১৭ নভেম্বর ২০১৮

'মিসরকে একটি জয় উপহার দিতে চাই'

মিসর, বিশ্বকাপ
হাদারিকে জড়িয়ে ধরে জয়োল্লাস করছেন সালাহ - সংগৃহীত

বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম দুটি ম্যাচেই সৌদি আরব ও মিসর পরাজয়ের তিক্ত স্বাদ পেয়ে ইতোমধ্যেই গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে। সে কারণেই নিয়ম রক্ষার শেষ ম্যাচটিতে আজ যখন দুটি দল ভলগোগ্রাদে একে অপরের মুখোমুখি হবে তখন দুই দলই অভিন্ন লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে, অন্তত একটি জয়ের স্বাদ নিয়ে দেশে ফেরার।

কাঁধের ইনজুরি কাটিয়ে দলের তারকা ফরোয়ার্ড মোহামেদ সালাহ দলে ফিরলেও তা স্বাগতিক রাশিয়ার বিপক্ষে মঙ্গলবার সেন্ট পিটার্সবার্গে ৩-১ গোলে মিসরের পরাজয়ে কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি। যদিও ম্যাচটিতে পেনাল্টি থেকে সান্ত্বনাসূচক গোলটি করেছিলেন লিভারপুলের এই তারকা।

এর আগে উরুগুয়ের বিপক্ষে ১-০ গোলের পরাজয় দিয়ে বিশ্বকাপে ব্যর্থ মিশন শুরু করেছিল মিসর। একই ব্যবধানে দ্বিতীয় ম্যাচে লা সেলেস্তের বিপক্ষে পরাজিত সৌদি আরব বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে রাশিয়ার কাছে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছিল। যে কারণে মিসর-সৌদি আরবের ম্যাচটি অনেকটাই মর্যাদার লড়াইয়ে পরিণত হয়েছে।

কোচ হেক্টর কুপারের বিবেচনায় অধিনায়ক ও অভিজ্ঞ গোলরক্ষক এসাম এল হাদারি বেঞ্চে ছিলেন, তার পরিবর্তে প্রথম গোলরক্ষক হিসেবে মাঠে নেমেছিলেন মোহাম্মেদ এল-শিনাভি। তবে বদলি বেঞ্চ থেকে সৌদির বিপক্ষে এল হাদারির খেলার সম্ভাবনাই বেশি। আর তাই যদি হয় তবে ৪৫ বছর বয়সে মাঠে নেমে বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে ম্যাচ খেলার রেকর্ড গড়বেন এল হাদারি। আজ অবশ্য মাঠে নামার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। বলেন, ‘আমি দেশের হয়ে কাজ করে যাব, খেলতে পারি আর না পারি। সৌদি আরবের বিপক্ষে ম্যাচটি আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জয়ের জন্য আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করবো। এর মাধ্যমে মিসরকে এবারের বিশ্বকাপে প্রথম জয় উপহার দিতে চাই।’

সালাহ দলে ফিরলেও রাশিয়ার বিপক্ষে তার শতভাগ ফিটনেস নিয়ে প্রশ্ন ছিল। তারপরেও হুয়ান এন্টোনিও পিজ্জির দলের বিপক্ষে ফেবারিট হিসেবেই মাঠে নামবে মিসর। পিজ্জির অধীনে চিলি কোপা আমেরিকা শতবর্ষী আসরের শিরোপা জেতা ছাড়া গত বছর কনফেডারেশন্স কাপের ফাইনালে উঠেছিল। কিন্তু কনমেবল বাছাইপর্বে চিলির বিদায়ে তার বিদায়ও নিশ্চিত হয়।

৫০ বছর বয়সী এই আর্জেন্টাইন কোচ বিশ্বাস করেন রাশিয়া বিশ্বকাপের ব্যর্থতার পরেও তার দলের ভবিষ্যতে এগিয়ে যাওয়ার সব ধরনের সম্ভাবনা রয়েছে। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি এখনো বিশ্বাসী সৌদি আরবের মানুষ এই দলটিকে নিয়ে একদিন গর্ব করবে। দূর্ভাগ্যবশত রাশিয়ায় আমরা কিছু করে দেখাতে পারিনি। তবে আমি আশাবাদী। বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিলেও আশা করছি পরের ম্যাচে প্রত্যাশা অনুযায়ী আমরা খেলতে পারবো।

