রাধান্য দিচ্ছে।

রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রাশিয়ান বিশেষজ্ঞরা দেশটিকে ভারতের বিষয়ে উৎসাহিত হওয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছে। সে কারণে রাশিয়া এখন ভারতের চেয়ে পাকিস্তানকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে।

রাশিয়ার 'সেন্টার ফর এনালাইসিস অব স্ট্র্যাটেজিস অ্যান্ড টেকনোলজি' এর কর্ণধার জানান, ‘ভারতকে অবজ্ঞা করা হচ্ছে না, তবে এই মুহূর্তে পাকিস্তানকে সুখোই বিমান না দেয়া হলে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে বাজার ধরে ফেলবে চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, এমনকি তুরস্কের মতো দেশ।’

২০০৭ সালে ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে যৌথভাবে এয়ারক্রাফট তৈরি করার চুক্তি হয়। কিন্তু চলতি বছর জুলাইতে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানান, রাশিয়া একাই ওই প্রজেক্ট চালাক। প্রয়োজনে শেষের দিকে ভারত যোগ দেবে। ভারত এভাবে মুখ ঘুরিয়ে নেয়ায় অসন্তুষ্ট রাশিয়া।

ওই বিশেষজ্ঞ আরো জানান, ‘এর আগে ভারতের স্বার্থে পাকিস্তানের সাথে অনেক লোভনীয় চুক্তি বাতিল করেছে রাশিয়া। কিন্তু এবার নিজেদের আর্থিক উন্নতির দিকে নজর দেয়া উচিত।

পাকিস্তানের সাথে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের ঘনিষ্ঠ সামরিক সম্পর্ক রয়েছে। তবে সাম্প্রতিককালে পাকিস্তানকে রাশিয়ার কাছাকাছি আসতে দেখা যাচ্ছে। কারণ ৯/১১ এর পর থেকে পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কে কিছুটা ছেদ পড়ে যুক্তরাষ্ট্রের।

সর্বাধুনিক যুদ্ধবিমান : রাশিয়ার এসইউ ৩৫

সামরিক সামর্থ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। রাশিয়া তৈরি করে ফেলেছে শব্দের চেয়ে ১০ গুণ দ্রুতগতিতে উড়ে গিয়ে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম এক ক্ষেপণাস্ত্র। সেই ক্ষেপণাস্ত্র পারমাণবিক বোমা বহনেও সক্ষম। সাধারণত শব্দের চেয়ে পাঁচ গুণ বেশি গতির ক্ষেপণাস্ত্রকে বলা হয় ‘হাইপারসনিক মিসাইল’। 

রাশিয়া তার নতুন এই হাইপারসনিক মিসাইলের নাম দিয়েছে ‘কিনজাল’। শব্দের গতি প্রতি সেকেণ্ডে ৩৩২ মিটার। কিনজালের গতি শব্দের গতির ১০ গুণ হলে এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতি সেকেণ্ডে যাবে ৩ হাজার ৩২০ মিটার। তার মানে কিনজাল এক সেকেন্ডে সোয়া তিন কিলোমিটারেরও বেশি পথ পাড়ি দিতে সক্ষম।

এই ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে রাশিয়া বিশ্বের যেকোনো স্থানে নির্ভুলভাবে পারমাণবিক হামলা চালাতে সক্ষম। রাশিয়া মস্কো থেকে কিনজাল ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়লে মাত্র সাড়ে ৩৭ মিনিটে তা ফ্লোরিডায় আঘাত হানবে (আকাশপথে মস্কো-ফ্লোরিডা দূরত্ব ৭৪৭২ কিলোমিটার)।

ফেডারেশন অব আমেরিকান সায়েন্টিস্টসের তথ্যমতে, বিশ্বে মোট ১৪ হাজার ৯০০টি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে। এর সাত হাজারই আছে রাশিয়ার হাতে। রাশিয়ার পরের অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র। তাদের হাতে রয়েছে ৬ হাজার ৮০০টি। এ ছাড়া ফ্রান্সের কাছে ৩০০, চীনের ২৬০, যুক্তরাজ্যের ২১৫, পাকিস্তানের ১২০, ভারতের ১২০, ইসরাইলের ৮০ ও উত্তর কোরিয়ার কাছে আছে ১০টি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে।

১৯৯০ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর মূলত বিশ্বপরাশক্তি এক কেন্দ্রে কেন্দ্রীভূত হয়। স্নায়ুযুদ্ধকালীন সময়ে বিশ্বের শক্তিচর্চায় একটা ভারসাম্য লক্ষ্য করা যেত। কিন্তু বিশ্বপরাশক্তির এক নক্ষত্রের কক্ষচ্যুতির পর সে ভারসাম্যটা অটুট থাকেনি। কারণ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন বহুধা বিভক্তির কারণে রাশিয়া অতীত গৌরব ও পরাক্রম হারিয়ে বসে। একান্ত বাধ্য হয়েই রাশিয়া অনেকটাই নিভৃতে ও নেপথ্যে চলে যায়। আর নিরবেই চলতে থাকে হৃদ গৌরব পুনরুদ্ধারের কসরত। মনে করা হয়েছিল যে, স্নায়ুযুদ্ধের অবসানের পর রাশিয়া আর স্বরূপে ফিরে আসতে পারবে না। কিন্তু সেই নিভৃতচারী রাশিয়া আবারও স্বমূর্তিতে আবির্ভূত হচ্ছে।

