১৫ অক্টোবর ২০১৯

নাইকো মামলার অভিযোগ গঠন বিষয়ে শুনানির ২৩ জুন

-

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা নাইকো মামলার অভিযোগ গঠন বিষয়ে শুনানির তারিখ পিছিয়ে আগামী ২৩ জুন ধার্য করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নবনির্মিত ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত ঢাকার নবম বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমানের অস্থায়ী আদালত এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

বেগম খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন থাকায় বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে উপস্থিত করা হয়নি।

তার পক্ষে আদালতে আইনজীবী ছিলেন মাসুদ আহমেদ তালুকদার ও আমিনুল ইসলাম।

মাসুদ আহমেদ তালুকদার আজ শুনানিতে আদালতকে বলেন, যেহেতু খালেদা জিয়া অসুস্থ। পিজি হাসপাতালের পরিচালক বলেছেন তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। আর এই কারাগারে খালেদা জিয়ার বিচার চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। এটা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত শুনানি করা যাবে না। এ অবস্থায় মামলার শুনানি নিয়ে সামনে অগ্রসর হওয়া সম্ভব নয়। এরপর আদালত আগামী ২৩ জুন শুনানির নতুন তারিখ ধার্য করেন।

এ ছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এ কে এম মোশাররফ হোসেন অসুস্থ থাকায় তাদের পক্ষেও সময়ের আবেদন করেন তাদের আইনজীবীরা। শুনানি শেষে আসামি পক্ষের সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ২৩ জুন শুনানির নতুন তারিখ ধার্য করেন আদালত।

এর আগে রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতে এ মামলার আসামি ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া (সিলভার সেলিম), জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, বাপেক্সের সাবেক সচিব মো: শফিউর রহমান এবং সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইনের পক্ষে তাদের আইনজীবীরা শুনানি করে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করেছেন। খালেদা জিয়ার পক্ষেও অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করা হয়েছে। ওই আবেদনের শুনানি হয়নি।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- চারদলীয় জোট সরকারের সাবেক আইনমন্ত্রী মওদুদ আহমদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, তখনকার প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব মো: শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া (সিলভার সেলিম) এবং নাইকোর দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর খালেদা জিয়াসহ অন্যদের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় এ মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২০০৮ সালের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে এ মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয়। মামলায় অভিযোগ করা হয়, ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনটি গ্যাসক্ষেত্র পরিত্যক্ত দেখিয়ে কানাডীয় কোম্পানি নাইকোর হাতে তুলে দেয়ার মাধ্যমে আসামিরা রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার ক্ষতি করেছেন।


আরো সংবাদ

‘আবরার হত্যার আসামি অনিককে কারাগারে পেটানোর খবর মিথ্যা’ টমটম গাড়িতে স্কুলছাত্রীকে একা পেয়ে দিনে দুপুরে ধর্ষণ আবারো ওয়েস্ট ইন্ডিজের কোচ সিমন্স রাজউকের গায়েব হওয়া ৭১ ফাইল উদ্ধার সড়ক দুর্ঘটনায় ছেলের চার মাসের মাথায় একই স্থানে বাবা নিহত ফরিদপুরে নিজ বাড়িতে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত আইনজীবীরা মাঠে থাকবে : খন্দকার মাহবুব টেস্ট সিরিজ সামনে আসলো, পেসারদের নিয়েও বাড়লো দুশ্চিন্তা আন্দোলনের ইতি টানলেও ক্লাসে ফিরবে না বুয়েট শিক্ষার্থীরা নতুন প্রজন্মকে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়ার আহ্বান স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় ৮ম ঢাকা

সকল




astropay bozdurmak istiyorum