২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পোস্ট দিয়ে বিপাকে মেসির স্ত্রী

পোস্ট দিয়ে বিপাকে মেসির স্ত্রী - ছবি : সংগৃহীত

নবাগত আইসল্যান্ডের সাথে ড্র’র পর ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে হার বরণ করে আর্জেন্টিনা। ওই হারের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মহাবিপাকেই পড়েছেন আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসির স্ত্রী আন্তোনেইয়া।

ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে ইনস্ট্রাগ্রামে সন্তানকে বুকে নিয়ে একটি পোস্ট দেন আন্তোনেইয়া। ছবিটির ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘ভামোস পাপি’। অর্থাৎ ‘এগিয়ে যাও বাবা।’ এমন ছবি দেখে অনেকেই ইতিবাচক মন্তব্য করেন।

কিন্তু ম্যাচ শেষ হওয়ার পর ওই ছবির মন্তব্যের চিত্র পাল্টে গেল। তুলোধুনা করেছেন ওই ছবিকে নিয়ে।
কেউ লিখেছেন, ‘একটু অপেক্ষা কর, বাবা বাড়ি ফিরে আসছে শিগগিরই।’
আবার কেউ লিখেছেন, ‘তোমার বাবা হেরে গেছে।’

আবার অনেকে উপদেশও দিয়ে লিখেছেন, ‘তোমার বাবাকে বলো, নাইজেরিয়ার বিপক্ষে ভালো খেলে জয়ের স্বাদ নিতে।’

এসব মন্তব্যের কান উত্তর দেননি আন্তোনেইয়া। রাশিয়া যাবার কথা থাকলেও সন্তানদের নিয়ে বুয়েন্স আয়ার্সেই আছেন মেসির স্ত্রী।

আরো পড়ুন :
এখনো স্বপ্ন দেখছেন মেসি
ক্রীড়া প্রতিবেদক
নাইজেরিয়াই নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছে আর্জেন্টিনাকে। যে দলটি বিশ্বকাপের রিটার্ন টিকিটের খোঁজে ছিল। সে আর্জেন্টিনা আবার নতুনভাবে স্বপ্ন দেখছে বেঁচে থাকার। নাইজেরিয়াই তাদের সে শক্তি। আইসল্যান্ডকে নাইজেরিয়া যদি না হারাতো, তাহলে এমন স্বপ্ন হয়তো তারা দেখত না। এখন মেসিরা আবার প্রাণ খুঁজে পেয়েছে রাশিয়া বিশ্বকাপে। কারণ ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে ম্যাচে সব ব্যর্থতা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে খেলে জয় পেলে মেসিরা উঠে যাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে। আপাতত এটাই একমাত্র লক্ষ্য সাম্পাওলিরও।

নাইজেরিয়ার সঙ্গে অতীত ইতিহাসও আর্জেন্টাইনদের পক্ষে। এর আগে বিশ্বকাপে যতবার খেলা হয়েছে, তাতে কোনোবারই জিততে পারেনি নাইজেরিয়া। ব্যবধান কম থাকলেও ম্যাচে জয় তুলেছে তারা নিয়মিত। এ পর্যন্ত চারবার খেলেছে দুই দল বিশ্বকাপে একে অপরের বিপক্ষে। এতে প্রতিবারই জয় আর্জেন্টিনার। তবে বিশ্বকাপের বাইরে প্রীতিম্যাচে নাইজেরিয়ার জয়ের রেকর্ড রয়েছে। সেটা ৪-২ গোলেও। ২০১৭ সালে হয়েছিল সর্বশেষ দুই দলের লড়াই। ওই ব্যবধানে নাইজেরিয়া জিতেছিল বিধায় আর্জেন্টিনার কিছুটা হলেও যে টেনশন কাজ করছে!
তবে এটাও ঠিক আইসল্যান্ড জয় পেলে তো আর কোনো উপায়ই ছিল না। সেখানে নাইজেরিয়াই পথ দেখাচ্ছে।

এটি বড় প্রাপ্তি। এ জন্য নাইজেরিয়াকে ধন্যবাদও দিতে পারে আর্জেন্টিনা। যে দলটি এবার এসেছে বিশ্বকাপ জিততে। সে দল প্রথম রাউন্ডের গণ্ডি পেরোতে পারবে না, তা তো হয় না। আর্জেন্টিনার এমন পরিণতিতে গোটা বিশ্বকাপই পানসে হওয়ার উপক্রম। কিন্তু এখন আবার স্বপ্ন। অবশ্য আর্জেন্টাইনরা পেয়েছে ম্যারাডোনার পর একজন ফুটবল জাদুকর লায়নেল মেসি। ম্যারাডোনা বিশ্বকাপসহ কিনা পেয়েছেন। কিন্তু মেসি তার চেয়েও অনেক কিছু বেশি পেলেও বিশ্বকাপ পাননি। আর্জেন্টাইনরা বিশ্বকাপটা জিততে চান এবার মেসির জন্যও। কারণ অসাধারণ এ ফুটবলারকে ম্যারাডোনার সঙ্গে তুলনা করা ঠিক না হলেও এ সময়ে অসাধারণ ফুটবল খেলে ভক্তকুলের হৃদয় কেড়েছেন। বিশ্বকাপটা তার জন্যও হলেও চায় অনেকেই।

মেসি সেটা পারবেন কি না তার একটা প্রমাণ নাইজেরিয়ার ম্যাচেই রাখতে হবে। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষেও তিনি কিছু করবেন সেটি প্রত্যাশায় ছিল। বার্সেলোনার এ তারকা ফুটবলারের একটা জাদু তো অবশ্যই আছে। কিন্তু সেটি এখনো রাশিয়া বিশ্বকাপে কেউ দেখেনি। আগের বিশ্বকাপেও তিনি অনেক ভালো খেলেছিলেন। শিরোপা জিততে পারেনি সেটা তাদের ভাগ্যেরও দোষ ছিল। তা ছাড়া একা মেসি কি বিশ্বকাপ জিতিয়ে দিতে সক্ষম? একার পক্ষে ম্যাচ জেতা সম্ভব না। কিন্তু মেসির খেলাটুকু অন্তত হোক। তার টুকু তিনি খেলুক। সেটা হয়নি।

নাইজেরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে সে প্রত্যাশাও থাকবে। অনেকেরই ধারণা মেসি সময় মতো জ্বলে ওঠেন। মেসি তার খেলাটা খেললে প্রতিপক্ষও প্রচণ্ড চাপে থাকে। এর আগে নাইজেরিয়া ম্যারাডোনাকেও আটকে দিয়ে সাফল্য দেখিয়েছিল। জয় হয়তো পায়নি। কিন্তু দুশ্চিন্তায় রেখেছিলেন তারা। এবার মেসিকে তারা মার্কিং তো অবশ্যই করবেন। কিন্তু মেসি কী সে মার্কিংয়ে আটকে যাবেন? এটা কোটি টাকার প্রশ্ন। আর্জেন্টাইনদের ধারণা মেসি খেললে নাইজেরিয়া আর পারবে না। সেটাই যদি হয় মেসি কী করবেন সেটা দেখার বিষয়। সে সুযোগটা কাজে লাগাবেন নাকি ক্রোয়েশিয়া-আইসল্যান্ডের ম্যাচের শেষে লজ্জায় মুখ লুকিয়ে ফিরেছেন সেভাবে ফিরবেন। তাই এখন দেখার বিষয়।


আরো সংবাদ