২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

কাতারের ভৌগোলিক মানচিত্র পরিবর্তন করতে গভীর ষড়যন্ত্র!

কাতারের ভৌগোলিক মানচিত্র পরিবর্তন করতে গভীর ষড়যন্ত্র! - সংগৃহীত

কাতারকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপরাষ্ট্রে পরিণত করতে একটি খাল কাটার পরিকল্পনা করছে সৌদি সরকার। দেশটির একজন শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। কাতারের সাথে যখন সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিশরের মারাত্মক দ্বন্দ্ব চলছে তখন সৌদি সরকার এই পরিকল্পনা নিলো।

সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের শীর্ষ উপদেষ্টা সাউদ আল-কাহতানি টুইটারে দেয়া এক পোস্টে বলেছেন, একজন নাগরিক হিসেবে আমি অধীর আগ্রহ নিয়ে ‘পূর্ব সালওয়া দ্বীপ প্রকল্প’ বাস্তবায়নের অপেক্ষা করছি। এই মহান ও ঐতিহাসিক প্রকল্প মধ্যপ্রাচ্যের ভৌগোলিক মানচিত্রকে পরিবর্তন করে দেবে।

গত এপ্রিল মাসে এই প্রকল্পের কথা প্রথম প্রকাশ করে সৌদি গণমাধ্যম। সে সময় আরবি ভাষার অনলাইন পত্রিকা ‘সাবকা’ জানিয়েছিল, এই খালের দৈর্ঘ্য হবে ৬০ কিলোমিটার, প্রস্ত হবে ২০০ মিটার এবং ২০ মিটার গভীর হবে। কাতার সীমান্ত থেকে ৯৬৫ মিটার বা এক কিলোমিটারেরও কম দূরত্বে এই প্রকল্পের কাজ শুরু করবে সৌদি আরব।  

এই খালে সৌদি আরব একটি পর্যটন রিসোর্ট এবং একটি পরমাণু বর্জ্যের ডাম্পিং কেন্দ্র বানাবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ৭৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার ব্যয় হবে। গত জুন মাসে দি মক্কা পত্রিকা জানিয়েছিল, পরিকল্পনা বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে সৌদি সরকার এবং এরইমধ্যে আন্তর্জাতিক পাঁচটি কোম্পানি দরপত্রে অংশ নিয়েছে। বিজয়ী কোম্পানির নাম ঘোষণা করা হবে চলতি সেপ্টেম্বর মাসে।

৬০ কিলোমিটার খালে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে কাতার

২২ জুন ২০১৮

প্রায় ৬০ কিলোমিটার খাল খননের মাধ্যমে আরব উপদ্বীপের দেশ কাতারের সঙ্গে স্থলসীমান্ত ছিন্ন করতে যাচ্ছে সৌদি আরব।সৌদি সীমান্ত ছাড়া কাতারের তিন দিকেই রয়েছে সমুদ্র। আর শুধু একদিকে রয়েছে স্থলসীমান্ত- যা সৌদি আরবের সঙ্গে সংযুক্ত। এবার এই স্থল সীমান্তে খাল খনন করে কাতারকে দ্বীপ রাষ্ট্রে পরিণত করতে যাচ্ছে রিয়াদ। তবে পুরো প্রকল্পটি সৌদি ভূখণ্ডে হওয়াতে কাতারের অভিযোগ করার সুযোগ থাকবে না।

সালওয়া ক্যানেল নামে খালটি খননের জন্য চলতি মাসের ২৫ জুনের মধ্যে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। ৬০ কিলোমিটার দীর্ঘ ও ২০০ মিটার প্রস্থের খালটি খননের জন্য ইতিমধ্যে ৫টি আন্তর্জাতিক কোম্পানি দরপত্র জমা দিয়েছে। কাজ শেষ করার জন্য এক বছর সময় পাবে সংশ্লিষ্ট কোম্পানি। ১৫ থেকে ২০ মিটার গভীর হবে খালটি। সেখানে একটি সামরিক ঘাঁটি এবং পারমাণবিক বর্জ্য ফেলার জায়গাও থাকবে বলে জানা গেছে।

খালটিতে ৩৩ মিটার লম্বা এবং ৩০০ মিটার দীর্ঘ জাহাজ চলাচল করতে পারবে। এছাড়া এর তীরে হোটেল, রিসোর্ট নির্মাণের পরিকল্পনাও আছে সৌদি সরকারের। আরব আমিরাত ও সৌদি বেসরকারি বিনিয়োগকারীরা এতে অর্থায়ন করছেন। আর মিসরীয় কিছু প্রতিষ্ঠান খননকাজে সহায়তা করবে। এ প্রকল্পে প্রায় ৭৪৬ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে বলে জানা গেছে।


আরো সংবাদ