১৭ জানুয়ারি ২০২০

রাজধানীতে বিএনপির প্রতিবাদ মিছিল

রাজধানীর তাঁতিবাজার মোড়ে বিএনপি মহানগর দক্ষিণের বিক্ষোভ সমাবেশ : নয়া দিগন্ত -

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি পেছানোর প্রতিবাদে এবং তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে ঢাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিএনপিসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। গতকাল দুপুরে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে একটি মিছিল পুরান ঢাকার জজকোর্ট এলাকা থেকে শুরু হয়ে রায়সাহেব বাজার গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে অংশগ্রহণ করেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, স্বেচ্ছাসেবক দলের শফিউল বারী বাবু, আব্দুল কাদির ভুইয়া জুয়েল, গোলাম সরোয়ার, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির মীর হোসেন মিরু, তানভীর আহমেদ রবিন, যুবদলের গোলাম মাওলা শাহীন, স্বেচ্ছাসেবক দলের নজরুল ইসলাম, গাজী রেজওয়ানুল হোসেন রিয়াজসহ বহু নেতাকর্মী। এ ছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ গেটেও একটি মিছিল হয়। গতকাল মহানগর বিএনপি এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ বেধড়ক লাঠিচার্জ করলে স্বেচ্ছাসেবক দলের শফিউল বারী বাবু, আব্দুল কাদির ভুইয়া জুয়েল, রেজওয়ানুল হক রিয়াজসহ বেশ কিছু নেতাকর্মী আহত হয়।
সংক্ষিপ্ত সমাবেশে হাবিব উন নবী খান সোহেল বলেন, আগামী দিনের আন্দোলনে সরকারের কোনো বাধা মানবে না বিএনপি। যেখানে পুলিশের ব্যারিকেড আসবে সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে। আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সরকার অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে আটকে রেখেছে। এখন তার প্রাপ্য জামিনের যে অধিকার সেই অধিকার থেকেও তাকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। আমরা অনতিবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করছি। মিছিল থেকে বিমানবন্দর থানা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা শাহরিয়ার মামুনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশের এই বর্বরোচিত ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান হাবিব উন নবী খান সোহেল এবং কাজী আবুল বাশার। নেতৃদ্বয় আহত নেতাকর্মীদের আশু সুস্থতা কামনা করেন এবং ঢাকা মহানগর উত্তর বিমানবন্দর থানা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা শাহরিয়ার মামুনের নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানান। এছাড়া দুপুর ১২টার দিকে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খানসহ বেশ কিছু নারী নেত্রী নয়াপল্টনে বিক্ষোভ মিছিল করেন। আরও বিক্ষোভ মিছিল করেছে খিলগাঁও থানা বিএনপির নেতাকর্মীরা।
ঢাবিতে বিক্ষোভ : একই কারণে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রতিবাদ মিছিল করেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। গতকাল সকাল ১১টায় মধুর ক্যান্টিন থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে রাজু ভাস্কর্যের সামনে সমাবেশে মিলিত হয় ছাত্রদলের প্রায় তিন শতাধিক নেতাকর্মী। সমাবেশে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল বলেন, দেশে একদলীয় শাসনের কারণে সাবেক প্রধান বিচারপতিকে দেশত্যাগ করতে হয়েছে। সেরকম একটি দেশে কখনও সুবিচার হতে পারে না। বাংলাদেশে একদলীয় শাসন চলছে। এটা ভুটান নয়, সিকিম নয়, এটা স্বাধীন বাংলাদেশ। আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রীকে মুক্ত করব। আমাদের নেতা তারেক রহমান শিগগিরই আন্দোলনের ডাক দেবেন। সবাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণের মাধ্যমে রক্ত ও ত্যাগের বিনিময়ে নতুন বাংলাদেশ তৈরি করব। এ সময় ঢাবি ছাত্রদলের মেহেদী তালুকদার, হাফিজুর রহমান হাফিজ, সাজিদ হাসান বাবু, তানজিল হাসান, এস এম হলের জাফর, তরিকুল ইসলাম, রাজু আহমাদ, মুহসীন হলের মাহবুব মিয়া, নাসির আহমেদ, বঙ্গবন্ধু হলের খোরশেদ আলম সোহেল, এফ রহমান হলের আখতার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে টালবাহানার প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবিতে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর পূর্ব, দক্ষিণ, উত্তর, পশ্চিম, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ, তিতুমীর কলেজ, বাঙলা কলেজ, তেজগাঁও কলেজ, সরকারি কবি নজরুল কলেজসহ দেশের অন্যান্য ইউনিটগুলো।
যুবদলের বিক্ষোভ : বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে গতকাল বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জাতীয়তাবাদী যুবদল। গুলশান ১ নাম্বারে অনুষ্ঠিত মিছিলে যুবদলের সাইফুল আলম নীরব, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, মোর্তাজুল করিম বাদরু, এস এম জাহাঙ্গীর, শফিকুল ইসলাম মিল্টন, ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মোস্তফা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
নয়া পল্টনে গ্রেফতার ১৩ : রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে দলটির ৭ কর্মীকে তুলে নিয়ে গেছে পল্টন থানা পুলিশ ও সাদা পোশাকধারী গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে দুইজন ও কার্যালয়ের আশপাশ থেকে আরও ৫ কর্মীকে আটক করে নিয়ে যায় ডিবি পুলিশ। তাৎক্ষণিকভাবে আটককৃতদের নাম জানা যায়নি। তবে এরা সবাই বিএনপির সাধারণ কর্মী বলে জানা গেছে। প্রত্যক্ষর্শীরা জানায়, বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচ তলার বইয়ের দোকানের সামনে শান্তিপূর্ণ অবস্থান করছিলেন তারা। এ সময় পল্টন থানা পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ তাদের আটক করে নিয়ে যায়। তবে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী নয়া দিগন্তকে বলেন, আমি শুনেছি ১৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। কোনো কর্মসূচি না থাকলেও দলীয় কার্যালয়ের সামনে কেবল চলাফেরা করার সময় তাদেরকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং আটকদের মুক্তির দাবি জানাচ্ছি। আটকের বিষয়ে পল্টন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) সেন্টু মিয়া বলেন, শুনেছি ৭-৮ জন আটক হয়েছে। তাদের তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

 


আরো সংবাদ

বিপিএলের নতুন চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী ‘কেরলে কেউ খাবারের সাথে ধর্ম মেশায় না’ সাংবাদিকতার ইতিহাসে প্রথম! রাজার পোশাকে, হাতে তলোয়ার নিয়ে রিপোটিং (ভিডিও) দাবানলে বিধ্বস্ত অস্ট্রেলিয়ায় বৃষ্টি, ১৮ মাসের বাচ্চার নাচ ভাইরাল দূতাবাস অ্যাপে খুব সহজে ৩৪ সেবা পাওয়া যাচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী লজ্জাজনক হারের পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয় ভারতের সোলাইমানি হত্যার দায়ে ট্রাম্পের প্রাণদণ্ড হওয়া উচিত : মার্কিন সাংবাদিক ইরান-মার্কিন সঙ্ঘাত : ওআইসির আত্মসমালোচনার সুযোগ যে কথা বলতে চাই না প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ, ভারতের নির্ভয়া কাণ্ডে ফাঁসি ১ ফেব্রুয়ারি ‘হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক’ : প্রসঙ্গ কথা

সকল