১৯ নভেম্বর ২০১৮

নক আউটে যাচ্ছে কারা? আর্জেন্টিনার মতো অনিশ্চিত কাদের ভাগ্য?

মেসি, আর্জেন্টিনা, বিশ্বকাপ
লিওনেল মেসি - সংগৃহীত

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ম্যাচ প্রায় শেষ পর্যায়ে। পরের রাউন্ডে এখনো অনিশ্চিত কয়েকটি বড় দলের। আবার খানিকটা অপ্রত্যাশিতভাবে নক আউটে চলে গেছে রাশিয়া, লড়াইয়ে এগিয়ে রয়েছে বেশ কয়েকটি ছোট দলই।

এক নজরে দেখে নেয়া যাক কোন গ্রুপ থেকে কারা যাচ্ছে পরের রাউন্ডে, এখনও ঝুলে আছে কাদের ভাগ্য।

গ্রুপ-এ

কারা রয়েছে? রাশিয়া, উরুগুয়ে, মিসর, সৌদি আরব

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? রাশিয়া, উরুগুয়ে

ছিটকে গেছে কারা? মিসর, সৌদি আরব

সম্ভাবনা কাদের? গ্রুপ-এ-তে শুধু প্রথম স্থান দখল নিয়ে এখন লড়াই হবে। রাশিয়া-উরুগুয়ে যে জিতবে সেই গ্রুপে শীর্ষ স্থান পাবে।


গ্রুপ-বি

কারা রয়েছে? স্পেন, পর্তুগাল, ইরান, মরক্কো

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? কোনো দল এখনও নক-আউটে নিশ্চিত নয়

ছিটকে গেছে কারা? মরক্কো

সম্ভাবনা কাদের? এখনও লড়াইয়ে স্পেন, পর্তুগাল, ইরান। পরের রাউন্ডে যাওয়া নিশ্চিত করতে নিজেদের শেষ ম্যাচে কমপক্ষে ড্র করতে হবে স্পেন-পর্তুগালকে। তবে, শেষ ম্যাচে হারলেও সম্ভাবনা থাকছে দুই দলেরই, সেক্ষেত্রে দেখতে হবে গোলপার্থক্য।

গ্রুপ-সি

কারা রয়েছে? ফ্রান্স, ডেনমার্ক, অস্ট্রেলিয়া, পেরু

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? ফ্রান্স

ছিটকে গেছে কারা? পেরু

সম্ভাবনা কাদের? দ্বিতীয় স্থানের লড়াইয়ে ডেনমার্ক ও অস্ট্রেলিয়া, শেষ ম্যাচে ড্র করলেও নিশ্চিতভাবে পরের রাউন্ডে চলে যাবে ডেনমার্ক।


গ্রুপ-ডি

কারা রয়েছে? ক্রোয়েশিয়া, নাইজেরিয়া, আইসল্যান্ড, আর্জেন্টিনা

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? ক্রোয়েশিয়া

ছিটকে গেছে কারা? সব দলই লড়াইয়ে রয়েছে

সম্ভাবনা কাদের? আর্জেন্টিনা, আইসল্যান্ড, নাইজেরিয়া তিন দলই লড়াইয়ে। পরের রাউন্ডে যেতে হলে জিততেই হবে আর্জেন্টিনাকে, সেই সাথে তাকিয়ে থাকতে হবে আইসল্যান্ডের ফলাফলের দিকে। আইসল্যান্ড ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে বড় ব্যবধানে জিতলে পরের রাউন্ডে যেতে পারবে না মেসিরা।

গ্রুপ-ই

কারা রয়েছে? ব্রাজিল, সুইজারল্যান্ড, সার্বিয়া, কোস্টারিকা

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? এখনও নিশ্চিত নয় কোনো দল

ছিটকে গেছে কারা? কোস্টারিকা

সম্ভাবনা কাদের? মূল লড়াই তিনটি দলের। সার্বিয়া, সুইজারল্যান্ড, ব্রাজিল। শেষ ম্যাচ ড্র করলেও পরের রাউন্ড নিশ্চিত ব্রাজিল, হারলেও সম্ভাবনা থাকছে গোলপার্থক্যের বিচারে।

