১৩ ডিসেম্বর ২০১৮

বিকল্প স্যাটেলাইট ব্যবস্থা গড়ছে ব্রিটেন

বিকল্প স্যাটেলাইট ব্যবস্থা গড়ছে ব্রিটেন - সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের মালিকানাধীন স্যাটেলাইট প্রযুক্তি জেনারেল পজিশনিং সিস্টেমের (জিপিএস) বিকল্প হিসেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ২০০৩ সালে ‘গ্যালিলিও’ নামে নিজস্ব নতুন স্যাটেলাইট প্রকল্প হাতে নেয়। বিশ্বব্যাপী নজরদারি, যোগাযোগ এবং কোনো কিছুর অবস্থান চিহ্নিতকরণের জন্য ২০২১ সালে গ্যালিলিও’র কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা। এখন ইইউ বলছে—, ইইউ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর সরকারি ও সামরিক কাজে ব্যবহৃত উপাদান গ্যালিলিওর স্পর্শকাতর বিষয়ে প্রবেশাধিকার পাবে না যুক্তরাজ্য।

কয়েক মাস আগে ইইউএ-যুক্তরাজ্য বিরোধ শুরু। যুক্তরাজ্য শুরু থেকে গ্যালিলিও প্রকল্পের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। তারা চায় —এই প্রকল্পের পূর্ণ ব্যবহারসুবিধা এবং যেকোনো উন্নয়নমূলক উদ্যোগে অংশীদার থাকতে। এরপর যুক্তরাজ্য একাই গ্যালিলিও প্রকল্পের মতো নিজস্ব একটি স্যাটেলাইটব্যবস্থা স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছে। এ লক্ষ্যে প্রকল্পের ব্যয়, সময়, সক্ষমতা যাচাইসহ আনুষঙ্গিক সম্ভবতা যাচাইয়ে ৯২ মিলিয়ন পাউন্ড বরাদ্দ দিয়েছে দেশটির সরকার। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে গত মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই বরাদ্দের কথা জানান।

ইউরোপিয়ান কমিশন এবং ‘ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি’ গ্যালিলিও প্রকল্প হাতে নেয়। ইইউয়ের সদস্য দেশগুলো এর সমান অংশীদার। ২৪টি আলাদা স্যাটেলাইটের সমন্বয়ে পুরো সিস্টেম গড়ে উঠবে। ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে আরো ৬টি অতিরিক্ত স্যাটেলাইট। ইতোমধ্যে ২৬টি স্যাটেলাইট স্থাপনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ২০২১ সাল নাগাদ বাকি চারটি স্যাটেলাইট প্রেরণের কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা। প্রাথমিকভাবে গ্যালিলিও প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩ বিলিয়ন ইউরো। প্রকৃত ব্যয় প্রায় ১০ বিলিয়ন ইউরো হবে বলে ধারণা। গ্যালিলিও প্রকল্পে যুক্তরাজ্য এ পর্যন্ত প্রায় ১ দশমিক ৪ বিলিয়ন ইউরো খরচ করেছে, যা তারা ফেরত চাইবে।


আরো সংবাদ