২১ মে ২০১৯

বিজয় সরকারের ১১৭তম জন্মদিন আজ

-

‘তুমি জানো নারে প্রিয়/ তুমি মোর জীবনের সাধনা...।’ ‘পোষা পাখি উড়ে যাবে সজনী/ ওরে একদিন ভাবি নাই মনে/ সে আমারে ভুলবে কেমনে...।’ কিংবা ‘কী সাপে কামড়াইলো আমারে/ ওরে ও সাপুড়িয়ারে/ আ...জ্বলিয়া পুড়িয়া মলেম বিষে...’। এমন জনপ্রিয় অসংখ্য গানের সুরস্রষ্টা কবিয়াল বিজয় সরকারের ১১৭তম জন্মদিন আজ।

কবিয়াল বিজয় সরকার ১৯০৩ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি নড়াইল সদরের নিভৃতপল্লী ডুমদি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবার নাম নবকৃষ্ণ অধিকারী ও মা হিমালয়া দেবী। তার প্রথম স্ত্রী বীণাপাণি দেবীর মৃত্যুর পর প্রমদা দেবীকে বিয়ে করেন তিনি। পরবর্তীতে প্রমদারও মৃত্যু হয়। ছেলে কাজল ও বাদল অধিকারী এবং মেয়ে বুলবুলি ভারতে বসবাস করেন।

প্রকৃত নাম বিজয় অধিকারী হলেও সুর, সঙ্গীত ও অসাধারণ গায়কী ঢঙের জন্য ‘সরকার’ উপাধি লাভ করেন। ১৮০০ বেশি গান লিখেছেন এবং সুর ও সঙ্গীত করেছেন। ‘পাগল বিজয়’ হিসেবে সমধিক পরিচিত তিনি।

বিজয় সরকার নবমশ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন, মতান্তরে মেট্রিক পর্যন্ত। বার্ধ্যকজনিত কারণে ১৯৮৫ সালের ৪ ডিসেম্বর ভারতের হাওড়ার বেলুডে পরলোকগমন করেন। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কেউটিয়ায় তাকে সমাহিত করা হয়।

শিল্পকলায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৩ সালে মরণোত্তর একুশে পদকে ভূষিত হন। গানের কথা ও সুরের মাঝে বিজয় সরকার আজো বেঁচে আছেন হাজারো মানুষের হৃদয়ে।

অসাম্প্রদায়িক চেতনার কবি বিজয় সরকার গেয়েছেন- ‘নবী নামের নৌকা গড়/ আল্ল¬াহ নামের পাল খাটাও/ বিসমিল্ল¬াহ বলিয়া মোমিন/ কূলের তরী খুলে দাও...।’ ‘আল্ল¬াহ রসূল বল মোমিন/ আল্লাহ রসূল বল/ এবার দূরে ফেলে মায়ার বোঝা/ সোজা পথে চল...।’ কিংবা ‘মন বিল্লালের আযান শুনে দিল্ কাবাতে নামাজ পড়...।’

স্ত্রী বীনাপাণির মৃত্যুর খবরে গানের আসরে বিজয় সরকার গেয়েছেন- ‘পোষা পাখি উড়ে যাবে সজনী/ ওরে একদিন ভাবি নাই মনে/ সে আমারে ভুলবে কেমনে...।’ পল্লীকবি জসীমউদ্দীনের ‘নক্সী কাথার মাঠ’ কাব্যগ্রন্থের নায়ক-নায়িকা ‘রূপাই’ ও ‘সাজু’র প্রেমকাহিনী নিয়ে বিজয় সরকার গেয়েছেন- ‘নক্সী কাঁথার মাঠেরে/ সাজুর ব্যাথায় আজো রে বাজে রূপাই মিয়ার বাঁশের বাঁশি...।’ অন্তরজ্বালায় লিখেছেন- ‘কী সাপে কামড়াইলো আমারে/ ওরে ও সাপুড়িয়ারে/ আ...জ্বলিয়া পুড়িয়া মলেম বিষে...’। প্রিয়জনের কথা স্মরণ করে লিখেছেন-‘তুমি জানো নারে প্রিয়/ তুমি মোর জীবনের সাধনা...।’

বিজয় সরকার জন্মজয়ন্তী উদ্যাপন পর্ষদ প্রচার কমিটির আহবায়ক সুলতান মাহমুদ বলেন, জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে চারণকবি বিজয় সরকার ফাউন্ডেশন ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আজ বুধবার সকালে ডুমদিতে কবির প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, নগরকীর্ত্তন, মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্জ্বলন, প্রসাদ বিতরণ ও বিজয়গীতি পরিবেশন। এছাড়া ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে আলোচনা সভা ও দুপুরে বিজয়গীতি, ২২ ফেব্রুয়ারি বিজয়গীতি এবং ২৩ ফেব্রুয়ারি দুপুরে জারিগান ও আলোচনার আয়োজন করা হয়েছে।


আরো সংবাদ

agario agario - agario