২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ব্রাজিলের হেক্সা মিশন

ফ্রান্স-উরুগুয়ে (রাত ৮টা, নিঝনি) ব্রাজিল-বেলজিয়াম (রাত ১২টা, কাজান)
ফুটবল
নেইমার নেইমার বলে গলা ফাটালেও একেক দিন একেকজন জ্বলে উঠছেন। - ছবি : এএফপি

আটটি দলের মাঝে দু’টি দলের স্বপ্ন শেষ হবে আজ। আগামীকাল হবে দু’টি দলের। চার বছর ধরে জিইয়ে রাখা স্বপ্ন বাস্তবায়নে দু’টি দল আজ এগিয়ে থাকবে শিরোপার দিকে। আগামীকাল আরো দু’টি দল উঠবে সেমিফাইনালে। কোয়ার্টার ফাইনালে প্রথম ম্যাচে স্বপ্ন ভাঙাগড়ার ম্যাচে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় নিঝনি নভগোরোদে মুখোমুখি হবে কিলিয়ান এমবাপ্পের ফ্রান্স ও সুয়ারেজ কাভানির উরুগুয়ে। রাত ১২টায় কাজানে লড়বে চির পরিচিত ছন্দের ব্রাজিল ও এবারের গতিময় দল বেলজিয়াম।

দুই হলুদ কার্ডের বদৌলতে আগেই কোয়ার্টার ফাইনাল খেলার স্বপ্ন গুঁড়িয়ে গেছে চার খেলোয়াড়ের। এবার শঙ্কায় থাকবেন নেইমার, কুতিনহো, পল পগবার মতো তারকারা। গায়ের ওপর চেপে গেছে একটি করে হলুদ কার্ড। কোয়ার্টার ফাইনালে আরেকটি হলুদ কার্ডই ভেঙে দিতে পারে সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন। তারকা হারানোর এ শঙ্কায় বেশি ভুগতে হচ্ছে হট ফেবারিট ব্রাজিলকে। তাদের নেইমার ও কুতিনহো ছাড়াও বেলজিয়ামের রয়েছেন কেভিন ডি ব্রুইন, টমাস মুনিয়ের ও ইয়ান ভারটোঙ্গোন। কোয়ার্টারের আরেক ফেবারিট ফ্রান্সেরও চারজন পেয়ে একটি করে হলুদ কার্ড। যাদের মধ্যে অন্যতম পল পগবা, বেঞ্জামিন পাভার্ড, অলিভার জিরু। শেষ আটে ফ্রান্সের প্রতিপ উরুগুয়ে দলে হলুদ কার্ড কেবল একজনের। তিনি হলেন রদ্রিগো বেনটাকুর।

ইংল্যান্ড দলে জর্ডান হেন্ডারসন, হেসে লিংগার্ড, কাইল ওয়াকারসহ চারজন পেয়েছেন হলুদ কার্ড। প্রতিপ সুইডেনে পেয়েছেন ভিক্টর কায়েসন ও আলবিন একদাল। সবচেয়ে বড় ঝুঁকিতে ক্রোয়েশিয়ার আট খেলোয়াড় আর রাশিয়ার পাঁচ খেলোয়াড়। মারিও মানজুকিচ, ইভান রাকিটিচ, আন্তে রেবিচ আর সিমে ভ্রাসালজকোর মধ্যে কেউ একজন ছিটকে পড়লে বিপদে পড়তে পারে ক্রোয়েশিয়া। রাশিয়াও চিন্তায় আছে বড় দুই তারকা আলেজান্ডার গলোভিন আর ইলিয়া কোতপোভকে নিয়ে।

