film izle
esans aroma gebze evden eve nakliyat Ezhel Şarkıları indir Entrumpelung wien Installateur Notdienst Wien webtekno bodrum villa kiralama
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রতিশ্রুতি মিয়ানমার রাখেনি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

-

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রতিশ্রুতি মিয়ানমার রাখেনি মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেন বলেছেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য বাংলাদেশের কাছে মিয়ানমার অঙ্গীকারবদ্ধ। কিন্তু প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া এখনো শুরু হয়নি। প্রত্যাবাসন শুরুর জন্য অনুকূল পরিবেশ রাখাইনে তৈরি হয়নি। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের সাথে আগামী মাসে বাংলাদেশ আলোচনায় বসবে। প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে আমরা আশাবাদী।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্রুনাই সফরের ওপর আলোকপাত করে গতকাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী আগামী রোববার তিন দিনের সফরে ব্রুনাই যাচ্ছেন। এ সফরকালে দুই দেশের মধ্যে জ্বালানি, কৃষি, মৎস্য, পশুসম্পদ, যুব ও ক্রীড়া এবং সংস্কৃতিবিষয়ক মোট ছয়টি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হবে। এ ছাড়া কূটনৈতিক ও সরকারি পাসপোর্টধারীদের পারস্পরিক ভিসা অব্যাহতির লক্ষ্যে একটি কূটনৈতিক পত্রবিনিময় হতে পারে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ানের সদস্যরাষ্ট্র হিসেবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ব্রুনাইয়ের সাথে আলোচনা হবে। রোহিঙ্গাদের জন্য রাখাইনে ‘সেইফ জোন’ বা নিরাপদ অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় ব্রুনাইয়ের সহযোগিতা চাওয়া হবে। মিয়ানমারও আসিয়ানের সদস্য রাষ্ট্র।
এক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন কারাবন্দী খালেদা জিয়ার লন্ডনে যাওয়াসংক্রান্ত কোনো তথ্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে নেই। ব্রিটিশ হাইকমিশন থেকে এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কিছু জানানো হয়নি। আমরা কিছু জানি না।
সম্প্রতি কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, প্যারোলে মুক্তি নিয়ে খালেদা জিয়া লন্ডন যেতে পারেন। সম্প্রতি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সুনির্দিষ্ট কারণ দেখিয়ে আবেদন করলে খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্তির বিষয়টি সরকার বিবেচনা করবে। এর প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির আবেদন জানায়নি। চেয়ারপারসন জামিনে মুক্তি পাবে, সেটিই আমরা চাই।
ড. মোমেন বলেন, ব্রুনাই সফরে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে আমি, কৃষিমন্ত্রী এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীরাসহ উচ্চপর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তারা থাকবেন। এ ছাড়া দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীদের সমন্বয়ে গঠিত একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলও প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হবেন।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাইয়েই রাজপরিবারের সাথে শুভেচ্ছাবিনিময় ও সুলতানের সাথে আনুষ্ঠানিক দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। এ ছাড়া তার সম্মানে আয়োজিত রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাই সরকার ও ব্যবসায়ী সংগঠন আয়োজিত বাণিজ্য-বিনিয়োগ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন এবং প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য আয়োজিত মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণ করবেন। এই সফরে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ হাইকমিশনের নির্মিতব্য নতুন চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।
ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ সফর দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দৃঢ়তর করার পাশাপাশি জ্বালানি, বাণিজ্য, বিনিয়োগ, কৃষি, খাদ্য, বিমান যোগাযোগ, মানবসম্পদ উন্নয়ন, পর্যটন ও কারিগরি সহায়তার ক্ষেত্রে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা সম্প্রসারণে বিশেষ অবদান রাখবে। রোহিঙ্গা সমস্যাসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে এ সফর ব্রুনাইসহ আসিয়ান সদস্য দেশগুলোর কার্যকর সমর্থন আদায়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। এ ছাড়াও এ সফর আসিয়ানের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কোন্নয়ন ও সহযোগিতা বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।
বিকেলে ড. মোমেন ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে ‘কূটনৈতিক উত্তরণ দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এতে শিক্ষামন্ত্রী ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. দীপু মনি, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে একটি ‘জেনোসাইড কর্নার’ স্থাপনের ঘোষণা দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

 


আরো সংবাদ




short haircuts for black women short haircuts for women Ümraniye evden eve nakliyat