গ্রুপ-এফ

কারা রয়েছে? মেক্সিকো, জার্মানি, সুইডেন, দক্ষিণ কোরিয়া

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? কোনো দল এখনও নিশ্চিত নয়

ছিটকে গেছে কারা? দক্ষিণ কোরিয়া

সম্ভাবনা কাদের? জার্মানি, সুইডেন, মেক্সিকো তিন দলই লড়াইয়ে। পরের রাউন্ডে যেতে হলে জিততেই হবে জার্মানিকে, তবে ড্র করলেও সম্ভাবনা থাকছে। সেক্ষেত্রে তাকিয়ে থাকতে হবে সুইডেন ম্যাচের ফলাফলের দিকে। অন্যদিকে, মেক্সিকো শেষ ম্যাচ ড্র করলেই নিশ্চিত, হারলেও সম্ভাবনা থাকছে গোলপার্থক্যের বিচারে।

গ্রুপ-জি

কারা রয়েছে? বেলজিয়াম, ইংল্যান্ড, পানামা, তিউনিসিয়া

পরের রাউন্ডে গেছে কারা? বেলজিয়াম, ইংল্যান্ড

ছিটকে গেছে কারা? তিউনিসিয়া, পানামা

সম্ভাবনা কাদের? গ্রুপ-জি-তে এখন শুধু প্রথম স্থান দখল নিয়ে লড়াই। ইংল্যান্ড-বেলজিয়াম যে জিতবে সেই গ্রুপে শীর্ষ স্থান পাবে।


গ্রুপ-এইচ

কারা রয়েছে? জাপান, সেনেগাল, পোল্যান্ড, কলম্বিয়া

পরের রাউন্ডে কারা গেছে? কোনো দল এখনও নিশ্চিত নয়

ছিটকে গেছে কারা? পোল্যান্ড

সম্ভাবনা কাদের? জাপান, সেনেগাল, কলম্বিয়া তিনটি দলই লড়াইয়ে টিকে আছে। জাপান পোল্যান্ডের সাথে ড্র করলেই চলে যাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে। আর সেনেগাল কলম্বিয়ার মধ্যে যারা জিতবে তারা যাবে পরের রাউন্ডে।

 

আরো পড়ুন : ক্রুসের গোলে বেঁচে থাকল জার্মানির আশা

১-১ সমতা নিয়ে নির্ধারিত ৯০ মিনিটে শেষ করল জার্মানি ও সুইডেন। খেলা গড়ালো ইনজুরি সময়ে। ৫ মিনিট। ইনজুরির সময়ের পঞ্চম মিনিটে ফ্রি কিক থেকে দুর্দান্ত এক শটে গোল করে জার্মানিকে জয় এনে দেন মিডফিল্ডার টনি ক্রুস। ২-১ গোলে ম্যাচ জিতে রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপে শেষ ষোলোতে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখল বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। আশা বেঁচে আছে সুইডেনেরও। কারণ, দুই খেলায় সমান ৩ করে পয়েন্ট জার্মানি ও সুইডেনের। ৬ পয়েন্ট নিয়ে আগেভাগেই শেষ ষোলোতে পা দিয়ে রেখেছে মেক্সিকো। তাই গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচটি উভয় দলের জন্যই বাঁচা-মরার লড়াই। আগামী ২৭ জুন জার্মানির প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া। যারা প্রথম দুই ম্যাচ হেরে ইতোমধ্যে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছে। একই দিন সুইডেনের প্রতিপক্ষ মেক্সিকো।

মেক্সিকোর কাছে ১-০ গোলে হেরে এবারের আসরে যাত্রা শুরু করে জার্মানি। তাই গ্রুপ পর্বে গত রাতের ম্যাচকে ফাইনাল ভেবেই সোচিতে সুইডেনের বিপক্ষে খেলতে নামে জার্মানরা। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে ছিল দুই দল।

