১৭ আগস্ট ২০১৮

শিশুর পাইলস এবং চিকিৎসা

পাইলস
শিশুর পাইলস - সংগৃহীত

শিশুদেরও পাইলস হয়। তবে প্রকৃত পাইলস শিশুদের কম হয়। অভিভাবকেরা শিশুদের যে পাইলসের সমস্যা অর্থাৎ টয়লেটে রক্ত গেলে চিকিৎসকের কাছে আসেন তাদের বেশিরভাগই পাইলস নয়। শিশুদের টয়লেটে রক্ত যাওয়ার প্রধান কারণ রেকটাল পলিপ। এটি এক ধরনের আঙুর ফলের মতো টিউমার, যা ক্যান্সার নয়। এ টিউমার থেকে প্রচুর রক্ত যায়। এগুলো এক বা একাধিক হতে পারে এবং এরূপ শত শত পলিপ থাকতে পারে যা থেকে সাধারণত রক্ত ও মিউকাস বা আম যায়। রোগীর অভিভাবকেরা মনে করেন, এটি রক্ত আমাশয় এবং ওষুধ দিয়ে ভালো করা যাবে।

রেকটাল পলিপ রোগের চিকিৎসা হচ্ছে এটিকে কেটে ফেলে দেয়া। রোগীকে ইনজেকশন দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে এটি করতে হয়। অভিভাবকদের ভয়, ছোট্ট শিশুকে অজ্ঞান করলে তার ক্ষতি হবে। কিন্তু বহু দিন রক্ত যাওয়ায় শিশুটি যে রক্তশূন্যতায় ভুগছে সেদিকে তাদের লক্ষ থাকে না। সবচেয়ে অসুবিধা হচ্ছে, দাদি-নানিরা অপারেশনের কথা শুনলেই একেবারে বেঁকে বসেন। তাদের ধারণা, এতটুকুন শিশুকে কখনো অজ্ঞান করা উচিত নয়। তারপর অনন্যোপায় হয়ে আধুনিক তরুণ বাবা-মা বিভিন্ন ডাক্তারের কাছে ধরনা দেন চিকিৎসায় এ রোগ ভালো করার জন্য। কিন্তু সেটি কোনো ডাক্তারের পক্ষেই সম্ভব নয়।

রেকটাল পলিপ অপারেশনের জন্য একজন শিশুকে কয়েক ঘণ্টা হাসপাতালে রাখলেই চলে। রোগীর পেট খালি করার জন্য আগের দিন কিছু ওষুধ দেয়া হয় যাতে পায়খানা পরিষ্কার হয়। খুব সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর খালি পেটে অপারেশন করাই ভালো। এ জন্য রোগীকে ঘুম পাড়ানোর ইনজেকশন দিতে হয়। একটি বিশেষ ধরনের যন্ত্রের সাহায্যে টিউমারটি (পলিপ) কেটে আনা হয়। যেহেতু এ অপারেশনে মলদ্বারে কোনো কাটাছেঁড়া করা হয় না, তাই অপারেশনের পর ব্যথা হওয়ার প্রশ্নই আসে না। অপারেশনের দু-তিন ঘণ্টা পর রোগী স্বাভাবিক খাওয়া-দাওয়া করতে পারে এবং সরাসরি বাসায় চলে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে হাসপাতালে ভর্তি না হয়ে বহির্বিভাগের রোগী হিসেবে পরক্ষণেই চলে যেতে পারে।

শিশুদের জন্য একটি সমস্যা হয়। এতে পায়খানা শক্ত হলে মলদ্বার ফেটে যায় এবং ব্যথা হয়। কিছুটা রক্তও যেতে পারে। কিছুদিন পর মলদ্বারে একটি গ্যাজ দেখা যায়। শিশু টয়লেটে যেতে ভয় পায় ব্যথার কারণে। এ রোগটির নাম এনালফিশার। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসক মল নরম করার জন্য ওষুধ দেন। পানি, সবজি, সালাদ খেলে উপকার পাওয়া যায়। পায়ুপথে মলম লাগানো যেতে পারে। চুলকানি হলে কৃমির ওষুধও দিতে হবে। জন্মের পরপরই যেকোনো সময় এ রোগ হতে পারে। সর্বকনিষ্ঠ এক মাস ১০ দিনের শিশুকে দেখেছি এ রোগে আক্রান্ত হতে। উপরোক্ত পদ্ধতি ও ওষুধ প্রয়োগেও ভালো না হলে অপারেশন করতে হয়।

