২২ আগস্ট ২০১৯

এইচএসসিতে ঊর্ধ্বমুখী ফল

পাস ৭৩.৯৩%, জিপিএ ৫ ৪৭,২৮৬ জন ; পাসে মেয়েরা, জিপিএ ৫- এ ছেলেরা এগিয়ে
সেরা ফলাফলে রাজউক স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের উল্লাস হ নূর হোসেন পিপুল -

গত বছরের বিপর্যয়ের পর এবার ঘুরে দাঁড়াল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল। এবার সব ক’টি সূচকের উন্নতি ঘটেছে। পাস করা শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে। অনুত্তীর্ণের সংখ্যা কমেছে। মেধা বিচার্য জিপিএ ৫ প্রাপ্তির সংখ্যা এবং শতভাগ উত্তীর্ণ প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। শূন্য পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও কমেছে। এ ছাড়া সামগ্রিক ফলে প্রভাব পড়েছে মানবিকে বেশি ফেলের। যেসব বোর্ডে শিক্ষার্থীরা মানবিক বিভাগে বেশি ফেল করেছে সেসব বোর্ডের ফল খারাপ হয়েছে। অন্য দিকে কুমিল্লা, রাজশাহী, যশোর ও মাদরাসা বোর্ডে আইসিটি, ইংরেজি ও গণিতে ভালো করায় সামগ্রিক ফলও ভালো হয়েছে। আবার সবচেয়ে কম পাস করা চট্টগ্রাম বোর্ডে পাসের হারে ইংরেজি বিষয়ে খারাপ ফল প্রভাব ফেলেছে। এবার মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষায় পাসের হার বেড়েছে ১০ শতাংশের ওপরে। গত বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলে ছিল নি¤œমুখী।
গতকাল বুধবার প্রকাশিত এইচএসসি আলিম ও সমমানের পরীক্ষা ২০১৯’র ফলে প্রকাশ এসব সূচক চিত্রই পাওয়া গেছে। ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা: দীপু মনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, যদি মূল্যবোধ তৈরি না হয়, শুধু বেশি নাম্বার পেয়ে কী হবে? শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মানবিক গুণে গুণান্বিত হও, চারপাশে তাকাও, মানুষকে ভালোবাসো। নীতি-নৈতিকতা নিয়ে বেড়ে ওঠো, শিক্ষামন্ত্রীর মাধ্যমে দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হও, নিঃস্বার্থ চিত্তে মানব কল্যাণে নিবেদিত হও।
শিক্ষামন্ত্রীর মাধ্যমে গতকাল দুপুরে এবারের এইচএসসি আলিম ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলের যে তথ্য দেয়া হয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, এবার সব বোর্ড মিলে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১৩ লাখ ৩৬ হাজার ৬২৯ জন। এর মধ্যে সাত লাখ ১৩ হাজার ২৮৮ জন ছাত্র এবং ছয় লাখ ৪১ হাজার ৭৩৪ জন ছাত্রী। আটটি বোর্ডের অধীনে এইচএসসিতে ১১ লাখ ৪২ হাজার ১১৭ জন, মাদরাসা বোর্ডের অধীনে আলিম পরীক্ষায় ৮৮ হাজার ৫৩৯ জন এবং এসএসসি ভোকেশনালে (কারিগরি) ১ লাখ ২৪ হাজার ৩২০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। তাদের মধ্যে পাস করেছে ৯ লাখ ৮৮ হাজার ১৭২ জন। পাসের হার ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ। আগের বছর (২০১৮) পাসের হার ছিল ৬৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে, ৪৭ হাজার ২৮৬ জন। গত বছর পেয়েছিল ২৯ হাজার ২৬২ জন। বেড়েছে ১৮ হাজার ২৪ জন। শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা এবার আট হাজার ৯৮৫ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯০৯টি। গত বছর ছিল ৪০০টি। শূন্য পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা এবার ৪১টি। গত বছর ছিল ৫৫টি। এ বছরে কমেছে ১৪টি।
বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানদের কাছে প্রকাশিত ফল সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা নয়া দিগন্তকে বলেছেন, যেসব বোর্ডে শিক্ষার্থীরা মানবিক বিভাগে বেশি ফেল করেছে সেসব বোর্ডের ফল খারাপ হয়েছে। অন্য দিকে কুমিল্লা, রাজশাহী, যশোর ও মাদরাসা বোর্ডে আইসিটি, ইংরেজি ও গণিতে ভালো করায় সামগ্রিক ফলও ভালো হয়েছে। আবার সবচেয়ে কম পাস করা চট্টগ্রাম বোর্ডে পাসের হারে ইংরেজি বিষয়ে খারাপ ফল প্রভাব ফেলেছে। এবার মাদরাসা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষায় পাসের হার বেড়েছে ১০ শতাংশের ওপরে।
গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলের অনুলিপি হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী ও উপমন্ত্রী এবং বোর্ড চেয়ারম্যানরা। এ সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের সচিবদ্বয় এবং মন্ত্রণালয় ও বোর্ড কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ফল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে মন্ত্রী শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা, বিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষার্থী বৃদ্ধি এবং মেয়েদের ভালো ফল করার মতো বিষয়গুলো তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রীও কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। পরে দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত ফল তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী ডা: দীপু মনি।
