২০ নভেম্বর ২০১৮

বিএনপিতে একজন হলেও মহাজোটে প্রার্থীর দ্বন্দ্ব

ফেনী-১ আসন
-

ছাগলনাইয়া-পরশুরাম ও ফুলগাজী উপজেলা নিয়ে ফেনী-১ আসনটি গঠিত। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার সাথে সাথে এ আসনে কে হচ্ছেন কোন দলের প্রার্থী, তা নিয়ে চলছে বিভিন্ন আলোচনা। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দীর্ঘ দিন এ আসনের এমপি ছিলেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে এ আসনের এমপি হন জাসদের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। তবে এবার জাসদকে ছাড় দিতে নারাজ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। তারা এবার নিজ দলের প্রার্থী দেখতে চান। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক প্রটোকল অফিসার আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাছিম ও ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেলের নাম উচ্চারিত হচ্ছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিজের আসন হিসেবে পরিচিত এ আসনে মামলায় জর্জরিত বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা গ্রেফতার এড়াতে এত দিন মাঠে ছিলেন না। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর তারা এখন নির্বাচনী মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। আবারো দলীয় প্রধানকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছে বিএনপি। তবে বেগম খালেদা জিয়া কারাবন্দী থাকায় তিনি নির্বাচন করতে পারবেন কি না তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন নেতাকর্মীরা। তিনি নির্বাচন করতে না পারলে বিকল্প হিসেবে বিএনপির প্রার্থী কে হবেন তা এখনো জানা যায়নি।
এ দিকে গত রোববার ছাগলনাইয়ায় আওয়ামী লীগের জনসভায় ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফেনী-২ আসনের এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহানারা বেগম সুরমা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বিকম ও ফেনী-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেলসহ নেতৃবৃন্দ সভার প্রধান অতিথি আলাউদ্দিন চৌধুরী নাছিমকে ফেনী ১ ও ২ আসনের যেকোনো একটিতে প্রার্থী হওয়ার অনুরোধ করে বক্তব্য দেন। তবে নাছিম চৌধুরী তার প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে কোনো কথা বলেননি। তবে জাসদের প্রার্থীকে ঠেকাতে দলের নেতাকর্মীদের অনুরোধে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে।
আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তৃণমূলের জনপ্রিয় প্রার্থী হিসেবে ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেলকে ফেনী-১ আসনে নৌকার প্রার্থী হিসেবে বছরখানেক আগ থেকে সভা-সমাবেশ করে প্রচার-প্রচারণায় রয়েছেন। সোহেল এ আসনে নৌকার টিকিট পাচ্ছেন এমন কথা শোনা যাচ্ছে।
অন্য দিকে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান এমপি জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি নৌকা নিয়ে নির্বাচনী মাঠে এলে আওয়ামী লীগের সমর্থন কতটুকু পাবেন তা নিয়ে সংশয় রয়েছে বলে আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকর্মী জানিয়েছেন। কারণ শিরীন আখতারকে আবারো ওই আসনে প্রার্থী হিসেবে মেনে না নেয়ার ঘোষণা দিয়ে অনেক দিন ধরেই সভা-সমাবেশ করে আসছেন ফেনী জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। বিভিন্ন অনিয়ম ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে সমন্বয় না করার অভিযোগে বিগত সময়ে বর্তমান এমপি শিরীন আখতারকে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার ঘটনা ঘটেছে। বিগত নির্বাচনগুলোতে ব্যাপক ভোটের ব্যবধানে বারবার বিজয়ী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও তার দল নির্বাচনে এলে ফেনী-১ আসনে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী হতে হলে দলীয় প্রার্থী দেয়ার বিকল্প থাকবে না স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানান।


আরো সংবাদ