মলদ্বারে শিশুদেরও হয় সেরকম আরেকটি রোগ হচ্ছে ফিস্টুলা বা ভগন্দর। এতে মলদ্বারের পাশে একটি মুখ থেকে পুঁজ ও রক্ত যায় এবং ব্যথা হয়। ১৭ মাসের একটি শিশুর এ রোগ দেখেছি। এ রোগের একমাত্র চিকিৎসা অপারেশন, তবে এটি শিশুদের খুব কম হয়।
মলদ্বারের প্রতিটি রোগের বিজ্ঞানভিত্তিক ব্যাখ্যা রয়েছে এবং এর প্রতিটিতেই সঠিক চিকিৎসায় সম্পূর্ণ আরোগ্য লাভ করা যায়।

বড়দের যে রোগটি সবচেয়ে বেশি হয় সেটি হলো পাইলস। আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানের কল্যাণে এখন ৮০-৯০ শতাংশ পাইলস রোগী বিনা অপারেশনে সম্পূর্ণ আরোগ্য লাভ করেন। এ পদ্ধতির নাম হচ্ছে ‘রিং লাইগেশন’ পদ্ধতি। কোনোরূপ অবশ, অজ্ঞান না করেই চেম্বারেই এর চিকিৎসা করা হয়। যে ক্ষেত্রে অপারেশন দরকার সে ক্ষেত্রেও দু-তিন দিন হাসপাতালে থাকতে হয়। অপারেশনের পর পাইলস আবার হয় এ ধারণা সম্পূর্ণ অমূলক। তবে দুই শতাংশ ক্ষেত্রে আবার হতে পারে। পেটে কৃমি থাকলে তার অবশ্যই চিকিৎসা করা উচিত। তবে কৃমির বাসা থেকে এ রোগের উৎপত্তি এ ধারণা সম্পূর্ণ ভ্রান্ত।

লেখক : বৃহদন্ত্র ও পায়ুপথ বিশেষজ্ঞ, প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, (অব) কলোরেকটাল সার্জারী বিভাগ, বিএসএমএমইউ, ঢাকা।
চেম্বার : ইডেন মাল্টি-কেয়ার হসপিটাল, ৭৫৩, সাতমসজিদ রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা। ফোন : ০১৭৫৫৬৯৭১৭৩-৬

 

আরো পড়ুন : একজন ফিস্টুলা রোগীর কেসহিস্ট্রি

অধ্যাপক ডা. এ কে এম ফজলুল হক

বয়সে তরুণ, ৩৫ বছর। পেশায় চিকিৎসক। উত্তরবঙ্গের একটি হাসপাতালের হাড় ও জোড়া বিশেষজ্ঞ কনসালট্যান্ট। হঠাৎ করে মলদ্বারে ব্যথায় আক্রান্ত হন। ধরা পড়ে মলদ্বারে ফোঁড়া হয়েছে। অপারেশন করালেন ঢাকার একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দিয়ে। কয়েক মাস পর আবার ফুলে উঠে ব্যথা হয়, পুঁজ পড়ে। এবারো অপারেশন করা হলো। কিছু দিন ভালো থাকলেন। আবার যথারীতি ব্যথা ও পুঁজ যাওয়া। এবার অন্য একজন সার্জনকে দেখালেন ও অপারেশন হলো। কয়েক মাস পরে আবার সেই একই সমস্যা। এবার আরো সিনিয়র বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করলেন এবং অপারেশন করানো হলো। কিন্তু কয়েক মাস পর আবারো একই অবস্থা। এ অবস্থায় বারবার সমস্যা দেখা দেয়ায় আরো তিনবার অপারেশন করা হলো, কিন্তু সমস্যা যাচ্ছে না। মোট সাতবার অপারেশন করেও সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। মলদ্বারের পাশের মুখ দিয়ে ফুলে উঠে ব্যথা হয় এবং পুঁজ যায়। রোগী (যিনি নিজেই ডাক্তার) হতাশায় ভেঙে পড়লেন। একজন বিশেষজ্ঞ সার্জনের পরামর্শে রোগী লেখককে দেখান। লেখক তাকে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অপারেশনের কথা বললেন। যেহেতু এটি জটিল ধরনের ফিস্টুলা (ভগন্দর) তাই রোগীকে তিন ধাপে সিটন পদ্ধতিতে অপারেশন করতে হবে বলে উপদেশ দিলেন। তিন ধাপে ওই রোগীকে সিটন প্রয়োগ করে অপারেশন করা হলো। নিয়মিত ড্রেসিং করা হলো। ডাক্তার রোগীর স্ত্রীও একজন এমবিবিএস ডাক্তার। তাই ড্রেসিংয়ে তিনি অনেক সাহায্য করলেন। আল্লাহর রহমতে রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হলেন।

