২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

অধরা স্বপ্নের সামনে ক্রোয়েশিয়া

বিশ্বকাপ
চ্যাম্পিয়ন হলে ক্রোয়েশিয়ার জন্য এটিই হবে আন্তর্জাতিক ফুটবলে কোনো বড় ধরনের ট্রফি জয় - সংগৃহীত

রাশিয়ায় বিশ্বকাপের শেষ দিনে আজ শিরোপার জন্য মাঠে নামবে ক্রোয়েশিয়া ও ফ্রান্স। জিতলে ক্রোয়েশিয়ার জন্য এটিই হবে আন্তর্জাতিক ফুটবলে কোনো বড় ধরনের ট্রফি জয়।

আর ফ্রান্সের জন্য এটি অবশ্য নতুন কোনো ঘটনা নয়। গত ছয়টি বিশ্বকাপের মধ্যে তৃতীয়বারের মতো ফাইনালে ওঠলো তারা। জিতলে ২০ বছর পর এটি হবে ফ্রান্সের দ্বিতীয় শিরোপা। এর আগে ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপ জিতেছিল ফ্রান্স।

আর কোচ দিদিয়ের দেশঁমের জন্য এটি তৃতীয় বিশ্বকাপ এবং তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে ট্রফি জেতার স্বপ্ন দেখছেন তিনি।

অন্যদিকে ক্রোয়েশিয়ার কোচ জালাটকো ডালিচ দলটির দায়িত্ব নিয়েছেন মাত্র নয় মাস কিন্তু দল জিতলে তার জন্য এটা হবে জীবনের সেরা অর্জন।

ক্রোয়েশিয়া : স্বপ্ন, স্বপ্ন ও স্বপ্ন

দেশটির জনসংখ্যা মাত্র ৪০ লাখের কিছু বেশি। যদিও এর চেয়ে কম জনসংখ্যা নিয়ে ১৯৩০ সালে শিরোপা জিতেছিল উরুগুয়ে।

ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে ২০তম এই ক্রোয়েশিয়া শিরোপা জিতলে এটিই হবে সবচেয়ে কম র‍্যাঙ্কিং নিয়ে বিশ্বকাপ জেতা।

২০ বছর আগে সেমিফাইনালে ফ্রান্সের সাথে হেরেই স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছিল ক্রোয়েশিয়ার।

আর এবার যখন সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দিলো ডালিচের দল তখন রীতিমত বন্য উৎসবে মেতে উঠেছিল গোটা ক্রোয়েশিয়া।

"ড্রিম, ড্রিম, ড্রিম! ক্রোয়েশিয়া ফাইনালে" -এটাই শিরোনাম করেছিলো স্পোর্টসকি নভসটি পত্রিকা।

আর ডালিচ বলেছিল, "এলিটদের তালিকায় পৌঁছানো হলো।"

এখন আর মাত্র একটি ধাপ...তারপরেই ইতিহাস।

খেলা শেষে আসলে জানা যাবে এ স্বপ্ন পূরণের আনন্দে ভাসছে কি-না লাল, সাদা আর নীল পতাকা।

ফ্রান্সের জন্য ক্ষত প্রশমনের সুযোগ ?

২০১৬ সালে ইউরোতে নিজ দেশেই ফাইনালে উঠেছিল ফ্রান্স কিন্তু হারতে হয়েছিল পর্তুগালের কাছে।

এখনো সেই পরাজয়ের ধাক্কা কাটাতে পারেনি ফ্রান্স।

গণমাধ্যম তাই দেখছে বিশ্বকাপকে সেই ক্ষত প্রশমনের সুবর্ণ সুযোগ হিসেবে।

একটি পত্রিকা লিখেছে, "এখন প্রেক্ষাপট ভিন্ন। খেলোয়াড়রা পরিপক্ব হয়েছে এবং একজন কিলিয়ান এমবাপে আছেন।"

ফরাসি গণমাধ্যম এমন নানাভাবেই বিশ্লেষণ করছে।

একটি পত্রিকা লিখেছে, ক্রোয়েশিয়ার চেয়ে ২৪ ঘণ্টা আগে সেমিফাইনাল খেলেছে ফ্রান্স এবং তারা নির্ধারিত সময়েই জয়লাভ করেছে।

গোল্ডেন বল জিতবে কে?

এবারের বিশ্বকাপকে অনেকেই মনে করেছিলেন দুই সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো আর লিওনেল মেসিই নিয়ন্ত্রণ করবেন।

অথচ তারা দু'জনেই বিদায় নিলেন শেষ ষোলোতে।

আর এর মাধ্যমেই নতুন কারও জন্য গোল্ডেন বল জেতার সুযোগ তৈরি হয়ে যায়।

আজকের ফাইনালে সেটি নির্ধারিত হবে কি-না কে জানে।

যদিও গত ছয়টি টুর্নামেন্টে জয়ী দলের খেলোয়াড়ই পেয়েছিল গোল্ডেন বল।

ক্রোয়েশিয়ার মিডফিল্ডার লুকা মড্রিচ এবার অনেকেরই প্রশংসার তালিকায় রয়েছেন, বিশেষ করে আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে খেলা থেকে। আবার আর্জেন্টিনাকেই ফিরিয়ে দিয়ে নিজের দক্ষতা দেখিয়েছেন এমবাপে। যদিও কারো কারো দৃষ্টিতে আছেন অ্যান্টনি গ্রিজম্যানও। তাদের দু'জনেরই রয়েছেন তিনটি করে গোল।

দু'জনই জানেন ফাইনালের একটি হ্যাট্রিক তাদের নিয়ে যাবে গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে থাকা ইংল্যান্ডের হ্যারি কেইনের গোলসংখ্যার সমান পর্যায়ে।


আরো সংবাদ