কিলিয়ান এমবাপ্পে ও আন্তোয়ান গ্রিজম্যানকে নিয়ে সাজানো ফ্রান্সের আক্রমণভাগ যেকোনো প্রতিপক্ষের জন্য ‘ভয়ঙ্কর’। অন্য দিকে রয়েছে উরুগুয়ের কাভানি ও সুয়ারেজ। উভয়েই সেরা ষোলোয় নিজেদের প্রমাণ করেছে। এই চার তারকা উভয় দলের ডিফেন্ডারদের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। মজার বিষয় হলো উভয় দলের কোচদ্বয় সেভাবেই পরিকল্পনা এঁটেছেন একে অপরকে রুখার জন্য। তবে একটু বেশি সতর্ক থাকতে চাইছে উরুগুয়ে। মিডফিল্ডার লুকাস তোরেইরা জানালেন, ফ্রান্সের তীব্র আক্রমণভাগকে মোকাবেলায় প্রস্তুত থাকবে দু’বারের সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। চোট পাওয়ায় কাভানির খেলা নিয়ে একটু সংশয়ে আছে উরুগুয়ে।

আর্জেন্টিনার বিপে ৪-৩ গোলে শেষ ষোলোর ম্যাচ জয়ে দারুণ আত্মবিশ্বাসী ফ্রান্স। এমবাপ্পে করেছেন জোড়া গোল, গ্রিয়েজমান করেন প্রথম গোল। দু’জন মিলে এই বিশ্বকাপে করেছেন ৫ গোল। উরুগুয়ের নিশ্ছিদ্র রণভাগে ভাঙন ধরাতে তারাই ভরসা। তবে চার ম্যাচে মাত্র এক গোল খাওয়া উরুগুয়ে প্রস্তুত তাদের আটকে দিতে। এমবাপ্পের জন্য রণভাগে দিয়েগো গোডিন ও হোসে মারিয়া হিমেনেস নতুন হলেও গ্রিয়েজমানের কাব সতীর্থ তারা। অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদে খেলার সুবাদে একে অপরের পরিচিত। এখন শত্রু হলেও একে অপরের কৌশল সম্বন্ধে সম্যক ধারণা রয়েছে। তোরেইরার কথায়, ‘ফ্রান্সের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন খেলোয়াড় আছে, বিশেষ করে তাদের ফরোয়ার্ডরা খুবই দ্রুত ও বুদ্ধিমান। আমাদেরও রয়েছে সুয়ারেজ ও কাভানি। চেষ্টা থাকবে তাদেরও রক্ষণভাগ ভেঙে দিয়ে কাঙ্ক্ষিত ফলাফলে।

দ্বিতীয় ম্যাচটিতে ব্রাজিল একটু নির্ভার মার্সেলোকে পেয়ে। গতদিন প্র্যাকটিসও করেছেন তিনি। দানিলো আগেই ফিট। প্র্যাকটিসে ব্রাজিল দলকে নির্ভার মনে হয়েছে সবার কাছে। হওয়ারই কথা। পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বলে কথা। এবার তাদের হেক্সা মিশন। সেভাবেই দলকে গুছিয়ে নিচ্ছেন কোচ তিতে। প্রতিটি বিভাগে সেরা খেলোয়াড় ফিট করেছেন। নেইমার নেইমার বলে গলা ফাটালেও একেক দিন একেকজন জ্বলে উঠছেন। এটিই ব্রাজিলের বড় পাওয়া।

মেক্সিকোর বিপক্ষে উইলিয়ান যে খেলা খেললেন এমনটি হলে বেলজিয়াম পাত্তা পাওয়ার কথা নয়। তার পরও বিশ্বকাপ বলে কথা। বেলজিয়াম মাঠে পারফরম্যান্স দেখিয়েই এতদূর এসেছে। সেমির স্বপ্নে বিভোর লুকাকুরা সহজে ছেড়ে দেয়ার পাত্র নয়। ইনজুরি সময়ে গোল করে দলকে জিতিয়ে নেয়ার রেকর্ড রয়েছে তাদের। দল হিসেবে সুসংগঠিত বেলজিয়ামে পিছলে যেতে পারে ব্রাজিল। তাই সতর্কতায়ই মাঠে নামবে দল দু’টি।


আরো সংবাদ