১৮ নভেম্বর ২০১৯

বিভিন্ন স্থানে নারী ও শিশুসহ নিহত ৬

-

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ এক নারী নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া দেশের অন্যান্য স্থানে সড়কে নিহত হন আরো চারজন।
কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা জানান, কুলাউড়ায় ট্রাকের ধাক্কায় যাত্রীবাহী সিএনজি অটোরিকশার যাত্রী সোনালী পাল (৮) নামে এক শিশু ও শামীমা আক্তার নার্গিস (৪০) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় অপর পাঁচ যাত্রী গুরুতর আহত হন। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কুলাউড়া-বড়লেখা আঞ্চলিক সড়কের উত্তর কুলাউড়া উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটে। দুর্ঘটনায় আহতরা হলেনÑ নিহত সোনালীর বাবা কমলগঞ্জের হরিপুর গ্রামের নিরঞ্জন পালের ছেলে নিতাই পাল (৪০) ও তার স্ত্রী ঝুমা পাল (৩৫), সিএনজি অটোরিকশাচালক জুড়ী উপজেলার খালেরমুখ গ্রামের বাসিন্দা দুলাল মিয়ার ছেলে শাকিল মিয়া (২৫), জুড়ীর পশ্চিম বাছিরপুর গ্রামের হবিব মিয়ার ছেলে আলী হোসেন (২০) এবং কুলাউড়া পৌর শহরের জয়পাশা গ্রামের রেনু মালাকার (৪০)। নিহত সোনালী কমলগঞ্জের হরিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ও অপর নিহত নারী শামীমা আক্তার নার্গিস কুলাউড়া পৌরশহরের দক্ষিণবাজার এলাকার বাসিন্দা খায়রুল ইসলামের স্ত্রী।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ওই দিন সন্ধ্যায় সিএনজি অটোরিকশাযোগে দুর্ঘটনাকবলিত যাত্রীরা জুড়ী থেকে কুলাউড়া ফিরছিলেন। পথিমধ্যে উত্তর কুলাউড়া উচ্চবিদ্যালয় এলাকায় পৌঁছালে বিপরীতমুখী একটি ট্রাকের (মৌলভীবাজার ড-১১-০৪৪৮) সাথে সিএনজি অটোরিকশার ধাক্কা লাগে। এ সময় যাত্রী বোঝাই অটোরিকশাটি উল্টে দুমড়ে মুচড়ে যায়। খবর পেয়ে কুলাউড়া ফায়ার সার্ভিস ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহত যাত্রীদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশু সোনালী পালকে মৃত ঘোষণা করেন। সোনালীর বাবা-মাসহ বাকি পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো: ইয়ারদৌস হাসান বলেন, দুর্ঘটনাকবলিত সিএনজি অটোরিকশা ও ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে।
ইউএনবি জানায়, যশোর-খুলনা মহাসড়কের রাজঘাট জাফরপুর এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারানো এক বাসের ধাক্কায় এক নারীসহ দুই পথচারী নিহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার সকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেনÑ অভয়নগর উপজেলার জাফরপুর গ্রামের গোলাম রব্বানী (৭৫) ও দত্তগাতি গ্রামের জোছনা বেগম (৩৫)। নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানার এসআই ওমর ফারুক জানান, সকালে ঢাকা থেকে খুলনাগামী প্রিন্স পরিবহনের একটি গাড়ি জাফরপুর এলাকায় এসে নিয়ন্ত্রণ হারায়। এ সময় বাসটি পথচারী গোলাম রব্বানী ও জোছনা বেগমকে ধাক্কা দিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান দু’জন। তবে বাসের যাত্রীরা কেউ গুরুতর আহত হননি।
সাভার (ঢাকা) সংবাদদাতা জানান, সাভারে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বলিয়ারপুরে একটি সিএনজি ফিলিং স্টেশনের সামনে গত বৃহস্পতিবার রাতে ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় এক পাঠাও চালক নিহত হয়েছেন। নিহতের নাম আব্দুর রহমান খান (৪০)। তিনি মানিকগঞ্জ জেলার শিবালয় থানার দক্ষিণ সালজানা গ্রামের উজির খানের ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, রাজধানী ঢাকা থেকে পাঠাও চালক তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলে একাই সাভারের দিকে যাচ্ছিলেন। রাত সাড়ে ১০টায় তিনি ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বলিয়ারপুরে একটি সিএনজি ফিলিংস্টেশনের সামনে পৌঁছলে উল্টো পথে আসা ময়লাবাহী একটি গাড়ি তাকে ধাক্কা দেয়। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। সাভারের ট্যানারি ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মো: শরীফ হোসেন জানান- মোটরসাইকেল আরোহী পাঠাও চালক ছিলেন। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।
খুলনা ব্যুরো জানায়, খুলনা মহানগরীর গোবরচাকা শাহ বাড়ির মোড়ে গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ইজিবাইকের ধাক্কায় রাতুল নামে একটি শিশু নিহত হয়েছে। সোনাডাঙ্গা মডেল থানা জানায়, বৃহস্পতিবার ১২টায় রাতুলের মা পানি আনতে যান। এ সময় রাতুল (৫) হাঁটতে হাঁটতে সড়কে উঠে যায় এবং চলন্ত ইজিবাইকের সামনে গিয়ে পড়ে। ধাক্কা খেয়ে সে ইজিবাইকের নিচে চলে যায়। তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ইজিবাইক চালক সাব্বিরকে আটক করা হয়। রাতুল নগরীর শাহবাড়ি মোড়ের একটি বাড়ির ভাড়াটিয়া মহসীন হাওলাদারের ছেলে।

 


আরো সংবাদ