০৬ ডিসেম্বর ২০১৯

আয়কর মেলায় দীর্ঘ লাইন হয়রানিমুক্ত পরিবেশে সন্তুষ্টি

-

ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় গতকাল রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ২০১৯। মেলার প্রথম দিনে গতকাল সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ৩২৩ কোটি ১৮ লাখ ৯৩ হাজার ৮৮৫ টাকা। সেবা গ্রহণ করেছেন এক লাখ ৩৫ হাজার ৭৫৮ জন, আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছেন ৬৩ হাজার ২৭২ জন, নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন করেছেন চার হাজার ৩৬৬ জন। এ সময় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নারী-পুরুষ, বয়স্ক ব্যক্তিদের দীর্ঘ লাইন ধরে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে দেখা যায়। কর পরিশোধের জন্য দীর্ঘ লাইন ধরতে হলেও হয়রানিমুক্ত পরিবেশে রিটার্ন দাখিল করতে পেরে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন সংশ্লিষ্টরা।
আয়কর মেলা ২০১৯ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। আয়কর মেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে ২০১৯-২০২০ কর বছরের রিটার্ন জমা দেন তার প্রতিনিধি সিদ্দিক হোসেন চৌধুরী। একই সময় অর্থমন্ত্রী নিজ এবং তার পরিবারের সদস্যদের ২০১৯-২০ করবছরের আয়কর রিটার্ন মেলায় দাখিল করেন।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, সকাল ৯টায় মেলা শুরু হওয়ার আগেই করদাতা ও সেবাপ্রার্থীরা মেলা প্রাঙ্গণে আসতে থাকেন। বেলা গড়ানোর সাথে সাথে বাড়তে থাকে করদাতা ও সেবাপ্রার্থীদের ভিড়। তবে সব থেকে বেশি ভিড় দেখা গেছে রিটার্ন জমা দেয়ার স্থানে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রিটার্ন জমা দেয়ার স্থানে কয়েক শ’ মানুষের লাইন দেখা যায়।
আগতরা জানান, কর দিতে কী কী করতে হবে তা মেলা প্রাঙ্গণের হেল্প ডেস্ক থেকে জেনে নেয়া যাচ্ছে। যারা নতুন করদাতা তাদেরকে প্রথমে ই-টিন খোলার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। মেলা প্রাঙ্গণে জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়েই ই-টিআইএন খোলা যাচ্ছে। ই-টিআইএন খোলার পর ব্যাংক স্টেটমেন্ট ও বেতনের স্টেটমেন্ট নিয়ে এসে ফরমপূরণ করে আয়কর দেয়া যাচ্ছে। সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা চলবে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত।
এনবিআরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এবার মেলার পরিধি গত বছরের মেলার চেয়ে কয়েকগুণ বাড়ানো হয়েছে। মেলা প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে। মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ, ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে। মেলার বিশেষ আকর্ষণ মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহণ করে করদাতাগণ রকেট, নগদ, বিকাশ ও প্রযোজ্য শিওর ক্যাশের মাধ্যমে আয়কর জমা দিতে পারছেন। করদাতাদের সুবিধার্থে এবারই প্রথমবারের মতো আয়কর মেলার জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ ওয়েবসাইট (িি.িধুশড়ৎসবষধ.মড়া.নফ) চালু করা হয়েছে। ফলে করদাতারা মেলায় না এসে ঘরে বসে নির্বিঘেœ আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে পারছেন এবং আয়কর মেলা সংক্রান্ত দেশব্যাপী সব আয়োজনের হালনাগাদ তথ্যাদি অবলোকন এবং করদাতাগণের জন্য প্রয়োজনীয় আয়কর রিটার্ন ফরম, চালান, ইটিআইএন অ্যাপ্লিকেশন ফরম ইত্যাদি ডাউনলোড করার সুযোগ পাচ্ছেন।
‘সবাই মিলে দেব কর, দেশ হবে স্বনির্ভর’ এ স্লোগান এবং ‘কর প্রদানে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ, নিশ্চিত হোক রূপকল্প বাস্তবায়ন’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে শুরু হওয়া সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ২০১৯ উপলক্ষে এ বছর দেশের ৮টি বিভাগ, ৫৬টি জেলা, ৫৬টি উপজেলাসহ মোট ১২০টি স্পটে আয়কর মেলা শুরু হয়েছে।
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীতে শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা। গতকাল আয়কর ভবনের সামনে বেলুন, ফেস্টুন ও পায়রা উড়িয়ে এ মেলার উদ্বোধন করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (মূসক আইন বাস্তবায়ন ও আইটি) জামাল হোসেন।
অনুষ্ঠানে রাজশাহী কর কমিশনার ড. খন্দকার ফেরদৌস আলম, যুগ্ম কর কমিশনার মির্জা আশিক রানা, জাফর ইমাম ও উপ-কর কমিশনার (সদর দফতর-প্রশাসন) আবু নসর মো: মাহবুবুজ্জামান, উপ-কর কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম ও মকবুল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় জানানো হয়, রাজশাহী অঞ্চলে আয়কর আদায়ের পরিমাণ বেড়েছে। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রাজশাহী কর অঞ্চলে আয়কর আদায় হয়েছিল প্রায় ৩২১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। আয়কর আদায়ের এই পরিমাণ পাঁচ বছরে দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে। সর্বশেষ ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রায় ৭৪১ কোটি টাকা আয়কর আদায় হয়েছে। একই সময়ে বেড়েছে করদাতার সংখ্যাও।
মেলায় প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত করদাতারা রিটার্ন জমা দিতে পারবেন। নতুন করদাতারা পাবেন ই-টিআইএন সনদ।

 


আরো সংবাদ




Paykwik Paykasa
Paykwik