১৬ আগস্ট ২০১৮

গোল্ডেন বুট : কারা আছেন এই লড়াইয়ে

বিশ্বকাপ, রাশিয়া, গোল্ডেন বুট
রাশিয়া বিশ্বকাপের গোল্ডেন বুট - সংগৃহীত

বাকি মাত্র একদিন। শেষ মুহূর্তের অপেক্ষায় রাশান বিশ্বকাপের ফুটবলীয় শ্রেষ্ঠত্ব দখলের ৩২ দলীয় লড়াই। অংশগ্রহণকারী দলগুলোর বিশ্বচ্যাম্পিয়নের মুকুট জয়ের স্বপ্নপূরণের টুর্নামেন্টে খেলোয়াড়দের ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের স্বীকৃতি অর্জনের সুযোগও রয়েছে। বিউটিফুল গেম ফুটবলের ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ বিশ্বকাপের ২১তম রাশান আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতার অ্যাওয়ার্ড গোল্ডেন বুট জেতার রেসের ফেবারিট তিন ফুটবলারকে নিয়েই এই প্রতিবেদন :

টমাস মুলার
‘বল বয়’ থেকে রাতারাতিই বিশ্বকাপের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টমাস মুলার। প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে যায় তার ২০১০ সালের আফ্রিকান আসরের মাঠের পারফরম্যান্স। সর্বোচ্চ গোলের রেসে ফেবারিটদের অবাক করে জিতে নেন গোল্ডেন বুট। আসছে রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রস্তুতিও দারুণ হয়েছে বায়ার্ন মিউনিখের ‘ফলস নাইন’ মুলারের। সদ্য-সমাপ্ত মওসুমে নিজে করেছেন ১৬ গোল। ক্লাব ফুটবলে আক্রমণভাগের সতীর্থদের সহায়তা করেন আরো ১৬ গোল আদায়ে। ইউরোপীয় জোন থেকে রাশান মেগা আসরের বাছাই পর্বে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানির অপরাজিত থাকায় ‘এক্স ফ্যাক্টর’ ভূমিকা পালন করেছে মুলারের পারফরম্যান্স। দলটির পক্ষে সর্বোচ্চ ৫ গোলে ফিফার ২১তম মেগা আসরের প্রেস্টিজিয়াস অ্যাওয়ার্ড ‘গোল্ডেন বুট’ জেতার যোগ্য দাবিদার হিসেবে তিনি মাঠের ফুটবলের সূচনা করবেন।

নেইমার
রাশান বিশ্বকাপের হট ফেবারিট ব্রাজিল। লাতিন জোনের বাছাই পর্বের দুর্দান্ত নৈপুণ্যের পর ২০১৮ সালের মূল আসরে প্রস্তুতি রেসেও পারফেক্ট সমাপ্তি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। প্রায় তিন মাস ইনজুরির ধাক্কা সামলে ফুটবলে প্রত্যাবর্তনেই শিরোনামে নেইমার। লম্বা সময় মাঠের বাইরে থাকার প্রভাবে বিশ্বকাপের মূল লড়াইয়ের আগে তার পুরোপুরি ফিটনেস পুনরুদ্ধার নিয়ে শঙ্কাও কেটে গেছে। মূলত পরপর দুই প্রস্তুতি ম্যাচে নেইমারের গোলোৎসব রাশান বিশ্বকাপ জেতার হটসিটে বসিয়ে দিয়েছে ব্রাজিলকে।

বাছাই পর্বে লাতিন জায়ান্ট ব্রাজিলের চমৎকার নৈপুণ্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন সাবেক বার্সেলোনা স্টারলেট নেইমার। ইনজুরির কারণে ২০১৪ সালের হোম ভেনুর বিশ্বকাপের ব্রাজিল-জার্মানি সেমিফাইনালের দর্শক সুপারস্টার ২১তম টুর্নামেন্টের গোল্ডেন বুট জেতার রেসের শীর্ষ তিনে জায়গা পেলেন। বাছাইপর্বে ছয় গোল করা নেইমারের ব্রাজিলের শেষ দুই প্রস্তুতি ম্যাচে গোল করার ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখার প্রত্যয়ে শুরু করবেন রাশান বিশ্বকাপ। ইনজুরির কারণে সর্বশেষ ক্লাব মওসুমের প্রায় অর্ধেক সময় মাঠের বাইরে কাটানোর পরও প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের জার্সিতে ফ্রেঞ্চ ক্যারিয়ারের প্রথম বছরে করেন ২৭ গোল।

লিওনেল মেসি
বিশ্বকাপের আদর্শ প্রস্তুতির মিশনে সফল বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি। তার একক নৈপুণ্যে নেতৃত্ব দিয়েছেন কাতালুনিয়ার দলটির লা লিগার শিরোপা পুনরুদ্ধারে। বার্সার আক্রমণভাগের কার্বনকপি পারফরম্যান্স আর্জেন্টিনার জার্সিতে রূপান্তরে সক্ষমতা রাশান বিশ্বকাপে অন্য রকম মেসির উপস্থিতি একপ্রকার নিশ্চিত। ব্রাজিল বিশ্বকাপের গোল্ডেন বল জয়ী লিটল জিনিয়াসও থাকছেন রাশান আসরের গোল্ডেন বুটের রেসে।

