২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

সাফ ফুটবল : ধারাভাষ্য নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে হাস্যরস

বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যকার খেলার ধারাভাষ্য নিয়েই ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে - সংগৃহীত

'মাঠ চলে গেল বলের বাইরে', 'কর্দমাক্ত আকাশ মেঘমুক্ত মাঠ' এমন কিছু মজার ধারাভাষ্য বাংলাদেশের ফুটবল ভক্তদের মধ্যে প্রচলিত রয়েছে। এগুলো আসলেই বলা হয়েছে কি না সে নিয়ে সন্দেহের অবকাশ থাকতেই পারে। তবে মঙ্গলবার বাংলাদেশ ও ভুটানের ম্যাচের ধারাভাষ্য নিয়ে তুলকালাম চলছে ফুটবল ভক্তদের মধ্যে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রীতিমত হাসির জোয়ার বইছে ধারাভাষ্যকারদের নিয়ে। বিশেষত ধারাভাষ্যকারদের বেশ কিছু ভুল নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন অনেকে।

যেসব ভুল নিয়ে আলোচনা হয়েছে
- জেমি ডে অফিশিয়াল কার্ড পরেছেন বেণিটি ব্যাগের মতো করে"।
- বদলি হিসেবে মাঠে নামছেন মামুনুল ইসলাম, বাংলাদেশ দলের সাবেক ফুটবলার
- বলটি সামনে বাড়িয়ে দিলো এবং মাহবুবুর রহমান এগিয়ে যাচ্ছে তার স্পিড যদি এম্বাপ্পের মতো হয় তাহলে মনে হয় বলটি ধরতে পারবে
- বাংলাদেশের দর্শকরা উপলব্ধি করার চেষ্টা করছেন কিভাবে তারা ম্যাচটি উপলব্ধি করবেন
- খেলার সময় অতিক্রান্ত হয়েছে বাইশ অর্থাৎ টুয়েন্টি টু মিনিট
- ভুটান পরেছে কমলা রঙের জার্সি, অপরদিকে বাংলাদেশ পরেছে সবুজ রঙের জার্সি, সাদা রঙের প্যান্ট, সাদা রঙের মোজা হলুদ রঙের মোজা, অর্থাৎ ইনি গোলকিপার
- শেষ পর্যন্ত বাদশাহ বলটি কে পাহাড়া দিলো এবং পাহাড়া দিতে দিতে গোল লাইন এর বাহিরে পর্যন্ত নিয়ে গেলো
- প্রথম তিন মিনিটে (টাইব্রেকারের) মাধ্যমে এক গোলে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিক্রিয়া

এসব ধারাভাষ্য নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

সাইফুল আলম চৌধুরী লিখেছেন, "এমন ধারাভাষ্যকার লইয়া জাতি কি করিবে! মামুনুল বদলি খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার পর ধারাভাষ্যকার বলছে, বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক খেলোয়াড় মামুনুল নামলেন!!!! মনে হচ্ছিল, ধারাভাষ্যকার কবরের ওপার থেকে ধারাভাষ্য দিচ্ছেন!!"

বর্ষন কবির নামে একজন লিখেছেন, "চৌধুরী জাফরউল্লাহ শরাফত কবে অবসর নেবেন? পেনাল্টি পেলেও বলেন না। গোল হলেও একই 'টোন'! বেতার ও টিভি'র ধারাভাষ্যের পার্থক্যতো ভাই রাখবেন!'

"ভুটান কিন্তু বাংলাদেশ অপেক্ষা দুর্বল দল। কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে যে "পঁচা শামুকেই পা কাঁটে"। উদাহরণ হিসেবে বিশ্বকাপের আর্জেন্টিনা বনাম আইসল্যান্ডের ম্যাচটিই দেখুন।- চ্যানেল নাইনের এক কমেন্টেটর।" লিখেছেন মোস্তাফিজুর রহমান প্রান্ত ।

আবার কেউ কেউ ধারাভাষ্যকারদের পক্ষেও কথা বলেছেন।

যেমন ইসমাইল আহমেদ নামে একজন লিখেছেন, "যারা বাংলাদেশের ধারাভাষ্যকার নিয়ে মজা নিচ্ছে তারা কি কখনো ভারতীয় বাংলা চ্যানেল ''জলসা মুভি'' তে আইপিএল এবং ফুটবল বিশ্বকাপ দেখেছে??? ধারাভাষ্যতো তারাই উচ্চতায় নিয়ে গেছে।"

