১৯ জুন ২০১৮

মেসিদের জন্য পাগলামি

মেসিদের জন্য পাগলামি - নয়া দিগন্ত

মস্কোর শহরের ৬০ কিলোমিটার দক্ষিনে ব্রোনিৎসা শহরে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো অনুশীলন আর্জেন্টিনার। মেট্রো আর বাস মিলিয়ে যেতে দুই খন্টার বেশী সময় লাগে। তবে পৌঁছার পর শরীর ঠান্ডা হয়ে যায় এলাকার প্রাকৃতিক পরিবেশ দেখে। গাছপালা ঘেরা একেবারে নিরিবলি পরিবেশ। অবশ্য মস্কো শহরেও সবুজের ব্যাপক উপস্থিতি। প্রতিটি বাড়ীর সাথে প্রচুর গাছ আর খোলা জায়গার উপস্থিতি। তবে মেসিদের আগমন ব্রোনিৎসার এই নীরবতায় ইতি ঘটিয়েছে স্থানীয় ফুটবল প্রেমীদের কোলাহলে। তারা আর্জেন্টিার ভক্ত। সাথে মেসির জন্য পাগল। প্রায় পাঁচ শতাধিক সমর্থকের মুখে এক আওয়াজ মেসি মেসি। আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন হবে কিনা তা নিয়ে তাদের মাথাব্যাথা নেই। বরং তাদের প্রত্যাশা একটাই মেসির উজ্জ্বল পারফরম্যান্স। তাই তাদের একটানা চিৎকার ,চেঁচামেচি এই আর্জেন্টিনা দলপতি এবং বার্সেলোনা তারকাকে উদ্দেশ্য করে। নিরাপত্তা কর্মীদের বাধা তাদের জন্য ছিল বড় সমস্যা।

১০ বছরের বালক ডিমা। তার গায়ে আর্জেন্টিনার জার্সী। তার বক্তব্য, অনেকে বলতে পারে আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ জিতবে না । কারন তারা সেরা দল নয়। আমি তাদের সাথে একমত নই। আমার যুক্তি, তাদের তো মেসির মতো খেলোয়াড় আছে। তার পক্ষে সব কিছুই করা সম্ভব।

মাঝ বয়সী এক ব্যাক্তি বাইসাইকেলে করে কর্ডোভা থেকে মস্কোতে এসেছেন মেসিকে দেখার জন্য। আরেকজন ৪ হাজার কিলো মিটার পথ পাড়ি দিয়ে এসেছেন স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদ থেকে মস্কোতে এসেছেন। এদেরকে হতাশ করেননি মেসি। প্র্যাকটিস শেষে এই পাগল সমর্থকদের মন খুশী করতে ১০ মিনিট সময় দিলেন তিনি। অগনিত সংখ্যক দর্শককে অটোগ্রাফ দিলেন। ছোট ছোট ফুটবলে দিচ্ছিলেন অটোগ্রাফ। সাথে অবশ্য নিরাপত্তা রক্ষীদের সতর্ক দৃস্টি ছিল সর্বত্র। মেসি পূরন করলেন এই সমর্থকদের ছবি তোলার খায়েশও। মেসির পর আকর্ষনের বিষয় ছিলেন পাওলো দিবালা এবং মাসকেরানো। তারাও হাত বাড়িয়ে দিলেন সমর্থকদের জন্য। দল অনুশীলন শেষে ফেরত যাওয়ার সময়ও তাদের বাসের পাশে ভীড় লেগে থাকে সমর্থকদের।

প্র্যাকটিসে অবশ্য বেশ সতর্ক কোজ জর্জ সাম্পাওলি। ইনজুরির জন্য বাদ দুই গুরুত্বপূর্ন খেলোয়াড় রোমেরো এবং লানজিনি। তাই এই প্র্যাকটিকে অনুপস্থিত ছিলেন বানেগা। মাসলের ইনজুরি এখনও পুরোপুরি সারেনি বানেগার। তবে পুরোপুরি সুস্থ স্ট্রাইকার সার্জিও অ্যাগুয়েরো। এই অনুশীলনে অবশ্য আর কোনো ইনজুরির সমস্যা দেখা দেয়নি। প্র্যাকটিসের একটা বিশেষত্ব দেখা গেছে, দল দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে আনুশীলন করলেও মেসি আক্রমনের সময় দুই দলের পক্ষেই আক্রমনে গেছেন। ছোট মাঠ করে হয়েছে আর্জেন্টিনার অনুশীলন। ১৬ জুন আইসল্যান্ডের বিপক্ষে কে হবেন আর্জেন্টিনা শেষ প্রহরী তার একটা ইংগিত মিললো। কাভালেরোই থাকছেন পোস্টের নীচে সেটা প্যাকটিস দেখেই বুঝা গেল। অনুশীলনে বেশ সিরিয়াস ডি মারিয়া এবং হিগুয়েন। একই সাথে সর্বশেষ দলে ডাক পাওয়া এনজো পেরেজও।

আর্জেন্টিনা দলকে সকালেই অনুশীলনে ব্যস্ত রাখছেন কোচ সাম্পাওলি। বিকেলে তাদের অন্য কাজ।

কোনো মতে রাশিয়ার টিকিট পেয়েছে আর্জেন্টিনা। তা মেসির কল্যানে। তবে এখন দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরাই এবারের অন্যতম ফেবারিট।


আরো সংবাদ