২৩ আগস্ট ২০১৯

রাশেদা চৌধুরীর আহ্বান

-

রাজধানীর মগবাজারের রাশমনো হাসপাতালের সিসিইউতে গুরুতর অসুস্থাবস্থায় একজন অতি সাধারণ মানুষের কন্যা মাহিয়া দিন যাপন করছে। এই হাসপাতালের আগে রাজধানীর আদদীন হাসপাতালে থাকাকালীনই মাহিয়ার শ^াসকষ্ট বেড়ে যায়। যে কারণে তার শারীরিক অবস্থার দ্রুত অবনতি হলে তাকে রাশমনো হাসপাতালে নেয়া হয় উন্নত চিকিৎসার জন্য। সেখানে শিশু বিশেষজ্ঞ লিটন চন্দ্র সাহার তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছে। তবে ডাক্তার লিটনেরই সহযোগিতায় শিশুটিকে শিশু হাসপাতালে নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেখানে একসময় শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে শিশু হাসপাতালে সিসিইউতে সিট না থাকায় আবারো রাশমনো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই অনেকটা ব্যয়বহুল চিকিৎসা চলছে বলে জানান নন্দিত অভিনেত্রী রাশেদা চৌধুরী। রাশেদা চৌধুরী বলেন, ‘কিছু দিন আগে আমার ছোট মেয়ে অনন্যার মেয়ে রমিতার চিকিৎসার জন্য আদ-দীন হাসপাতালে যাই। সেখানে যাওয়ার পর হঠাৎ কয়েকজন লোক আমার কাছে একজন শিশুর চিকিৎসার জন্য টাকা চাইতে আসে। আমি টাকা দেয়ার পরও কৌতূহলবশত শিশুটিকে দেখতে যাই। কিন্তু একসময় দেখলাম যে, শিশুটির শরীরের অবস্থা খুব খারাপ। তাই পরে তাকে রাশমনো হাসপাতালে নেয়া হয়। যেহেতু আমার নিজের নাতনি আছে, তাই শিশুটির প্রতি এক ধরনের মায়া জন্মে গেল। আমার মেয়ে অনন্যা ফেসবুকে নানান গ্রুপের মাধ্যমে সহযোগিতা পেয়ে মেয়েটির চিকিৎসার কাজে লাগিয়েছে। কিন্তু এখনো শিশুটি সুস্থ হয়নি। তার ফুসফুসে পানি জমেছে। এর চিকিৎসা ব্যয় আরো বেশি। তাই সবার প্রতি আমি শিশুটির হয়ে বিশেষ আবেদন করছি, যে যা পারেন তাকে বাঁচাতে প্লিজ এগিয়ে আসুন। একটি প্রাণ বাঁচাতে আমাদের সবার আন্তরিক অংশগ্রহণই যথেষ্ট।

 


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet