২২ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৪, ১ সফর ১৪৩৯

বেতাগীতে মা-মেয়েসহ অন্যান্য স্থানে নিহত ৬

-

বরগুনার বেতাগীতে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে মা-মেয়ে নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া দেশের অন্যান্য স্থানে সড়কে আরো চারজনের মৃত্যু হয়।
বরগুনা ও বেতাগী সংবাদদাতা জানান, বরগুনার বেতাগীতে বাস খাদে পড়ে মা মেয়ে নিহত ও আরো ২০ বাসযাত্রী আহত হয়েছেন।
গতকাল দুপুরে বরগুনা-বেতাগী মহাসড়কের বেতাগী উপজেলার সোনার বাংলা নামক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে মেয়েশিশু (৫) ও এক নারী (৩২) নিহত হন। নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। এ দুর্ঘটনায় অন্তত ২০ জন যাত্রী আহত হন। আহতরা হলেনÑ নুরুল ইসলাম (৫৫), সোহাগী (৩০), লাবনী (১৮), রিতা (২৬), অন্তরা (১২), বৃষ্টি (৩) ও হৃদয় (১)। বাকিদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। আহতের বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বরগুনা থেকে বেতাগী আসার পথে সত্তার পরিবহনের (গাড়ি নম্বর সিলেট গ: ১১-০৩১৮) একটি বাস সোনার বাংলা এলাকায় পৌঁছে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি অটোরিকশাকে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। প্রথমে স্থানীয়রা ও পরে খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কার্যক্রম শুরু করে। এ সময় উদ্ধারকারীরা পানিতে ডুবে থাকা বাসের ভেতর থেকে অজ্ঞাত এক নারী ও এক শিশুর লাশ উদ্ধার করে। তাদের চেহারা দেখে মা মেয়ে ধারণা করা হচ্ছে।
ঘটনার পরপরই বরগুনা-২ আসনের এমপি শওকত হাচানুর রহমান রিমন, উপজেলা চেয়ারম্যান মো: মাকসুদুর রহমান ফোরকান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: রাজীব আহসান ও পৌর মেয়র এ বি এম গোলাম কবির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ মো: কামরুজ্জামান মিয়া জানান, বাসটি না তোলা পর্যন্ত বলা যাচ্ছে না এখানে আর কোনো লাশ আছে কি না।
পেকুয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা জানান, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের আজিজ নগর জাইল্যারঢালা এলাকায় গতকাল সকালে এক সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত ও একজন গুরুতর আহত হয়েছেন। হতাহত তিনজনই পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা। প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহতের স্বজনরা জানান, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের আজিজনগর জাইল্যারঢালা এলাকায় পেকুয়া থেকে পদুয়া গামী একটি ইঞ্জিনচালিত ট্রলির (নসিমন-করিমন) সাথে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা লাগে। এ সময় নসিমন করিমনের চালক আসিফ (২৫) ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পথে মামুনুর রশিদ (২৩) নামে আরো এক যুবক মারা যান। অপর গুরুতর আহত জাহাঙ্গীর আলমকে (৩০) আশঙ্কাজনক অবস্থায় চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত দুইজনের বাড়ি পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের তেলিয়াকাটা এলাকায় এবং গুরুতর আহত জাহাঙ্গীর আলমের বাড়ি মেহেরনামা এলাকায়। নিহতের স্বজনরা জানান, হতাহতরা সবাই পেশায় টিউবঅয়েল শ্রমিক। সকালে তারা ওয়াশার মেশিন নিয়ে পেকুয়া থেকে পদুয়া যাওয়ার পথে আজিজনগর এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় পড়েন।
শেরপুর (বগুড়া) সংবাদদাতা জানান, শেরপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের আড়ংশাইলে ট্রাকের চাপায় মোটরসাইকেলের পেছনে বসা এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। নিহত গৃহবধূ বিশালপুর ইউনিয়নের আব্দুর রশিদের স্ত্রী বলে জানা গেছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার সন্ধ্যায় শেরপুর থেকে মোটরসাইকেলে গ্রামের বাড়ি ফেরার পথে উপজেলার শেরপুর-রানীরহাট আঞ্চলিক সড়কের আড়ংশাইলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক (ঢাকা- মেট্রো-ট-১৪-৬৯৯২) তাদের মোটরসাইকেলটিকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই আরোহী আসমা খাতুনের (৪৫) মৃত্যু হয়। শেরপুর থানার ওসি তদন্ত বুলবুল ইসলাম জানান, ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে।
চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) সংবাদদাতা জানান, দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে বিআরটিসি বাসের ধাক্কায় এক ব্যক্তি নিহত এবং দুই ব্যক্তি আহত হয়েছেন। গত ৯ অক্টোবর বুধবার রাতে উপজেলার সৈয়দপুর-দশমাইল মহাসড়কের রাণীরবন্দর সুইহারীবাজারে দুর্ঘটনাটি ঘটে।
এ ঘটনায় ঘটনাস্থলেই পথচারী জগদিশ চন্দ্র রায় ওরফে টংকো (৬০) নিহত হন এবং এক রিকশাভ্যান আরোহী ও শ্যালো ইঞ্জিনচালিত ভটভটির চালক গুরুতর আহত হন। আহতদের দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নিহত জগদিশ চন্দ্র রায় ওরফে টংকো (৬০) খানসামা উপজেলার আঙ্গারপাড়া ইউনিয়নের আঙ্গারপাড়া গ্রামের মৃত চিনিরাম রায়ের ছেলে।
দশমাইল হাইওয়ে থানার ওসি জি এম শামসুন নুর জানান, ঘাতক বাসটিকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় থানায় ইউডি মামলা দায়ের হয়েছে।

 


আরো সংবাদ




portugal golden visa
paykwik