২১ আগস্ট ২০১৯

জ্বর হলেই ডাক্তারের কাছে যেতে হবে : পরীক্ষা করেই নিশ্চিত হতে হবে

ডেঙ্গু - ছবি : সংগৃহীত

মশা বাড়ছেই, ফলে বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা। সিটি করপোরেশনের ওষুধে মশা মরছে না। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে আরো এক চিকিৎসক মারা গেছেন। ঢাকায় নিযুক্ত জাতিসঙ্ঘের আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সিপপো ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। গতকালও রাজধানীতে ৪০৩ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। সরকারি হিসাবে মারা গেছে মাত্র পাঁচজন। কিন্তু বেসরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা ২২-এর অধিক। ডেঙ্গু জ্বরে বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন হয়ে গেছে বলে এবার জ্বর হলে অপেক্ষা না করে হাসপাতালে গিয়ে অথবা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ডেঙ্গু পরীক্ষার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। মেডিসিন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এবার ডেঙ্গুর সেরো টাইপ পরিবর্তনের কারণে জ্বর হতেই হেমোরেজিক অথবা শক সিনড্রোমে চলে যাচ্ছে রোগী। 

হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা: শাহাদাত হোসেন হাজরা গতকাল মারা গেছেন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে। তাকে চিকিৎসার জন্য রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এর আগে রাজধানীর কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালের রেডিওলজির চিকিৎসক ডা: নিগার নাহিদ দিপু নামে এক নারী চিকিৎসকের মৃত্যু হয়। নিগার নাহিদ দিপু রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে আইসিইউ-এ চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

বিশিষ্ট মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা: এ বি এম আব্দুল্লাহ জানিয়েছেন, এবারের ডেঙ্গু জ্বরে তাপমাত্রা ১০১ ডিগ্রির বেশি উঠছে না। আগের মতো র্যাশ (শরীরে লাল লাল ছোপ) দেখা যায় না, রক্তক্ষরণও হয় না। আগের মতো হাড়ে বা শরীরের সংযোগস্থলে ব্যথা হয় না। ফলে অনেকে বুঝতেই পারেন না যে তিনি ডেঙ্গু আক্রান্ত। এ কারণে আক্রান্ত নিজে অথবা তার অভিভাবক জ্বরকে প্রথমে গুরুত্বই দিতে চান না। কিন্তু জ্বর থেকে সেরে ওঠার পরও প্লাটিলেট (রক্তের সাদা অংশ) ভেঙে ব্লাড প্রেশার কমে যায়। জ্বরের সাথে বমি ও লুজ মোশনও (পাতলা পায়খানা) ডেঙ্গুর লক্ষণ। ফলে এবার মৃত্যুর হার বেশি। এবারের ডেঙ্গু হেমোরেজিক নয়, শকড সিনড্রোমের রোগী বেশি।
রোগতত্ত্ব রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক মিরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানিয়েছেন, জ্বর হলেই হাসপাতালে অথবা চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। বসে থেকে অপেক্ষা করা উচিত হবে না। কারণ এবার ডেঙ্গু হলেই বেশি জ্বর না হয়ে হেমোরেজিক হয়ে যাচ্ছে। 

ডেঙ্গুর বিপদ সম্বন্ধে রাজধানীর মহাখালীর বাসিন্দা মো: মাহবুবুর রহমান বলেন, এবারের ডেঙ্গু ব্যতিক্রম বৈশিষ্ট্য নিয়ে আবির্ভূত হয়েছে। ডেঙ্গুর এ মওসুমে রাজধানী ঢাকায় মশার রাজত্ব যেন। সিটি করপোরেশনের ওষুধে মশা মরে না। আবার ব্যক্তিগত উদ্যোগে বাজার থেকে যারা মশার ওষুধ কিনে বাসা-বাড়িতে স্প্রে করছেন সেগুলোও অকার্যকর। বিপদে পড়েছেন রাজধানীবাসী। 

গতকাল পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ৮৩ জন, ঢাকা শিশু হাসপতাালে ১২, মিটফোর্ড হাসপাতালে ৩৮, সোহরাওয়ার্দীতে ৩৩, রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ৪৫, বারডেমে ৮, পুলিশ হাসপাতালে ১৫, মুগদা হাসপাতালে ২৮, বিজিবি হাসপাতালে ৫, কর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৯ এবং বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ১২৩ জন আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ডেঙ্গু হেমোরেজিকে দুইজন এবং শক সিনড্রোমে আক্রান্ত একজন।


আরো সংবাদ

বিপিএলে নতুন নয় পুরোনো নিয়মের পক্ষেই কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স চিকিৎসাও নিতে পারছে না কাশ্মিরীরা মিয়ানমারে ভয়াবহ সংঘর্ষে ৩০ সেনা নিহত ‘দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূলে নিরলসভাবে কাজ করছে দুদক’ চিড়িয়াখানায় একই দিনে এলো দুই নতুন অতিথি ধান ক্ষেতের আইলে অবৈধ বৈদ্যুতিক তারে যুবকের মৃত্যু, মামলা নিচ্ছে না পুলিশ  রোহিঙ্গাদের শৃঙ্খল ব্যতীত হারানোর কিছু নেই নৌকার কর্মীকে সিগারেটের ‘ছ্যাঁকা’ দিলো আ. লীগ কর্মীরা আদালতে জবানবন্দি দিলো অন্তঃসত্ত্বা তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী লিবিয়া উপকূলে নৌকাডুবি : শতাধিক মৃত্যুর আশঙ্কা কৃষিযন্ত্রের দামের চেয়ে মানের দিকে গুরুত্ব দিতে হবে : কৃষিমন্ত্রী

সকল




mp3 indir bedava internet