২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ক্ষুব্ধ সালাহ : মিসরের হয়ে খেলা অনিশ্চিত

রাশিয়া বিশ্বকাপের মাঠে মোহাম্মদ সালাহ - ফাইল ছবি

মিসরীয় ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের বিরুদ্ধে এবার প্রকাশ্যে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন দেশটির ফুটবল তারকা মোহাম্মদ সালাহ। জানিয়েছেন, টিম হোটেলের পরিবেশ ঝামেলা মুক্ত রাখা ও নিরাপত্তা বৃদ্ধির বিষয়ে তার অনুরোধে সাড়া দেয়নি মিসরের ফুটবল কর্তারা। বিশ্বকাপের সময় রাশিয়ায় দলের ক্যাম্প নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি। ফলে জাতীয় দলে সালাহর খেলা নিয়েই সৃষ্টি হয়েছে অনিশ্চয়তা।

সোমবার সন্ধ্যায় নিজের ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন মিসর ও লিভারপুল এফসির এই ফরোয়ার্ড। তাতে তিনি বলেন, জাতীয় দলে থাকার সময় টিম হোটেলের পরিবেশ যাতে নিরাপদ ও ঝামেলামুক্ত থাকে সেটি চেয়েছিলেন তিনি। সালাহ বলেন, ‘আমরা তো এমন বিশেষ কিছু চাইনি। হোটেলে শান্তিতে থাকার ব্যবস্থা চেয়েছি- যাতে সন্ধ্যা থেকে ভোর চারটা পর্যন্ত লোকজন এসে বিরক্ত না করে’।

কিছুদিন আগে তার আইনজীবীর মাধ্যমে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে মিসরীয় ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে একটি চিঠি দিয়েছিলেন মোহাম্মাদ সালাহ। যাতে হোটেলে ও হোটেলের বাইরে নিরাপত্তা বৃদ্ধির কথা ছিলো। সে বিষয়ে ফেসবুকে পোস্ট করা ভিডিওতে সালাহ বলেন, ‘হোটেল রুমে ঝামেলামুক্ত পরিবেশ চেয়েছিলাম। যখন তখন কেউ যাতে দরজায় টোকা না দেয়, যখন তখন কেউ যাতে রুমে প্রবেশ না করে।’

এর আগে গত রোবাবর সালাহ এক টুইটারে লিখেছেন, খেলোয়াড়দের এই বিষয়গুলো দেখা যে কোন ফেডারেশনের দায়িত্ব; কিন্তু দুঃখজনক যে আমি এমন কিছুই দেখিনি। বরং উল্টোটা দেখছি।

গত বিশ্বকাপের সময় মোহাম্মাদ সালাহর ইমেজকে নিজের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের চেষ্টা করেছেন চেচনিয়ার প্রাদেশিক প্রেসিডেন্ট রমজান কাদিরভ। প্রস্তুতি ক্যাম্প চলাকালে তিনি সালাহর সাথে ছবি তুলেছেন, সালাহকে চেচনিয়ার সম্মানসূচক নাগরিকত্ব দেন কাদিরভ। সমালোচনা আছে যে, সালাহকে ব্যবহার করে মুসলিম বিশ্বের কাছে নিজের হারানো ইমেজ উদ্ধারে চেষ্টা করেছেন কাদিরভ(বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুন)। মিসর সরকার কাদিরভকে এই সুযোগ দিয়েছে বলে ভাবা হচ্ছে।

এই বিষয়গুলো নিয়ে পরবর্তীতে ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে চিঠি দেন সালাহ। তারা কোন ব্যবস্থা নেয়া তো দূরের কথা, চিঠির কোন জবাবও দেয়নি। যার ফলে সালাহর এই ক্ষোভ।

এই পরিস্থিতিতে সালাহ মিসর জাতীয় দলের হয়ে আর খেলবেন কিনা তাই নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। আগামী মাসে আফ্রিকান কাপ অব নেশনসের বাছাইপর্বে নাইজারের বিরুদ্ধে ম্যাচ থেকে সালাহ নিজেকে প্রত্যাহার করতে পারেন, এমনকি আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের সমাপ্তিও টানতে পারেন মিসরকে ৩০ বছর পর বিশ্বকাপে নেয়া এই তারকা।

সালাহর এজেন্ট রামি আব্বাস বলেন, ‘যথেষ্ট হয়েছে, আর নয়’। মিসরের একজন ক্রীড়া সাংবাদিকের সূত্রে জানা যায়, মিসরীয় ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন বলেছে, সালাহর আর্ন্তজাতিক ফুটবলে বিরতি নেবেন কি না সে বিষয়ে তাদের কাছে জানতে চেয়েছে সালাহর ক্লাব লিভারপুল এফসি।

সূত্রটি বলছে, টিম হোটেলে ভিআইপি কিংবা স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের লোকদের যখন তখন যাওয়া বন্ধ করাসহ যেসব দাবি সালাহ করেছে তা মানবে না মিসরীয় ফুটবল কর্তারা। তবে যদি সত্যিই নিরাপত্তা বৃদ্ধির দাবি প্রত্যাখান করা হয়, সেপ্টেম্বরে মিসরের হয়ে সালাহর মাঠে নামা অনিশ্চিত হয়ে যাবে।


আরো সংবাদ