শুরু থেকেই গোলের ভালো সুযোগ পায় দুই দল। ৩ মিনিটে গোল পেয়েই গিয়েছিল জার্মানি। সুইডেনের গোলবারের ডান দিক দিয়ে আক্রমণ রচনা করে হেডের সহায়তায় মিডফিল্ডার জুলিয়ান ড্রাক্সলারকে বল দিয়েছিলেন স্ট্রাইকার টিমো ওয়ার্নার। বল পেয়ে সুইডেনের গোলমুখে শটও নিয়েছিলেন ড্রাক্সলার। কিন্তু সুইডেনের গোলরক্ষক রবিন ওলসেনের দৃঢ়তায় গোলের স্বাদ নিতে পারেনি জার্মানি।
৫ মিনিট পর পাল্টা আক্রমণ করে সুইডেন। কিন্তু জার্মান রক্ষণভাগের দৃঢ়তায় সেটি নসাৎ হয়ে যায়। এরপর ১২ মিনিটে গোলের ভালো সুযোগ সৃষ্টি করে সুইডেন। কাউন্টার অ্যাটাকে মধ্যমাঠ থেকে বল নিয়ে একাই জার্মানির ডিফেন্স ভেঙে বিপৎসীমানায় ঢুকে পড়েন স্ট্রাইকার মার্কোস বার্গ। কিন্তু বলে শট নেয়ার আগেই বার্গকে রুখে দেন জার্মানির ডিফেন্ডার জেরোমে বোয়াটেং ও গোলরক্ষক ম্যানুয়েল নয়্যার। তাই নিশ্চিত গোল থেকে বঞ্চিত হয় সুইডেন।

তবে ৩২ মিনিটে সুইডেনকে আর রুখতে পারেনি জার্মানি। ঠিকই গোল আদায় করে নেয় সুইডেন। মধ্যমাঠ থেকে বল নিয়ে কিছুটা সামনে এগিয়ে বক্সের কিছুটা বাইরে থেকে স্ট্রাইকার ওলা টোইভোনেনের উদ্দেশে বাড়িয়ে দেন ভিক্টর ক্লাসেন। ক্লাসেনের ক্রসটি বুক দিয়ে রিসিভ করে বল নিচে নামিয়ে জার্মানির গোলরক্ষক নয়্যারের মাথার ওপর দিয়ে আলতো ছোঁয়ায় বলকে জালে পাঠিয়ে দেন টোইভোনেন (১-০)।
পিছিয়ে পড়েও দমে যায়নি জোয়াকিম লোর শিষ্যরা। মধ্য মাঠ থেকে আক্রমণ রচনা করে সুইডেনকে কোণঠাসা করে ফেলে তারা।

কোণঠাসা হয়েও জার্মানির কাছে হার মানেনি সুইডেনের ডিফেন্ডারেরা। ফলে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই ম্যাচের বিরতিতে যায় সুইডেন।
দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে ফিরেই নিজেদের পরিকল্পনা পাল্টে ফেলে জার্মানি। ছোট ছোট পাসে প্রতিপক্ষের সীমানায় এগিয়ে দ্রুতই আক্রমণে যায় তারা। ফলে সাফল্যের মুখ দেখে জার্মানরা। ৪৮ মিনিটে স্ট্রাইকার মারিয়ো গোমেজ মাইনাস থেকে বল পেয়ে গোল করে দলের মুখে হাসি ফোটান মার্কো রিউস। ম্যাচে ১-১ সমতা আনে জার্মানি।

সমতা আসার পর আক্রমণের ধার আরো বেড়ে যায় জার্মানি ও সুইডেনের। দুই দলের প্রায় ১০-১২টি নিশ্চিত গোল আটকে গেছে ডিফেন্ডার ও গোলরক্ষকদের দৃঢ়তায় এবং ভাগ্য সাথে না থাকায়। কারণ জার্মানির ক্রসের একটি শট গোলবারে লেগে ফিরেও আসে। ফলে ড্রয়ের স্বাদ নিতে যাচ্ছিল ম্যাচটি। নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষ হওয়ার পর ম্যাচের স্কোর লাইন ১-১।

নির্ধারিত সময় শেষে ইনজুরি সময়ে আরো পাঁচটি গোলের সুযোগ পায় জার্মানি ও সুইডেন। ইনজুরি সময়ের প্রথম ৪ মিনিটও ছিল তীব্র উত্তেজনাপূর্ণ। কেউই কাউকে ছাড় দিতে রাজি নয়। এমন সময় ইনজুরি সময়ের শেষ মিনিটে সুইডেনের সীমানায় ডান দিকে বক্সের সামান্য বাইরে ফ্রি কিক পায় জার্মানি।

ফ্রি কিক থেকে ডান পায়ের দুর্দান্ত শটে গোল আদায় করে নেন ক্রুস। আর এই গোলে এবারের বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে প্রথম জয়ের স্বাদ নেয় জার্মানি। সেই সাথে শেষ ষোলোতে খেলার আশা বেঁচে থাকে চারবারের চ্যাম্পিয়নদের।


আরো সংবাদ