ফিস্টুলা রোগ অপারেশন করলে আবার হতে পারে এটিই প্রচলিত ধারণা, এমনকি চিকিৎসকদের মধ্যেও। সার্জারি বইয়ের ভাষায় ‘ফিস্টুলা রোগটি নিয়ে চিকিৎসকেরা বিগত দুই হাজার বছর ধরে বড়ই বিপাকে আছেন। ফিস্টুলা অপারেশনের পর চিকিৎসকদের যত বদনাম হয়েছে অন্য কোনো অপারেশনে ততটা হয়নি।’ মলদ্বারের রোগের এই জটিলতার কারণে ১৮৩৫ সালে লন্ডনে একটি আলাদা হাসপাতাল হয় যার নাম সেন্ট মার্কস হাসপাতাল ফর দ্য ডিজিজেস অব কোলন অ্যান্ড রেকটাম। অর্থাৎ, বৃহদান্ত্র ও পায়ুপথ সার্জারির জন্য আলাদা হাসপাতাল। আজ থেকে ১৭০ বছর আগে চিকিৎসকেরা এ জাতীয় রোগের বিশেষত্ব বুঝে আলাদা হাসপাতাল করেছেন, যা এখন লন্ডনে রয়েছে। পৃথিবীর সব উন্নত দেশে বৃহদান্ত্র ও পায়ুপথ সার্জারির জন্য আলাদা বিশেষজ্ঞ বিভাগ হিসেবে স্বীকৃত।

লেখক বিগত পাঁচ বছরে মলদ্বারের সমস্যায় আক্রান্ত আট হাজার ৪৮২ জন রোগীর ওপর গবেষণা করে দেখেছেন। এদের ৩৫ শতাংশ এনালফিশার, ১৮ শতাংশ পাইলস, ১৫ শতাংশ ফিস্টুলা ও ২ দশমিক ৬৫ শতাংশ ক্যান্সারে আক্রান্ত। এই গবেষণায় দেখা যায়, ফিস্টুলা রোগীদের ৮৪ শতাংশ সাধারণ ফিস্টুলা এবং ১৬ শতাংশ জটিল ফিস্টুলা। লেখকের দেখা ফিস্টুলা রোগীদের ১৭ শতাংশ বার বার অপারেশনে ব্যর্থ হওয়া রোগী। যার মধ্যে বিদেশে একাধিকবার অপারেশন করে ব্যর্থ হওয়া রোগীও আছেন। অল্পসংখ্যক রোগী পাওয়া গেছে, যাদের ক্যান্সারের কারণে ফিস্টুলা হয়েছে।

রেকটাম ও মলদ্বার মানবদেহের একটি জটিল অঙ্গ। এ বিষয়ে বিশেষভাবে দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন একজন সার্জন অপারেশন করলে ফিস্টুলা রোগটি বারবার হওয়ার সম্ভাবনা সর্বনিম্ন পর্যায়ে রাখা যায়। লেখক এ বিষয়ে তার গবেষণা প্রবন্ধের জন্য জুন ২০০০-এ যুক্তরাষ্ট্র কতৃক ইন্টারন্যাশনাল স্কলার সম্মাননা লাভ করেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্বখ্যাত মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে তার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন প্রবন্ধে। গবেষণা প্রবন্ধের শিরোনাম ছিল্ল ‘অস্ত্রোপচার সত্ত্বেও বারবার ফিস্টুলা হওয়া কি রোগটির ধর্ম, নাকি পূর্ববর্তী অস্ত্রোপচারের ত্রুটি।’

