২১ জুলাই ২০১৯

আমেরিকায় আজীবন সম্মাননা পেলেন প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী

-

দেশের মাটিতে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ দেশের বিভিন্ন সংগঠন কর্তৃক নানান ধরনের সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী। কিন্তু দেশের বাইরে এবারই প্রথম তিনি ‘আজীবন সম্মাননায়’ ভূষিত হলেন। আর এই সম্মাননাকে মৌসুমী তার জীবনের অন্যতম একটি অর্জন বলেও বিবেচিত করছেন। গেল ১৬ জুন মৌসুমীকে আজীবন সম্মাননায় ভূষিত করে ‘আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব’। সে দিন সংগঠনের বার্ষিক বনভোজনে এ সম্মাননা তুলে দেয়া হয়। কার্যকরী কমিটির নেতাদের সাথে নিয়ে সম্মাননা তুলে দেন ক্লাবের সভাপতি দর্পণ কবীর, সাবেক সভাপতি নাজমুল আহসান, সাধারণ সম্পাদক শাহাব উদ্দিন সাগর। এ সময় মৌসুমীর স্বামী নায়ক ওমর সানী, প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি বেলাল আহমেদ, কলামিস্ট আবু জাফর মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন। প্রেস ক্লাবের বনভোজন অনুষ্ঠিত হয় লংআইল্যান্ডের হ্যাকশেয়ার পার্কে। অনুষ্ঠানে আজীবন সম্মাননা দেয়ার পাশাপাশি মৌসুমীকে ক্লাবের সম্মানিত সদস্য পদ প্রদান করা হয়। আজীবন সম্মাননা ও প্রেস ক্লাবের সদস্যপদ দেয়ার পর মৌসুমী বলেন, দেশের বাইরে আমি সম্মাননা পেয়ে সত্যিই অনেক আনন্দিত, উচ্ছ্বসিত। এ সম্মাননা আমি বহন করে নিয়ে যাবো বাংলাদেশে। প্রেস ক্লাবের এ সম্মাননা আমার সফলতার পালকে একটি উজ্জ্বল সংযোজন। আমি শুধু খুশিই নয় প্রেস ক্লাবের প্রতি কৃতজ্ঞও, যা আমি আজীবন স্মরণ রাখব। আজ আমার নতুন পরিচয় আমি আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের একজন সম্মানিত সদস্য, যা আমার জন্য অত্যন্ত গৌরবের। ওমর সানী বলেন, আজ আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব একজন যোগ্য মানুষকে, যোগ্য নায়িকাকে সম্মান জানিয়েছে। যাতে আমি ব্যক্তিগতভাবে খুশি। আমি সব সময় মনে করি সাংবাদিকেরা আমার পরিবারের সদস্য বা আমি সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্য। এতদিন আমি সেটি মনে করলেও আজ প্রবাসের মাটিতে তার প্রমাণ নিয়ে দেশে ফিরছি আমরা দু’জনই। উল্লেখ্য, আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০৮ সালে। গেল ঈদে ওমর সানী ও মৌসুমী অভিনীত নোলক সিনেমাটি মুক্তি পায়। আগামী ২২ জুন তাদের ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে। ছবি সৌজন্য : ওমর সানী


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi