২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

হেরে গিয়েও গর্বিত পুতিন

হেরে গিয়েও গর্বিত পুতিন - সংগৃহীত

রাশিয়ার ফুটবল দলকে নিয়ে গর্ব করছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি রুশ ফুটবল টিমকে নায়কের দল হিসেবে অভিহিত করেছেন।

পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, ‘তিনি (পুতিন) খেলা দেখেছেন এবং দলকে সমর্থন দিয়ে গেছেন। দারুণ খেলেই আমরা বিদায় নিয়েছি। ওরা এখনো আমাদের নায়ক। জীবন দিয়ে খেলেছে, আমরা তাদের নিয়ে গর্বিত।’

বিশ্বকাপ ফুটবলের কোয়ার্টার ফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার কাছে টাইব্রেকারে হেরে যাওয়ার পর গ্যালারিতে অনেক রুশ দর্শককে কাঁদতে দেখা গেছে। রুশ দর্শকরা কষ্ট পেয়েছেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তাদের এ পরাজয়েও রয়েছে গর্ব করার মতো অনেক কিছু। ক্রোয়েশিয়ার সাথের ম্যাচে মোট ১২০ মিনিট ২-২ গোলে সমানতালে খেলেছে রুশ স্কোয়াড। এরপর তারা হেরেছে টাইব্রেকারে।

বিশ্বকাপে এবার অংশ নেওয়া দলগুলোর মধ্যে ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে রাশিয়ার অবস্থান ছিল তলানিতে। এ অবস্থা থেকে রাশিয়া কোয়ার্টার ফাইনালে উঠবে তা অনেকে ভাবতেই পারে নি। 

সোচির ফিস্ট স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে বসে খেলা দেখেন নি পুতিন। তবে টেলিভিশনের পর্দায় খেলা দেখেছেন বলে জানিয়েছেন পেসকভ। রাশিয়া এবারের ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজক। চমৎকার আয়োজনের পাশাপাশি ফুটবল দল হিসেবেও প্রশংসনীয় খেলা দেখিয়েছে রুশরা।

কান্নায় বিদায় : তবুও গর্বিত রাশিয়া
রফিকুল হায়দার ফরহাদ, রাশিয়া থেকে

থেমে গেছে রুশদের ফুটবল উৎসব। ১৪ জুন সৌদি আরবের বিপক্ষে বড় জয় দিয়ে যে আনন্দের সূত্রপাত শনিবার রাতে তাতে পানি ঢেলে দিলো ক্রোয়েশিয়া। টাইব্রেকারে ক্রোয়েটদের শেষ শটটি নেয়ার আগ পর্যন্ত আশা ছিল স্বাগতিকদের। প্রতিপক্ষ এই শটে গোল করতে ব্যর্থ হলেই স্কোর হতো ৩-৩। খেলা গড়াতো সাডেন ডেথ এ; কিন্তু ভুল করেননি ক্রোয়েশিয়ান ফুটবলার। তার শটে পরাস্ত রুশ কিপার। বল চলে গেল জালে। এতেই ক্রোয়েশিয়ার সমর্থকদের মধ্যে উল্লাসের জোয়ার বইলেও মুহুর্তে স্তব্ধ হয়ে যায় ফিস্ট সোচি স্টেডিয়ামসহ পুরো রাশিয়া। ১৯৬৬ সালের পর ফের তাদের বিশ্বকাপের সেমিতে খেলার স্বপ্নের মৃত্যু এভাবেই। কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রুশরা। একে অপরকে জড়িয়ে হাউমাউ করে কেঁদেছেন। সাথে থাকা বিয়ারের গ্লাস আছড়ে ফেলেছেন। অথচ কী আত্মবিশ্বাস নিয়ে না মাঠে ও ফ্যান ফেস্টে গিয়েছিল তারা।