"সবাই যেইভাবে কমেন্ট্রি নিয়ে ট্রল করে পোস্ট দিচ্ছেন মনে হচ্ছে সবাই খেলা দেখা বাদ দিয়ে খেলা শুনছেন!!! বাদ দেন না ভাই, খেলার পজিটিভ দিক নিয়ে পোস্ট দেন পিলিজ.....।" মন্তব্য করেছেন মিজান রাসেল নামের এক ব্যক্তি।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ ভুটানের বিপক্ষে ২-০ গোলের ব্যবধানে জয় পায়।

 

আরো পড়ুন : ছেলেরা সঠিক সময়েই গোল করেছে : জেমি ডে

ভুটানের বিপক্ষে বাংলাদেশ সঠিক সময়েই গোল করেছে বলে মন্তব্য করেছেন কোচ জেমি ডে। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সাফ সুজুকি কাপের গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ গোলে হারিয়ে পুর্ন তিন পয়েন্ট লাভ করেছে স্বাগতিকরা।

ম্যাচ জয়ের পর প্রতিক্রিয়ায় স্বাগতিক দলের ব্রিটিশ এই কোচ বলেন, ‘ছেলেরা অনেক পরিশ্রম করেছে। ভালো খেলেছে। সঠিক সময়ে গোল করেছে। আমরা এই ম্যাচটি জিততে চেয়েছি, জিতেছি। পরবর্তী দুই ম্যাচ ভিন্ন দুই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে। ম্যাচ বাই ম্যাচ ভালো খেলে এগুতে চাই আমরা। এই ম্যাচে যে ত্রুটি ও অভাব ছিল সেগুলো পরবর্তী ম্যাচে পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা করব।’

এ সময় স্টেডিয়ামে দর্শক উপস্থিতি প্রসঙ্গে বাংলাদেশ দলের কোচ বলেন, ‘দর্শক উপস্থিতি ছিল অসাধারণ। (নীলফামারীতে) শ্রীলংকার বিপক্ষের প্রীতি ম্যাচেও প্রচুর দর্শক ছিল। তবে সেখানে আমরা জয় পাইনি। আজকের ম্যাচেও অনেক দর্শক ছিল। আজ জয় পেয়েছি। বাংলাদেশের দর্শকরা সত্যিই অসাধারণ।’

এ সময় স্বাগতিক দলের মিডফিল্ডার মাসুক মিয়া জনি বলেন, কোচ ভুটানের বিপক্ষে স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে বলেছেন। টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকেও কোনো চাপ ছিল না। তবে আমরা ভুটানের বিপক্ষে জেতার জন্যই খেলেছি। তাদের কাছে হেরে ১৭ মাস আমরা আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলতে পারিনি। তাই ভেতরে ভেতরে তাদের হারানোর একটা জেদ সবার মধ্যেই ছিল। সেটা কাজে লাগিয়ে আমরা জয় তুলে নিয়েছি। দর্শকদের ধন্যবাদ দিব। তারা খুব ভালো সমর্থন দিয়েছে আমাদের। আমরা ম্যাচ বাই ম্যাচ ভালো খেলে এগিয়ে যেতে চাই।

ভুটানের কোচ ট্রেভর জেমস মর্গান বলেন, আমাদের ভাগ্য খারাপ ছিল। ম্যাচের দুই অর্ধে শুরুতেই গোল হজম করেছি। এরপর চেষ্টা করেও আমরা গোল পাইনি। যদিও অনেকগুলো সুযোগ তৈরি করেছি। কিন্তু সেগুলো কাজে লাগাতে পারিনি। আমরা আমাদের গেম প্লান ঠিকমতো কাজে লাগাতে পারিনি। বাংলাদেশ ভালো খেলেছে। তাদের দর্শকরা অনেক সমর্থন দিয়েছে। মূলত শুরুতেই গোল হজম করে আমরা পিছিয়ে পড়ি। প্রথমে পিছিয়ে পড়ে সেখান থেকে ফিরে আসাটা কঠিন।’


আরো সংবাদ

Hacklink

ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme