১৪ ডিসেম্বর ২০১৮

ফ্রান্সে মুসলমানদের ওপর হামলা বাড়ছে

ফ্রান্সে মুসলমানদের ওপর হামলা বাড়ছে - ছবি : সংগৃহীত

ফ্রান্সে মুসলমানদের বিরুদ্ধে হামলা দিন দিন বাড়ছেই। এমনকি পবিত্র রমজান মাসে সেখানে মুসলমানরা গুলি, যৌন হয়রানি, অগ্নিসংযোগ, ইবাদতের স্থান অপবিত্র করে দেয়ার মতো ঘটনাও সেখানে বাড়ছে। দেশটির ন্যাশনাল অবজারভেটরি অ্যাগেইনিস্ট ইসলামফোবিয়া সংস্থার প্রধান আবদুল্লাহ জাকি আলজেরিয়ার বার্তা সংস্থা এপিএস নিউজ এজেন্সিকে এ কথা বলেন।

সংস্থাটি গত মাসে প্রকাশিত এক রিপোর্টে উল্লেখ করেছে, এ বছরের শুরু থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময়ে মুসলমানদের ওপর হামলার পরিমাণ ১৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। উল্লিখিত সময়ে এ ধরনের ৩০টি ঘটনার কথা রেকর্ড করা হয়েছে। গত বছর এ ধরনের ঘটনা ঘটেছিল ২৬টি। আর মুসলমানদের হুমকির বিষয়টি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৩৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে গত বছরের তুলনায় মসজিদ ও ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে হামলার ঘটনা এবার কম ঘটেছে। গতবার যেখানে এ ধরনের ১৮টি ঘটনা ঘটেছিল, এবার সেখানে ১০টি ঘটনার কথা জানা গেছে।

শস্য মজুদকেন্দ্রে বিস্ফোরণ
রয়টার্স
ফ্রান্সের পূর্বাঞ্চলের স্ট্রাসবুর্গ শহরে শস্য মজুদ কারখানায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার সকালের দিকের ওই বিস্ফোরণে আহত তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে দেশটির জরুরি সার্ভিস বিভাগ জানিয়েছে।

তবে তাৎণিকভাবে বিস্ফোরণের কারণ জানা যায়নি। জার্মানি সীমান্তের রাইন নদীর তীরে অবস্থিত ওই কারখানায় বিস্ফোরণের পর আগুনের সূত্রপাত হয়। কারখানাটি স্থানীয় কৃষি সমবায় বিভাগ কোম্পটোয়ের অ্যাগ্রিকোলের মালিকানাধীন ছিল। স্থানীয় শস্য ব্রোকাররা বলছেন, কারখানাটির শস্য মজুদ সমতা প্রায় ৪০ হাজার টন। তবে বিস্ফোরণের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি কোম্পানি কর্তৃপ।ক্ষ।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের বৃহত্তম শস্য উৎপাদক এবং রফতানিকারক ফ্রান্স। দেশটির পূর্বাঞ্চল থেকে জার্মানি, নেদারল্যান্ডসহ উত্তর ইউরোপীয় দেশগুলোতে পণ্য পরিবহনের গুরুত্বপূর্ণ রুট রাইন নদী।

আরো দু’টি শরণার্থী শিবির খালি করল পুলিশ
এএফপি
ফ্রান্সে দু’টি আশ্রয় শিবির থেকে অন্তত এক হাজার শরণার্থীকে সরিয়ে দিয়েছে দেশটির পুলিশ। এর পাঁচ দিন আগেও আরো এক হাজার শরণার্থীকে সরিয়ে নেয়া হয়েছিল। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপির এক খবরে থেকে এ তথ্য জানা যায়।

খবরে বলা হয়, সোমবার স্থানীয় সময় ভোরে ক্যানাল সেন্ট মার্টিনের কাছাকাছি একটি শরণার্থী শিবিরে এই খালি করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। আশ্রয়শিবিরটিতে প্রায় ৫৫০ জন আফগান শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছিলেন। এরপর পোর্টে দো লা চ্যাপেলের উত্তর দিকের একটি শিবির থেকে ৪৫০ জনকে সরিয়ে নেয়া হয়।

পুলিশের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, শরণার্থী হিসেবে আশ্রয়প্রার্থীদের গ্রহণ করার বিষয়টি অনুসন্ধান করা হচ্ছে। এক সপ্তাহ আগেই ক্যানাল সেন্ট ডেনিসের একটি শরণার্থী শিবির থেকে এক হাজার অভিবাসীকে সরিয়ে দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। সাম্প্রতিক সময়ে এসব আশ্রয়শিবিরের অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছিল। গত মাসে একজন শরণার্থী পানিতে ডুবে মারা গিয়েছিলেন। আরেকজন হাতাহাতির ঘটনায় আহত হয়েছিলেন।

সুলেমান নামে একজন অভিবাসী বলেন, ‘তারা বলছে যে আমরা এই আশ্রয়কেন্দ্রে বেশি দিন থাকতে পারব না। তবে তিন বেলা খাবার পাবো আমরা।’ গত বছর আশ্রয়ের জন্য প্রায় এক লাখ আবেদন জমা পড়েছিল ফ্রান্সে। বসবাসের অনুমতি পেয়েছিল ৩০ হাজার জন।


আরো সংবাদ