২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সাফ ফুটবলের সেমিফাইনাল আজ

-

সাফ ফুটবলের সেমিফাইনাল আজ। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকেল ৪টায় প্রথম সেমিফাইনালে লড়বে নেপাল ও মালদ্বীপ। সন্ধ্যে ৭টায় দ্বিতীয় সেমিতে লড়বে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি ভারত ও পাকিস্তান।
বুকে পাথর চাপা দিয়েই সাফের সেমিফাইনাল ম্যাচগুলো দেখবেন বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীরা। যে জায়গায় লাল-সবুজ পতাকা মাথায় বেঁধে মিছিল কিংবা দল বেঁধে আনন্দ উল্লাস করতে করতে স্টেডিয়ামের গ্যালারি সরগম করত বাংলাদেশের দর্শকেরা সেখানে মন খারাপ করে নির্বাক নয়নে দেখতে হবে নেপাল, মালদ্বীপ, ভারত কিংবা পাকিস্তানের উল্লাস। পাশাপাশি কল্পনা করবেন কেন যে, নেপালের বিপক্ষে ফরোয়ার্ডরা গোল পেলেন না, কেন যে গোলরক্ষক সোহেল অমন করে গোলটি খেলেন।
ফুটবল তাই বলে এত নিষ্ঠুর! কথাটা নিয়ে বিতর্ক হতেই পারে। এবারের সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের ফুটবলাররা নিষ্ঠুরতার সাক্ষী। বাংলাদেশ ভুটান ও পাকিস্তানকে হারিয়ে ছয় পয়েন্ট পেয়েও খেলতে পারেনি সেমিতে। আর মালদ্বীপ মাত্র এক পয়েন্ট পেয়েই হাসছে। টস নামক শব্দটি পাল্টে দিয়েছে তাদের মনোবল। ‘এ’ গ্রুপ থেকে দুই ম্যাচ জিতেও সেমি ফাইনালে ওঠা হয়নি বাংলাদেশের। সমান দুটি করে জয় নিয়ে গোল গড়ে এগিয়ে থেকে সেমিতে উঠেছে পাকিস্তান ও নেপাল। অথচ ‘বি’ গ্রুপ থেকে কোনো ম্যাচ না জিতেই সেমিতে উঠেছে মালদ্বীপ।
নেপাল ১-২ পাকিস্তানের কাছে হেরে, ৪-০ গোলে ভুটান ও ২-০ গোলে বাংলাদেশকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে। এই গ্রুপে পাকিস্তান নেপাল ও ভুটানকে হারিয়ে এবং বাংলাদেশের কাছে পরাজিত হয়ে গোল পার্থক্যে গ্রুপ রানার্স আপ হয়ে সেমিতে উঠে। অন্য গ্রুপে ভারত ২-০ শ্রীলঙ্কা ও ২-০ গোলে মালদ্বীপকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিতে উঠে। অপর দিকে এই গ্রুপ থেকে মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট, গোল ব্যবধান, হেড টু হেড সমান হওয়ায় লটারির মাধ্যমে সেমিতে উঠে মালদ্বীপ।
চারটি দলই ফাইনাল খেলতে মরিয়া। গতকাল মাঠের অনুশীলনেও সব দলই ছিল মনোযোগী। মালদ্বীপ কোচ সেগরেট পিটার তো খেলোয়াড়দের দিয়ে পেনাল্টি শট প্র্যাকটিস করিয়ে নিলেন। তার কথায়, ‘হোক না নেপাল শক্তিশালী। আমি মনে করি আমার দল ৯০ মিনিটের পর আরো ৩০ মিনিট খেলার জন্য উপযোগী। ফলাফল নিশ্চিত হতে পারে টাইব্রেকারে। তাই পেনাল্টি শট অনুশীলন করাচ্ছি। আর এরই মাঝে যদি ফলাফল পক্ষে চলে আসে তাহলে তো ভালোই।’
ভারতের সহকারী কোচ স্বল্পভাষী। হ্যাঁ কিংবা না-তেই তার উত্তর সীমাবদ্ধ। নিজেদের ফেবারিট মানছেন না। তারপরও ফাইনালে নেপালকে আশা করছেন। পাকিস্তান এত বছর পর সেমিতে এসে ফেরতে যেতে চাইছে না। সর্বশক্তি উজাড় করে দিতে চাইছে। আর নেপাল তো স্বপ্ন দেখছে শিরোপার। সব মিলিয়ে এক জমজমাট লড়াই হতে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।


আরো সংবাদ