১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

ঈদ উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু

ফাইল ছবি -

ঈদ উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকেট বিক্রি শুরু হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল ৮টায় রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে সারাদেশের বিভিন্ন রুটের ট্রেনের টিকেট বিক্রি শুরু করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। প্রথম দিন দেয়া হচ্ছে আগামী ১০ জুনের ট্রেনের টিকিট।

বিগত বছরগুলোতে ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশন থেকে অগ্রিম টিকেট দেয়া হলেও এবার শুধু কমলাপুরে মিলছে অগ্রিম টিকেট।

প্রতিবারের মতো এবারো মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটে বিক্রি করা হচ্ছে টিকিট।

এর আগে ঈদ উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রস্তুতি বিষয়ে গত ২৪ মে রেলভবনে সংবাদ সম্মেলনে রেলপথ মন্ত্রী মো: মুজিবুল হক জানিয়েছিলেন, আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেনের আগাম টিকিট আগামী ১ জুন থেকে বিক্রি শুরু হবে। টিকিট বিক্রির এ কার্যক্রম চলবে ৬ জুন পর্যন্ত। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে টিকিট দেয়া হবে।

তিনি আরো জানিয়েছিলেন, ফিরতি ট্রেনের টিকিট বিক্রি ১০ জুন শুরু হয়ে ১৫ জুন পর্যন্ত চলবে।

মন্ত্রী বলেন, ১ জুন দেয়া হবে ১০ জুনের টিকিট, ২ জুন পাওয়া যাবে ১১ জুনের এবং ৩, ৪, ৫ ও ৬ জুনের পাওয়া যাবে যথাক্রমে ১২, ১৩, ১৪ ও ১৫ জুনের টিকিট। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হবে। একজন যাত্রী ৪টির বেশি টিকিট পাবেন না। ঢাকা স্টেশনে ২৬টি কাউন্টার খোলা রাখা হবে। এর মধ্যে দুটি মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। মোট টিকিটের ৭৫ শতাংশ কাউন্টারে এবং বাকি ২৫ শতাংশ টিকিট অনলাইনে বিক্রি করা হবে।

তিনি বলেন, এবার ঈদে মোট সাত জোড়া বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। ঈদের পাঁচ দিন আগে এবং সাত দিন পরে বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। এই ১২ দিন রেলে কোনো বন্ধ থাকবে না। এই দিনগুলোয় সারা দেশের সব রুটেই ট্রেন চলাচল করবে।

রেলপথ মন্ত্রী বলেন, এবারের ঈদে ট্রেন যাত্রীরা সময়মতো বাড়ি ফিরতে পারবেন। ‘শিডিউল মেনটেইন শতভাগ গত বছরও ছিল, এ বছরও হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে যে ৩১টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করবে, তার টিকিট সংখ্যা হবে ২২ হাজার।

মন্ত্রী জানান, উপমহাদেশের অন্যতম বড় ঈদের জামাত হয় কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহে। এই ঈদগাহে যাতায়াতের জন্য ঈদের দিন ভৈরব বাজার থেকে কিশোরগঞ্জ এবং ময়মনসিংহ থেকে কিশোরগঞ্জ রুটে দু’টি ট্রেন চালানো হবে।


আরো সংবাদ