লেখক : বৃহদন্ত্র ও পায়ুপথ বিশেষজ্ঞ, প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, (অব) কলোরেকটাল সার্জারী বিভাগ, বিএসএমএমইউ, ঢাকা।

চেম্বার : ইডেন মাল্টি-কেয়ার হসপিটাল, ৭৫৩, সাতমসজিদ রোড, (ষ্টার কাবাব সংলগ্ন) ধানমন্ডি, ঢাকা। ফোন : ০১৭৫৫৬৯৭১৭৩-৬

 

আরো পড়ুন : যে সব খাবার শিশুর উচ্চতা বাড়ায়

ডা: মৌসুমী রিদওয়ান

লম্বা মানুষ তা ছেলে হোক কিংবা মেয়ে সবাই পছন্দ করে। উচ্চতার মাধ্যমে একজন মানুষের ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠে অনেকখানি। আবার যেকোন পোশাকে মানিয়েও যায় খুব সহজে। উচ্চতা অনেকখানি নির্ভর করে জিনের উপর। তাই সন্তানের উচ্চতা নিয়ে বাবা মায়ের চিন্তার সীমা থাকে না। বংশগতির পাশাপাশি উচ্চতা ডায়েটের উপরও নির্ভর করে থাকে অনেকখানি। কিছু খাবার আছে যা আপনার সন্তানের উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে থাকে। প্রতিদিনকার খাদ্য তালিকায় এই খাবারগুলো রাখুন।

ডিম
প্রোটিন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আপনার সন্তানকে লম্বা করতে। প্রতিদিন একটি ডিম খাদ্যতালিকায় রাখুন। তা সিদ্ধ হতে পারে আবার ওমলেট করেও খাওয়াতে পারেন।

দুধ
প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, মিনারেলসহ অনেকগুলো ভিটামিন পাওয়া যায় এক গ্লাস দুধে। ভিটামিন ডি, ক্যালসিয়াম হাড় মজবুত করে তোলে। আপনার শিশুটি যদি ২ বছরের নিচে হয় তবে ফুল ক্রিম দুধ খাওয়াবেন। দুধে থাকা ফ্যাট তার শরীর এবং মস্তিষ্কের জন্য বেশ উপকারী। টকদই এবং পনির দুধের পরিবর্তে খাওয়াতে পারেন।

সয়াবিন
সয়াবিন আপনার শিশুর হাড় এবং পেশি মজবুত করে তোলে। এর সাথে এটি উচ্চতা বৃদ্ধি পেতে সাহায্য করে থাকে। সয়াবিন সবজির মত করে রান্না করে আপনার শিশুকে খাওয়াতে পারবেন।

মুরগির মাংস
মুরগির মাংস প্রায় সব শিশুর অনেক পছন্দ। খাবারের তালিকায় এই খাবারটি রাখুন। প্রোটিন সমৃদ্ধ এই খাবারটি তাদের উচ্চতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। তবে প্রতিদিন মুরগির মাংস খাওয়ার অভ্যাস তৈরি না করাই ভাল।

পালং শাক
পালং শাককে সুপার সবজি বলা হয়ে থাকে। এটি আপনার শিশুর হাড় মজবুত করার পাশাপাশি আয়রন এবং ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণ করে থাকে। আয়রন এবং ক্যালসিয়াম শিশুকে লম্বা করতে সাহায্য করে থাকে।

গাজর
ভিটামিন এ সমৃদ্ধ এই সবজিটি প্রোটিন সমন্বয? করতে সাহায্য করে। গাজর রান্না করে খাওয়ার চেয়ে কাঁচা খাওয়া বেশ উপকারী। কাঁচা গাজর সালাদ অথবা রস করে আপনার শিশুকে খাওয়াতে পারেন।

ফল
ফলের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে সবাই জ্ঞাত। ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ ফল যেমন মিষ্টি আলু, আম, পেঁপে, টমেটো, কলা, পিচ ফল ইত্যাদি উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে থাকে। এই ফলগুলো নিয়মিত আপনার শিশুর খাদ্যতালিকায় রাখুন।


আরো সংবাদ