লাতিন জোন থেকে আর্জেন্টিনার ২১তম বিশ্বকাপের অংশগ্রহণে ‘এক্স ফ্যাক্টর’ ভূমিকায় মেসির বল পায়ের ম্যাজিক। ১০ খেলায় তার ৭ গোল রক্ষা রয়েছে দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের রাশান টুর্নামেন্ট মিসের লজ্জা হজম থেকে। বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচে ইকুয়েডর সফরে মেসির বীরোচিত হ্যাটট্রিকের কল্যাণেই ২০১৮ সালের বিশ্বকাপের মঞ্চের পতাকা তালিকায় উপস্থিতি আর্জেন্টাইনদের। সদ্য সমাপ্ত ক্লাব মওসুমে বার্সার ডাবল জয়ে তার বল পায়ের নৈপুণ্য পার্থক্য গড়ে দেয় প্রতিপক্ষের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায়। রাশান টুর্নামেন্টের গোল্ডেন বুট জেতার লড়াইয়ের উপস্থিতি নিশ্চিত করার প্রস্তুতি বার্সার জার্সিতে ৫৪ খেলায় ৪৫ গোলেই সেরে নেন আর্জেন্টাইন লিটল জিনিয়াস!

 

আরো পড়ুন : কাঁদলেন নেইমার

নেইমার আলাদা। নেইমার অনবদ্য। সাধারণত ইনজুরির পর খেলোয়াড়দের মোটামুটি অনেকটা সময় লাগে নিজেকে পুরোদমে ফিরে পেতে। এই জায়গাটাতেও নেইমার যেন অন্য সবার চেয়ে আলাদা। বছরের শুরুতে ফ্রেঞ্চ লিগে মার্সেইয়ের বিপক্ষে ইনজুরিতে পড়ে প্রায় তিন মাস মাঠের বাইরে ছিলেন পিএসজি তারকা। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপ প্রস্তুতি ম্যাচ দিয়ে আবার মাঠে ফিরলেন পুরনো ছন্দে। অস্ট্রিয়ার বিপক্ষেও নেইমারের গোল। সেই নেইমারকেই কাঁদাল শৈশবস্মৃতি।

শৈশবের স্মৃতিতে কে না ভেসে থাকতে চায়। পুরনো সেই স্মৃতি আবেগে ভাসিয়ে দেয় যে কাউকে। ব্রাজিলীয় তারকা নেইমারও ব্যতিক্রম কেউ নন। তিনিও রক্তমাংসে গড়া মানুষ। ছোটবেলার স্মৃতিতে ফিরে গিয়ে নয়নজলে ভেসেছেন ব্রাজিলিয়ান সুপার স্টার। নেইমার এখন রাশিয়ায় থাকলেও দেশ ছাড়ার আগে একটি টিভি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন। নেইমারের জীবন স্মৃতির ওপর গড়া ওই অনুষ্ঠানে তার পুরনো স্মৃতিকে তাজা করতে পুরনো বাড়ির আদল দেয়া হয়েছিল মঞ্চটিকে। সাও পাওলোর উপকূলে গড়া তাদের প্রথম ঘরটি ছিল সান ভিসেন্তেতে। ঠিক তার মতো করে সাজানো হয় পুরো মঞ্চ। হুবহু মিলে যাওয়ায় পুরো আবহ নেইমারকে ফিরিয়ে নিয়ে গিয়েছিল ছোটবেলায়। দরজা খুলে ঢুকতেই নেইমারের স্মৃতিতে ভাসতে থাকে অতীত। পরিচিত আবহে স্মৃতিগুলোকে তরতাজা দেখতে থাকেন নেইমার। তার মনে হচ্ছিল এই তো সেই কাপড়, ট্রফি-কণ্ঠ রুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল এমন আকস্মিক উপস্থাপনায়। শেষ পর্যন্ত আবেগের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে অশ্রুধারায়। কিছুক্ষণ পর নেইমারের বোন রাফায়েলা, বান্ধবী ব্রুনা মার্কুইজিন ঘরে ঢুকলে সম্বিত ফেরে নেইমারের। 
অনুষ্ঠানের বাইরে এখন আবহ বিশ্বকাপের।

ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে কামব্যাক ম্যাচে কোচ তিতে দ্বিতীয়ার্ধ্বে মাঠে নামান নেইমারকে। নিজের প্রত্যাবর্তনটা দারুণ এক গোলেই স্মরণীয় করে রাখেন এই ফরোয়ার্ড। অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে তো খেলেছেন একেবারে শুরু থেকে। প্রতিপক্ষের তিন ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে গোলরক্ষকের পায়ের নিচ দিয়ে করেছেন দর্শনীয় এক গোল। তাতেই ব্রাজিল কোচ তিতের কণ্ঠে মুগ্ধতা, ‘আসলে আমি জানি না ঠিক কোথায় সে (নেইমার) থামবে। খেলার মাঠে ওর স্কিল আর সৃজনশীলতা অনন্য পর্যায়ের। আর উইং ধরে যখন সে এগোয়, তখন যেন আরো বেশি অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠে। নেইমার প্রত্যাশার চেয়ে ভালো খেলেছে। আমি এর চেয়ে কম আশা করেছিলাম। কারণ এটা একটা প্রক্রিয়া। সে খুবই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে আছে। ধীরে ধীরে সে নিজের লেভেলে পৌঁছাবে।’

তবে সেরা একাদশে এই দলটিই খেলবে না পরিবর্তন হবে, সে ব্যাপারে কিছুই জানাননি তিতে। ১৭ জুন রোস্তভ এরেনাতে জায়ান্ট কিলার খ্যাত সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে নিজেদের বিশ্বকাপ শুরু করবে সেলেকাওরা। তিতের কথায়, ‘ম্যাচ শুরুর আগের দিনই ঠিক করা হবে কে কে সেরা একাদশে থাকবে। এখনই কিছু জানানো যাচ্ছে না।’


আরো সংবাদ