সবগুলো শিক্ষা বোর্ডে মেধার সর্বোচ্চ সূচক জিপিএ ৫ পাওয়ার ক্ষেত্রে ছেলেরা এগিয়ে রয়েছে। এবারের পরীক্ষায় অংশ নেয় ছাত্র সাত লাখ তিন হাজার এবং ছাত্রী ছয় লাখ ৩৩ হাজার ৬২৯ জন। ছাত্রের মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ২৪ হাজার ৫৭৬ জন। ছাত্রীদের মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ২২ হাজার ৭১০ জন। এবার পরীক্ষায় পাঁচ লাখ তিন হাজার ৮২৮ জন ছাত্র পাস করেছে, যা শতকরা হিসেবে ৭১ দশমিক ৬৭ শতাংশ। আর ছাত্রীদের মধ্যে চার লাখ ৮৪ হাজার ৩৪৪ জন পাস করেছে, যা ৭৬ দশমিক ৪৪ শতাংশ।
আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি পরীক্ষায় এবার গড় পাসের হার ৭১ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ৪১ হাজার ৮০৭ জন। গতবার গড় পাসের হার ছিল ৬৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এইচএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছিল ২৫ হাজার ৫৬২ জন। অন্য দিকে এবার মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের আলিম পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ এবং জিপিএ ৫ পেয়েছে দুই হাজার ২৪৩ জন। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮২ দশমিক ৬২ শতাংশ এবং জিপিএ ৫ পেয়েছে তিন হাজার ২৩৬ জন। এ ছাড়া দেশের বাইরে জেদ্দা, রিয়াদ, আবুধাবি, দুবাই, বাহরাইন, ত্রিপোলি ও দোহা এই আটটি কেন্দ্র থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় পাস করেছে ২৭০ জন শিক্ষার্থী। এ বছর বিদেশি কেন্দ্রে পাসের হার ৯৪ দশমিক ০৭ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে ২৬ জন।
ফল বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, সব সূচকে এগিয়ে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা। পাসের হার ও জিপিএ ৫ প্রাপ্তিতে মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা থেকে অনেক এগিয়ে তারা। এ বছর বিজ্ঞান বিভাগ থেকে দুই লাখ ৬২ হাজার ৯৫২ জন পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছে দুই লাখ ২৫ হাজার ১২ জন। পাসের হার ৮৫ দশমিক ৫৭ শতাংশ। মানবিক বিভাগ থেকে ৫ লাখ ৯৮ হাজার ২৯৪ জন পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছে তিন লাখ ৮৯ হাজার ৪২১ জন। পাসের হার ৬৫ দশমিক ০৯ শতাংশ। আর ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে দুই লাখ ৬৪ হাজার ৮৮০ জন পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছে এক লাখ ৯৪ হাজার ৭১৬ জন। পাসের হার ৭৩ দশমিক ৫১ শতাংশ। একই সাথে জিপিএ ৫ প্রাপ্তির দিক থেকেও এগিয়ে বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা। এই বিভাগ থেকে জিপিএ ৫ পেয়েছে ৩১ হাজার ১৯২ জন। আর মানবিকে চার হাজার ৬২৫ এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে জিপিএ ৫ পেয়েছে তিন হাজার ৯৯০ জন। শতকরা হিসেবে এখানেও সবচেয়ে কম মানবিক বিভাগে।
বেশ কয়েক বছর ধরে পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হলেও এবার প্রশ্ন ফাঁসের কোনো অভিযোগ ছাড়াই উচ্চমাধ্যমিকের পরীক্ষা শেষ হয়। ফল প্রকাশের জন্য নির্ধারিত ৬০ দিন সময়ের মধ্যে ৫৫তম দিনে ফল প্রকাশ করা হয়। এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর শিক্ষার্থীদের আনন্দ-উচ্ছ্বাস করতে করতে দেখা গেছে। দুপুরের পর থেকে কলেজ ও কেন্দ্রগুলোতে ফল পাওয়ার পর সারা দেশে এইচএসসি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবক ও স্বজনদের উল্লসিত দেখা গেছে।
৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড গড় পাসের হার ও জিপিএ ৫
৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে এবার পাসের হার সবচেয়ে বেশি শিক্ষামন্ত্রীর এলাকার কুমিল্লা বোর্ডে। এ বোর্ডে পাস করেছে ৭৭ দশমিক ৭৪ শতাংশ পরীক্ষার্থী। জিপিএ ৫ পেয়েছে দুই হাজার ৩৭৫ জন। আর সবচেয়ে কম পাসের হার শিক্ষা উপমন্ত্রীর এলাকায় চট্টগ্রাম বোর্ডে ৬২ দশমিক ১৯ শতাংশ। অর্থাৎ এ বোর্ডে প্রায় ৪০ শতাংশের বেশি শিক্ষার্থী ফেল করেছে। তবে জিপিএ ৫ পেয়েছে দুই হাজার ৮৬০ জন; যা কুমিল্লা বোর্ডের চেয়ে বেশি। এ ছাড়া ঢাকা বোর্ডে পাস করেছে, ৭১ দশমিক ০৯ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে ১৮ হাজার ১৮৭ জন। রাজশাহী বোর্ডে ৭৬ দশমিক ৩৮ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে ছয় হাজার ৭২৯ জন। যশোর বোর্ডে ৭৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে পাঁচ হাজার ৩১২ জন। সিলেট বোর্ডে ৬৭ দশমিক ০৫ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে এক হাজার ৯৪ জন। এই ৮টি বোর্ডে জিপিএ ৫ পেয়েছে ৪১ হাজার ৮০৭ জন। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞান থেকে পেয়েছে ৩৩ হাজার ১৯২ জন।
মাদরাসা বোর্ডে পাস করেছে ৮৬ হাজার ১৩৮ জনের মধ্যে ৭৬ হাজার ২৮১ জন। পাসের হার ৮৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছে দুই হাজার ২৪৩ জন। কারিগরি বোর্ডে এক লাখ ২৪ হাজার ৩২০ জনের মধ্যে পাস করেছে এক লাখ দুই হাজার ৭১৫ জন। জিপিএ ৫ পেয়েছে তিন হাজার ২৩৬ জন।

