২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

৩৬ বিসিএসের ৩০ জনের ভাগ্য খুলেছে : এখনো অশ্চিয়তায় ৩৮

৩৬ বিসিএসের ৩০ জনের ভাগ্য খুলেছে : এখনো অশ্চিয়তায় ৩৮ - ছবি : সংগৃহীত

অবশেষে ৩৬তম বিসিএসর ৩০ জনের নিয়োগ আদেশ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। গত ১২ ডিসেম্বর মন্ত্রণালয়ে ওয়েবসাইটে প্রজ্ঞাপনটি প্রকাশ করা হয়েছে। পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি) কর্তৃক সুপারিশকৃত দুই হাজার ৩২৩ জনের মধ্য থেকে তৃতীয় দফায় নিয়োগ প্রজ্ঞাপন জারি করা হলো। এ প্রজ্ঞাপনে ৩০ জনের ভাগ্য খুলেছে।

জন প্রশাসন মন্ত্রণালয় ‘নিয়োগ বিধি’ অনুসরণ করে দু’স্তরের (জেলা প্রশাসন ও পুলিশের বিশেষ শাখা দ্বারা) তথ্য-উপাত্ত যাচাই করে পিএসসির সুপারিশপ্রাপ্ত দুই হাজার ৩২৩ জনের মধ্য থেকে ৩৫ জনকে বাদ রেখে দুই হাজার ২৮৯ জনকে চূড়ান্তভাবে নিয়োগের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠায় অনুমোদন চেয়ে। বাদ পড়া ৩৫ জনের ব্যাপারে ‘রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার’ অভিযোগ ছিল। অনুমোদন চেয়ে পাঠানোর মধ্য থেকে ৬৮ জনকে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের একটি বিশেষ সংস্থা ‘রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টরা’ কারণে অযোগ্য করার সুপারিশ করেছে। তাদের মধ্য থেকে ৩০ জনের ভাগ্য খুলেছে।

অপর ৩৮ জনের ভাগ্য এখনো অনিশ্চয়তায়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নবনিয়োগ অধিশাখা কর্তৃক জারিকৃত প্রজ্ঞাপনটিতে স্বাক্ষর করেন সচিব ফয়েজ আহমেদ। নিয়োগের জন্য জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে ৩০ জনের মধ্যে সহকারী কমিশনার বা প্রশাসন ক্যাডারের আটজন, শিক্ষা ক্যাডারের ১৪টি বিষয়ে প্রভাষক পদে, কৃষি ক্যাডারে পাঁচজন, সড়ক ও জনপথ ক্যাডারে সহকারী প্রকৌশলী পদে দু’জন, খাদ্য ক্যাডারে একজন করে নিয়োগ পেয়েছেন। প্রজ্ঞাপনে নবনিয়োগপ্রাপ্তদের ১৩ দফা শর্তে আগামী ২৪ ডিসেম্বরের মধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে সংশ্লিষ্টদের যোগদান করতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, নিয়োগের আগে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, পিএসসির সুপারিশকৃতদের এসবির মাধ্যমে পুলিশি তদন্ত করা হয়। পাশাপাশি জেলা প্রশাসনও তদন্ত করে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় দায়িত্ব না দেয়ার পরও এবং তদন্তে সহায়তার অনুরোধ না সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রীর দফতরে দায়িত্ব পালনকারী অন্য একটি সংস্থা নিজ দায়িত্বে চাকরিপ্রার্থীদের ব্যক্তিগত তথ্য যাচাই-বাছাই করেছে। তদন্ত সংস্থাটি ৬৮ জনের ব্যাপারে ভিন্ন মতাদর্শের রাজনীতির সাথে সংশ্লিষ্ট থাকাসহ বিভিন্ন অভিযোগ উত্থাপন করেছে তাদের প্রতিবেদনে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানান, সরকারের একাধিক নিরাপত্তাসংস্থার তদন্তে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাদের আত্মীয় বা পরিবারের অন্য সদস্যরা বিএনপি বা জামায়াতের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। চাকরিপ্রার্থীদের কারো বিরুদ্ধে সরাসরি বিএনপি বা তাদের ছাত্র সংগঠন অথবা জামায়াতের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ নেই। অভিযোগ রয়েছে, তাদের দাদা বা মামা বা মায়ের চাচাতো ভাই বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। 

উল্লেখ্য, পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি) গত ১৭ অক্টোবর ৩৬তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করে। ওই দিন পিএসসি ৩৬তম বিসিএসে দুই হাজার ৩২৩ জনকে বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করে। এর ৯ মাস পর গত ৩১ জুলাই জনপ্রশাসন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়োগ দিয়ে গেজেট প্রকাশ করে।

এ নিয়োগে ১২১ জনকে বাদ রেখে জন প্রশাসন প্রথম গেজেট প্রকাশ করে। প্রথম গেজেটে বাদ পড়া ১২১ জনের মধ্য থেকে ১৭ সেপ্টেম্বর-১৮, ১৯ জনের দ্বিতীয় গেজেট প্রকাশ করা হয়। অপর ৬৮ জন এখন ভাগ্য বিড়ম্বনার শিকার। তাদের মধ্য থেকে ৩০ জনের তৃতীয় দফায় গেজেট প্রকাশ হলো গতপরশু ১২ ডিসেম্বর’১৮। আরো ৩৮ জনের ভাগ্যে কি হবে তা এখনো জানা যায়নি।

ভাগ্যবঞ্চিত এ ৩৮ জনের কয়েকজনের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, তারা এখনো আশা করছেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে তাদের নিয়োগ প্রজ্ঞাপন জারি হবে। তারা বলেন, আমাদের কারোই রাজনৈতিক সম্পৃক্তকার অভিযোগ নেই। আমরা কেউ-ই সরাসরি রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম না, এখনো নেই।


আরো সংবাদ

Hacklink

ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme