১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

ইংল্যান্ডের পারফরমেন্স পরর্বতী প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে

বিশ্বকাপ
জয়ের পর খেলোয়াড়দের সাবাশি দিচ্ছেন ইংল্যান্ড কোচ - সংগৃহীত

১৯৯০ সালের পরে প্রথমবারের মত বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইংল্যান্ড। আর জাতীয় দলের এই পারফরমেন্স পরবর্তী প্রজন্মকে দারুণভাবে অনুপ্রাণীত করবে বলে বিশ্বাস ইংলিশ মিডফিল্ডার এরিক ডায়ারের।

শনিবার সুইডেনকে ২-০ গোলে কোয়ার্টার ফাইনালে পরাজিত করে শেষ চার নিশ্চিত করেছে ইংল্যান্ড। হ্যারি ম্যাগুয়াইরে ও ডেলে আলির গোলে ইংল্যান্ডের জয় নিশ্চিত হয়। শেষ চারে তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

টটেনহ্যামের তারকা মিডফিল্ডার ডায়ার বলেছেন, ‘এটা আমাদের জন্য অনেক বড় অর্থ বহন করে। এই নিয়ে মাত্র তিনবার ও ২৮ বছরের প্রথমবার ইংল্যান্ড সেমিফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জণ করেছে। ইংলিশ ফুটবলের পরবর্তী প্রজন্মের জন্য আমি এটাকে অনুপ্রেরণা হিসেবে দেখতে চাই। আশা করি তারা যখন আমাদের দিকে তাকাবে তখন তাদের মনে একটাই বিশ্বাস আসবে, সবকিছুই সম্ভব। আর এতেই তারা আমাদেরকে ছাড়িয়ে আরো অনেক দুর যাবার আত্মবিশ্বাস পাবে।’

পর্তুগালে বেড়ে ওঠা ডায়ার বলেছেন, তিনি সবসময়ই ইংল্যান্ডের জাতীয় দলের হয়ে খেলার স্বপ্ন দেখেছেন। কিন্তু আজ যা ঘটেছে তা কখনই কল্পনাও করেননি। একইসাথে তিনি স্বীকার করেছেন টুর্নামেন্ট থেকে ইতোমধ্যেই ফেবারিট দলগুলো বিদায় নিলেও বিষয়টি নিয়ে ইংল্যান্ড মোটেই চিন্তিত নয়।

তিনি বলেন, ‘রাশিয়া বিশ্বকাপে প্রতিটি ম্যাচই বেশ কঠিন হয়েছে। টুর্নামেন্ট শুরুর দিন থেকে আমরা দেখেছি যে দলগুলোকে অপেক্ষাকৃত দূর্বল ভাবা হয়েছে তাদের বিপক্ষে বড় দলগুলো কতটা চাপে ছিল। যদিও বিশ্বকাপে দূর্বল দল বলে কোনো কথা নেই। এখানে প্রতিটি দলেরই কিছু না কিছু গুণ আছে। আমরা সুইডেনের বিপক্ষে সেই অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি। এটা সত্যিই দারুণ কঠিন ম্যাচ ছিল। আমাদের সবচেয়ে বড় শক্তি হচ্ছে একতা। এই দলের ২৩ জন খেলোয়াড়ের মধ্যে দারুণ একটি সম্পর্ক রয়েছে। আমরা একে অপরের জন্য লড়াই করতে প্রস্তুত এবং এজন্য আমাদের মানসিকতাও বেশ শক্তিশালী। বিশ্বকাপের আগে থেকেই প্রত্যেকে এই ফলাফলটাই দেখতে চেয়েছে। আর এখন শেষ দিন পর্যন্ত আমরা প্রত্যাশা করে যাব।

দেখুন:

আরো সংবাদ