ফুটবলে তেমন বড় কোনো শক্তি নয় রাশিয়া। এবারের বিশ্বকাপে খেলা দলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বাজে র‌্যাকিং তাদের। ১৪ জুনের আগ পর্যন্ত ৭ টি ম্যাচের কোনোটিতে জয় ছিল না তাদের; কিন্তু বিশ্বকাপের শুরু থেকেই পাল্টে যায় চিত্র। প্রথম ম্যাচে সৌদি আরবের জালে পাঁচ গোল। পরের খেলায় ৩-১ এ জয় মিসরের বিপক্ষে। গ্রুপের তৃতীয় ম্যাচে উরুগুয়ের কাছে তিন গোলে হারলেও দ্বিতীয় রাউন্ডে স্পেনের বিপক্ষে ট্রাইব্রেকারে ঐতিহাসিক জয় অন্য উচ্চতায় নিয়ে যায় রাশিয়ান ফুটবলকে।

২০১০ এর চ্যাম্পিয়নদের বধ করার পর নতুন স্বপ্ন দানাবাধে রুশদের মনে। হয়তো বিশ্বসেরা হওয়ার প্রত্যাশাও ছিল তাদের মনে। বাঘা বাঘা তারকাসম্মৃদ্ধ স্প্যানিশদের কাবু করার পর এমনটা ভাবতেই পারে তারা। সোচিতে প্রথমার্ধে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে লিড নেয়ার আরো পোক্ত হয় তাদের আশা। এরপর ক্রোয়েটরা ২-১ এ এগিয়ে গেলেও স্কোর লাইন আবার ২-২ করে নিজেদের লড়াইয়ে টিকিয়ে রাখে রুশরা। এমনকি টাইব্রেকারের শুরুতে সমান তালে চলছিল স্কোর লাইন। প্রথমে ফয়দর সমোলভের শট প্রতিপক্ষ গোলরক্ষক সুবাসিচ ঠেকিয়ে দেয়ার পরও।

কারণ এরপরেই মাতিও কাভোচিসের শট আটকে দেন রুশ গোলরক্ষক ইগর আকিনফেব। এরপর ফ্রি-কিক থেকে হেডে গোল করে সমতা আনা মারিও ফার্নান্দেজ তার শট বাইরে মরার পর স্বাগতিকরা সেই যে ব্যাকফুটে চলে গেল তা থেকে আর সামনে বাড়তে পারেনি। ফলে ৪-৩ এ কোর্য়াটারেই বিদায় রাশিয়ার। অবশ্য তারা এখন বিশ্বের সেরা আট দলের একটি। যদিও বিশ্বকাপের আগে তাদের র‌্যাংকিং ছিল ৭০। সুতরাং সেমিতে যেতে না পারলেও এই অর্জনে গর্বিতই তারা।

আগের রোববারে স্পেনকে হারানোর পর সে কি আনন্দ- উল্লাস রুশদের! শনিবার কোর্য়াটারে ক্রোয়েটদের হারাতে পারলে এই রোববার ছুটির দিনকে কী দারুণ ভাবেই না উদযাপনের জন্য ব্যবহার করতে পারতো তারা।

উল্টো তাদের বিদায়ে আরো আকর্ষণহীন হযে পড়লো এবারের বিশ্বকাপ। প্রথমে দর্শকপ্রিয় আর্জেন্টিনার বিদায়। এরপর সে তালিকায় যোগ হয় আরেক জনপ্রিয় দল ব্রাজিল। এখন রুশরাও বাতিলের খাতায়। মূল আকর্ষণের আগামী তিন ম্যাচে তাই এমন পাগলা দর্শকদের আর দেখা যাবে না। যার সমাপ্তি মূলত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার বিদায়ের পরই।

ম্যাচ শেষে রাশিয়ার কোচ স্টানিসলেভ চেরচেশব বলেন, খুবই হতাশাজনক এই রেজাল্ট। এখন আর আমাদের কোনো সম্ভবনা নেই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। এরপরও আমি দলের এই পারফরম্যান্স গর্বিত। আসর তো শুরু করেছিলাম অংশ নেয়া দলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বাজে র‌্যাংকধারী দল হিসেবে। এখন আমরা সেরা আটের দল।

কোচ জানান, ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আমাকে ফোন করেন। ম্যাচ শেষেও ফোন করেছেন। দলের সবাইকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘দল ভালো খেলেছে।’ আমি এর জবাবে জানিয়েছি, আমরা হতাশ এই রেজাল্টে। তবে এখন সময় আরো সামনে এগুনোর পথে চলার।


আরো সংবাদ