এইচএসসি আলিম ও সমমানের পরীক্ষায়
বোর্ডওয়ারী পাসের হার ও জিপিএ ৫ প্রাপ্তি
গড় পাসের হার-২০১৯ ২০১৮ জিপিএ-৫ ২০১৯ ২০১৮ সালে
ঢাকা- ৭১. ০৯% ৬৬.১৩% ১৮,১৮৭ জন ১২,৯৩৮ জন
রাজশাহী - ৭৬ .৩৮% ৬৬.৫১% ৬,৭২৯ জন ৪,১৩৮ জন
কুমিল্লা - ৭৭ .৭৪% ৬৫.৪২% ২,৩৭৫ জন ৯৪৪ জন
যশোর - ৭৫. ৬৫% ৬০.৪০% ৫,৩১২ জন ২,০৮৯ জন
চট্টগ্রাম - ৬২.১৯% ৬২.৭৩% ২,৮৬০ জন ১,৬১৩ জন
বরিশাল - ৭০. ৬৫% ৭০.৫৫ % ১,২০১ জন ৬৭০ জন
সিলেট- ৬৭. ০৫% ৬২.১১% ১,০৯৪ জন ৮৭৩ জন
দিনাজপুর - ৭১.৭৮% ৬০.২১% ৪,০৪৯ জন ২,২৯৭ জন
মাদরাসা - ৮৮. ৫৬% ৭৮.৬৭% ২,২৪৩ জন ১,২৪৪ জন
কারিগরি - ৮২.৬২% ৭৫.৫০% ৩,২৩৬ জন ২,৪৫৬ জন
মোট পাসের হার-৭৩.৯৩% ৬৬.৬৪% ৪৭,২৮৬ জন ২৯,২৬২ জন


আরো সংবাদ

৭৫-এর পরিকল্পনাকারীদের বিচারে জাতীয় কমিশন গঠনের দাবি রাজধানীতে জেএমবির চার সদস্য গ্রেফতার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করা হবে : প্রধানমন্ত্রী মিয়ানমারে ফিরে না গেলে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠানো হবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদ সচিবালয়ের আবাসন সমস্যা দূর করতে আরো ৫০০ ফ্যাট কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র নদে ভেলায় সবজি চাষ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা খাতে বিনিয়োগ করার আহ্বান অবশেষে রোহিঙ্গারা ফিরছেন আজ থেকে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আরো অবনতির আশঙ্কা ১৫ আগস্ট আর ২১ আগস্টের হত্যাকাণ্ড একই সূত্রে গাঁথা : কাদের কাশ্মির নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে পাকিস্তান

সকল




mp3 indir bedava internet