রাশিয়া-পাকিস্তান সামরিক চুক্তিতে চাপে ভারত

১১ আগস্ট ২০১৮

রাশিয়ার সাথে পাকিস্তানের সামরিক চুক্তির বিষয়ে আলোচনা এগোচ্ছে।  দুদিন আগেই রাশিয়ার উপ প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল আলেক্সান্ডার ভি ফোমিন ঘুরে গিয়েছেন পাকিস্তানে। পাকিস্তানের তরফ থেকে এই বার্তা দেওয়ার পর চাপে রয়েছে ভারত। রাশিয়ার সাথে নিয়মিত যোগাযোগ থাকছে বলেও উল্লেখ করছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার পাকিস্তান পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ ফয়জল জানান, পাকিস্তানের সাথে রাশিয়ার সামরিক সম্পর্ক অগ্রগতির পথে। তিনি বলেন, ‘রাশিয়ার সাথে আমাদের সামরিক সম্পর্কে ক্রমশ তরান্বিত হচ্ছে। নিয়মিত কথাবার্তাও হচ্ছে দু দেশের। সম্প্রতি, পাকিস্তানে এসে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল বাজওয়ার সাথেও দেখাও করেছেন রাশিয়ার মন্ত্রী।

২০১৬ ও ১৭-তে একসঙ্গে সামরিক মহড়া চালিয়েছিল রাশিয়া ও পাকিস্তান। ১৬-তে পাকিস্তানে হয়েছিল এক্সারসাইজ DRUZBA আর পরের বছরেই রাশিয়ার মাটিতে হয় ও একই মহড়া। এর আগে ২০১৪ ও ১৫-তে দুই দেশ অংশ নেয় এক বিশেষ নৌ মহড়ায়, যার নাম ছিল Arabian Monsoon.

এখানেই শেষ নয়। গত মঙ্গলবার পাকিস্তান ও রাশিয়ার মধ্যে এক বিশেষ চুক্তিও হয়েছে। এই চুক্তি অনুযায়ী, রাশিয়ার মিলিটারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউটগুলিতে গিয়ে ট্রেনিং নিতে পারবে পাকিস্তানের সেনা সদস্যরা।

অন্যদিকে, ভারতকে অবাক করে কয়েকদিন আগেই পাকিস্তানকে সুখোই বিমান রপ্তানি করার ভাবনাচিন্তার কথা জানিয়েছে রাশিয়া। মস্কোর সাথে ভারত যৌথ উদ্যোগে ফিফথ জেনারেশন এয়ারক্রাফট তৈরি করতে চায়নি বলেই নাকি ক্ষুব্ধ রাশিয়া। এমনটাই অনুমান করছেন কূটনীতিবিদরা।

রাশিয়ার এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে দাবি, ভারতের বিষয়ে বেশি উৎসাহী হতে নিষেধ করছে রাশিয়ান থিংক ট্যাংক। যদিও আজও ভারত অস্ত্রভাণ্ডারের বেশির ভাগ জিনিসই রাশিয়া থেকে কিনে থাকে।

রাশিয়ার Center for Analysis of Strategies and Technologies-এর কর্ণধার বলেছেন, ‘ভারতকে অবজ্ঞা করা হচ্ছে না, তবে এই মুহূর্তে পাকিস্তানকে সুখোই বিমান না দেওয়া হলে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে বাজার ধরে ফেলবে চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, এমনকি তুরস্কের মত দেশ।’

২০০৭-এ ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে যৌথভাবে এয়ারক্রাফট তৈরি করার চুক্তি হয়। কিন্তু এবছর জুলাইতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানান, রাশিয়া একাই ওই প্রজেক্ট চালাক। প্রয়োজনে শেষের দিকে ভারত যোগ দেবে। ভারত এইভাবে মুখ ঘুরিয়ে নেওয়ায় অসন্তুষ্ট রাশিয়া।

ওই বিশেষজ্ঞ আরো জানান, ‘এর আগে ভারতের স্বার্থে পাকিস্তানের সাথে অনেক লোভনীয় চুক্তি বাতিল করেছে রাশিয়া। কিন্তু এবার নিজেদের আর্থিক উন্নতির দিকে নজর দেওয়া উচিৎ। রাশিয়ার এক অন্যতম তুখোড় যুদ্ধবিমান এই Su-35.

পাকিস্তানের সাথে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের ঘনিষ্ঠ সামরিক সম্পর্ক রয়েছে। তবে সাম্প্রতিককালে পাকিস্তানকে রাশিয়ার কাছাকাছি আসতে দেখা গিয়েছে। কারণ ৯/১১-র পর থেকে পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কে কিছুটা ছেদ পড়ে আমেরিকার।

 


আরো সংবাদ