১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

বড় জয় দিয়ে কোপার শিরোপা অভিযান শুরু করেছে ব্রাজিল

বড় জয় দিয়ে কোপার শিরোপা অভিযান শুরু করেছে ব্রাজিল - এএফপি

৩-০ গোলের বড় ব্যবধানে বলিভিয়াকে হারিয়ে কোপা আমেরিকার শিরোপা অভিযান শুরু করেছে ব্রাজিল। সাও পাওলোর মোরুম্বি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় শনিবার সকালে উদ্বোধনী ম্যাচে এই জয় পায় টুর্নামেন্টের স্বাগতিকরা। বার্সেলোনার হয়ে ধুঁকতে থাকা ফিলিপে কুতিনহো এই ম্যাচে করেছেন জোড়া গোল।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের হিসেবে প্রতিযোগিতার সবচেয়ে দুর্বল দলটি রক্ষণাত্মক পরিকল্পনায় মাঠে নেমে প্রথমার্ধে ব্রাজিলকে আটকে রাখলেও বিরতির পর আর পারেনি। তিন মিনিটের ব্যবধানে দুবার জালে বল পাঠিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় প্রতিযোগিতার আটবারের চ্যাম্পিয়নরা। আর শেষ দিকে দুর্দান্ত এক গোলে জয় নিশ্চিত করেন এভেরতন।

কোপা আমেরিকার ৪৬তম আসরে ব্রাজিল মাঠে নামে সাদা জামা পরে। একসময় ওটাই ছিল ব্রাজিলের হোম জার্সি। ১৯৫০ বিশ্বকাপে ‘মারাকানাজ্জো’ বিপর্যয়ের পর সেই সাদা রঙের জার্সি আর পরেনি ব্রাজিল। ৬৯ বছর পর আজ কোপা আমেরিকা দিয়ে জার্সিটি আবারও দেখা গেল ‘সেলেসাও’দের গায়ে। ১৯১৯ সালে কোপায় প্রথম শিরোপাটা সাদা রঙের জার্সিতেই জিতেছিল ব্রাজিল। শত বছর আগের শিরোপাজয়ের স্মৃতি এবার ফিরিয়ে আনতে সাদা জার্সির প্রত্যাবর্তন ছিল ‘প্রতীকী’—আর তাতে শুভসূচনাই করেছে তিতের দল।

খেলার প্রথমার্ধে ব্রাজিলের বক্সে বলিভিয়ানদের বল পর্যন্ত ছুঁতে দেয়নি স্বাগতিক ডিফেন্ডাররা। আর এ সময় বলিভিয়ার রক্ষণে ২৩বার বল ‘টাচ’ করেছেন ফিরমিনো-কুতিনহোরা। ম্যাচের গতিপথ তখন কিছুটা বোঝা গেলেও প্রথমার্ধে বলার মতো আক্রমণ করতে পারেনি তিতের দল। বিরতির পর ম্যাচের ভাগ্য ঠিক করে দেন কুতিনহো। নেইমারের অভাবটা বুঝতেই দেননি বার্সেলোনা মিডফিল্ডার। ৫০ থেকে ৫৩—এ চার মিনিটের ব্যবধানে জোড়া গোল করেন কুতিনহো। নির্ধারিত সময়ের ৫ মিনিট আগে বলিভিয়ার জালে শেষ গোলটি এভারটনের।

ব্রাজিল ফরোয়ার্ড রিচার্লিসনের শট ঠেকাতে গিয়ে নিজেদের বক্সের মধ্যে ‘হ্যান্ডবল’ করে বসেন বলিভিয়ার জুসিনো। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির (ভিএআর) সাহায্য নিয়ে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি নেস্তর পিতানা। কোপায় এবারই প্রথমবারের মতো ভার প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। সে যা–ই হোক, স্পটকিক থেকে গোল করে ব্রাজিলকে এগিয়ে দেন কুতিনহো।

এগিয়ে যাওয়ার ৩ মিনিটের মাথায় রিচার্লিসন-ফিরমিনো-কুতিনহো রসায়নে দ্বিতীয় গোলটি পেয়ে যায় ব্রাজিল। রিচার্লিসনের পাস থেকে দূরের পোস্টে দুর্দান্ত একটি ক্রস করেন ফিরমিনো। দৌড়ে গিয়ে হেডে জয়ের ব্যবধান দ্বিগুণ করেন এ মিডফিল্ডার। হেডের সময় কুতিনহোকে মার্ক করতে পারেনি বলিভিয়ার ডিফেন্ডাররা। বার্সার হয়ে সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছিল না কুতিনহোর। কোপায় ব্রাজিলের মূল একাদশে থাকবেন কি না, তা নিয়েও সন্দেহ ছিল। নেইমারের চোট আর তিতের ট্যাকটিকস একাদশের হয়ে মাঠে নামার সুযোগ করে দেয় কুতিনহোকে। আর সুযোগের সদ্ব্যবহার তিনি কী দারুণভাবেই না করলেন!

ম্যাচের সবচেয়ে সুন্দর গোলটি ডেভিড নেরেসের বদলি হয়ে মাঠে নামা এভারটনের। নির্ধারিত সময়ের পাঁচ মিনিট আগে কাট করে ভেতরে ঢুকে ২০ গজ দূর থেকে দারুণ বাঁকানো শটে গোলটি করেন গ্রেমিও ফরোয়ার্ড। ব্রাজিলের জার্সিতে আন্তর্জাতিক ম্যাচে এটা তাঁর প্রথম গোল। গোটা ম্যাচে ব্রাজিলের গোলপোস্ট তাক করে মাত্র একটি শট নিতে পেরেছে বলিভিয়া। পাঁচটি শট নিতে পেরেছে ব্রাজিল। বুধবার বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৬টায় ভেনেজুয়েলার মুখোমুখি হবে ব্রাজিল।


আরো সংবাদ