২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

গোলবন্যায় মেসিদের জয়

গোলের পর সুয়ারেজকে অভিনন্দন মেসির - ছবি : সংগৃহীত

লা লিগায় নবাগত সোসিয়েদাদ দেপোর্তিভা হুয়েস্কাকে ৮ গোলের মালা পরিয়ে ন্যু ক্যাম্পে স্বাগত জানাল লিওনেল মেসির বার্সেলোনা৷ যদিও স্প্যানিশ লিগের লিলিপুটদের বিরুদ্ধে একজোড়া গোল হজম করতে হয় বার্সাকে৷

এই প্রথমবার লা লিগার আঙিনায় পা দেয়া হুয়েস্কার বিরুদ্ধে তৃতীয় রাউন্ডের লড়াই ছিল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বার্সার৷ স্বাভাবিকভাবেই এই প্রথমবার নবাগত দলটির মুখোমুখি হয় স্প্যানিশ জায়ান্টরা৷ তবে শুরুতে ঘরের মাঠে আনকোরা প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সতর্ক না থাকার মাশুলও দিতে হয় মেসিদের৷

ম্যাচের তিন মিনিটের মাথায় হার্নান্ডেজের গোলে এগিয়ে যায় হুয়েস্কা৷ তাকে গোলের পাস বাড়ান লোঙ্গো৷ যদিও ম্যাচে সমতা ফেরাতে বিশেষ সময় নষ্ট করেনি বার্সা৷ ১৬ মিনিটে ব়্যাকিটিচের পাস থেকে গোল করে ম্যাচের স্কোরলাইন ১-১ করেন স্বয়ং মেসি৷

২৬ মিনিটে জর্জ পুলিদোর আত্মঘাতী গোলে ম্যাচে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা৷ ৩৯ মিনিটে জোর্ডি আলবার পাস থেকে গোল করেন সুয়ারেজ৷ প্রথমার্ধেই একটি গোল শোধ করেন হুয়েস্কার অ্যালেক্স গালার৷ ৪২ মিনিটে তিনি বার্সেলোনার জালে বল জড়িয়ে দেন৷

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে বার্সেলোনার একাধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হয়৷ প্রতিপক্ষের ছক বুঝে যাওয়ার পরেই মুহূমুর্হু আক্রমণে হুয়েস্কার রক্ষণ ভেঙে তছনছ করে দেয় বার্সা স্ট্রাইকাররা৷ দ্বিতীয়ার্ধে সুযোগ মতো পাঁচটি গোল করেন দেম্বেলে, ব়্যাকিটিচ, মেসি, জোর্জি আলবা ও সুয়ারেজ৷

৪৮ মিনিটে সুয়ারেজের পাস থেকে বার্সার হয়ে চতুর্থ গোল করেন দেম্বেলে৷ ৫২ মিনিটে মোসির পাস থেকে গোল করে যান ব়্যাকিটিচ৷ ৬১ মিনিটে কুটিনহোর ক্রস থেকে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় ও দলের হয়ে ষষ্ঠ গোল করেন মেসি৷ বাকি দু’টি গোল আলবা ও সুয়ারেজের৷

৮১ মিনিটে মেসির কাছ থেকে বল ধরো হুয়েস্কার জালে জড়িয়ে দেন ব়্যাকিটিচ৷ সংযোজিত সময়ে বার্সেলোনা পেনাল্টি পেলে ৯০+৩ মিনিটে স্পট কিক থেকে গোল করেন সুয়ারেজ৷

৮-২ ব্যবধানে হুয়েস্কাকে পরাজিত করার সুবাদে তিন ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে উঠে আসে বার্সেলোনা৷ গোলপার্থক্যের নিরিখে তারা পিছনে ফেলে দেয় রিয়াল মাদ্রিদকে৷

আরো পড়ুন :

তৃতীয় ম্যাচেও গোল পেলেন না রোনালদো
জুভেন্তাসের হয়ে তৃতীয় ম্যাচেও গোল অধরা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। তবে শনিবার অ্যাওয়ে ম্যাচে পারমার চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করতে সমস্যা হল না ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি-ব্রিগেডের। সিরি-এ’তে প্রথম তিনটি ম্যাচেই জয়ের ধারা বজায় রাখল ‘ওল্ড লেডি অব তুরিন’। এই জয়ের অন্যতম কারিগর ক্রোয়েশিয়ান তারকা মারিও মান্ডুকিচ। নিজে লক্ষ্যভেদ করেছেন। পাশাপাশি মাতৌদিকে গোলের বল সাজিয়ে দিয়েছেন তিনি।

নতুন ক্লাবের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক কর্তব্য থেকে আপাতত নিজেকে দূরে রেখেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। লিগের প্রথম তিনটি ম্যাচে তিনি গোল না পেলেও জুভেন্তাস কোচ ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি বলেছেন, ‘ইতালির ফুটবল সম্পূর্ণ অন্যরকম। ইপিএল বা লা লিগার সঙ্গে কোনো তুলনাই চলে না সিরি-এ’র। তাই মানিয়ে নেয়ার জন্য রোনালদোকে সময় দিতে হবে। পারমার বিরুদ্ধে ও যথেষ্ট ইতিবাচক পারফরম্যান্স মেলে ধরেছে। বেশ কয়েকটি শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট না হলে এদিনই রোনালদো গোলের স্বাদ পেতে পারত।’
ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই কাঙ্ক্ষিত লিড নেয় জুভেন্তাস। ডানদিক থেকে কুয়াদ্রাদোর ক্রস ভেসে আসে পারমা বক্সে। মারিও মান্ডুকিচের মাথা ছুঁয়ে বল বিপক্ষ ডিফেন্ডার লাকোপোনির পিঠে লাগে। ফিরতি বল গোলে ঠেলে দিতে ভুল হয়নি সুযোগসন্ধানী ক্রোট স্ট্রাইকারটির (১-০)। এরপর দু’পক্ষই একাধিক গোলের সুযোগ তৈরি করেও ব্যর্থ হয়। ৩৩ মিনিটে ম্যাচে সমতা ফেরায় পারমা। বাঁদিক থেকে ভেসে আসা ক্রস ইনগ্লিসের মাথায় লেগে চলে আসে জার্ভিনহো কাছে। মাপা পুশে জাল কাঁপান তিনি (১-১)। এই গোলের জন্য জুভেন্তাস গোলরক্ষক সেজনি এবং ডিফেন্ডাররা দায় এড়াতে পারেন না। বিরতির অব্যবহিত আগে দু’বার সুবিধাজনক অবস্থায় বল পেয়েও লক্ষ্যভেদে স্থির থাকতে পারেননি ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই প্রেসিং ফুটবল মেলে ধরে পারমার উপর চাপ সৃষ্টি করে জুভেন্তাস। ৫৮ মিনিটে তার সুফলও পায় তারা। মান্ডুকিচের বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাক হিল থেকে বল পেয়ে বাঁ পায়ের কোনাকুনি শটে পারমা গোলরক্ষককে হার মানান ব্লেইস মাতৌদি (২-১)। এরপর দুই দলই একাধিক ফুটবলার পরিবর্তন করে। তবে আঞ্চলিক আধিপত্য ছিল জুভেন্তাসেরই। মান্ডুকিচ এবং রোনালদো প্রাপ্ত সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে ব্যবধান অবশ্যই আরো বাড়ত।


আরো সংবাদ