পিজ্জির স্কোয়াডে ২১ বছর বয়সী মিডফিল্ডার আব্দুল্লাহ আল খাইবারিকে নিয়ে মিসরকে আলাদা করে ভাবতেই হচ্ছে। যদিও এ পর্যন্ত নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। কিন্তু সুযোগ পেলে তা কাজে লাগানোর পূর্ণ ক্ষমতা রাখেন এই তরুণ তুর্কি।

এখন পর্যন্ত রাশিয়া বিশ্বকাপে একটিও গোল করতে পারেনি সৌদি আরব। এর আগে ২০১০ সালে হন্ডুরাস ও আলজেরিয়া এই ব্যর্থতা নিয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছিল। এই নিয়ে টানা ১২টি বিশ্বকাপের ম্যাচে সৌদি আরব জয়বিহীন আছে। আর শেষ চারটি ম্যাচে তারা কোনো গোল না করেই পরাজয়ের মুখ দেখেছে।

 

আরো পড়ুন : মিসরের হয়ে আর খেলবেন না সালাহ!

আর খেলবেন না মিসরের হয়ে। এমনটাই জানিয়েছেন মোহাম্মদ সালাহ। তার ঘনিষ্ঠ একজন সিএনএনকে এ কথা জানিয়েছেন। চেচনিয়ার নাগরিকত্ব নিয়ে উঠা বিতর্কের জেরেই সালাহ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে দাবি করেছেন তিনি।

বিশ্বকাপের অনুশীলনের জন্য চেচনিয়া প্রজাতন্ত্রের রাজধানী গ্রোজনিতে বেইস ক্যাম্প করেছিল মিসর। দুই ম্যাচে হেরে ইতোমধ্যেই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে তারা। তাই শুক্রবার সালাহদের বিদায়ী সংবর্ধনা দিয়েছে চেচনিয়ার নেতা রমজান কাদিরভ। এরপরই সালাহকে নাগরিকত্ব দেয়ার ঘোষণা দেন কাদিরভ।

সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে কাদিরভ জানান, ‘মোহাম্মদ সালাহ এখন চেচনিয়ার একজন সম্মানিত নাগরিক। আমি সালাহকে এই সম্মান জানিয়ে ফরমান জারি করছি। এবং সালাহকে এর একটি কপি পাঠিয়েছি। এটি উদযাপনের জন্য আমি রাতে মিসরের পুরো দলের সম্মানে নৈশভোজের আয়োজন করেছি।’

রাশিয়ার একটি বার্তা সংস্থার ভিডিওতে দেখা গেছে, নৈশভোজে এ ঘোষণার পর সালাহকে চেচনিয়ার পতাকাযুক্ত একটি মর্যাদাপূর্ণ ব্যাজও পরিয়ে দিচ্ছেন কাদিরভ।

এই ঘটনার পর সমালোচনার মুখে পড়েন সালাহ। কিন্তু তিনি কোনো রাজনীতির অংশ হতে চান না।

মিসরের ফুটবল ফেডারেশন সিএনএনকে পাঠানো এক ই-মেইলে জানিয়েছে, 'তারা খুবই আশ্চর্য হয়েছেন এই কথা শুনে যে সালাহ মিসরের জাতীয় দল থেকে বিদায় নিতে চাচ্ছেন। অথচ এ ব্যাপারে তিনি তাদের জানাননি।'

বিবৃতিতে সংস্থাটি আরো জানায়, 'সালাহ কোনো সিদ্ধান্ত নিলে আমাদের জানান। আমরা পুরোদিন সালাহর সাথে ছিলাম। কিন্তু তিনি আমাদের কারো সাথে এই ব্যাপারে কোনো কথা বলেননি।'

তারা জানায়, 'আমরা এখানে খেলতে এসেছি। ফিফার নীতিমালা অনুযায়ী, আমরা কোনো রাজনৈতিক বিষয়ে আলোচনা করি না। আর যদি তেমন কিছু নিয়ে কথা বলতে হয়, তবে সেটা সরাসরি ফিফার সাথেই বলা উচিত।'

এদিকে আজ শেষ ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে মাঠে নামবে মিসর। জিতলে গ্রুপে তৃতীয় স্থান নিয়ে সম্মানের সাথে বিদায় নিতে পারবে তারা। সেই সম্মান রাখতেই আজ লড়বে সালাহরা।


আরো সংবাদ