২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

গীটারের সাথে ৪৫ বছর

-

লাবু রহমান, এ দেশের কিংবদন্তি একজন গীটার বাদক। ভালোবেসে ১৯৭৩ সালে সেই যে হাতে ফ্লোর গীটার হাতে তুলে নিয়েছিলেন সেই গীটারই যেন আজও বাজিয়ে চলেছেন। গীটারের প্রতি অদম্য ভালোবাসাই তাকে পরিণত করেছেন একজন কিংবদন্তিতে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে ছড়িয়ে দিতে ২০০৬ সাল থেকে গুলশানের ‘মিউজিক প্ল্যানেট’-এ আগ্রহীদের নিয়মিত গীটার শিখিয়ে আসছেন বেশ ধৈর্য নিয়ে। লাবু রহমানের এই গীটার শেখানোর আগ্রহকে শ্রদ্ধা জানিয়ে বসুন্ধরার ‘আনন্দলোক’ কর্তৃপক্ষও আগ্রহ প্রকাশ করে প্রায় দুই বছর যাবত আগ্রহীদের গীটার শিখাচ্ছেন তাকে দিয়েই। রাজধানীর জোনাকী সিনেমা হলে দেশ স্বাধীনের পরপরই পপ শো’ হতো। সেখানে সেøার গীটার হাতে দেখেছিলেন ফজলে রবকে। তখন থেকেই গীটারের প্রতি লাবু রহমানের অদম্য ভালোবাসা জন্মায়। তার বড় ভাই ডা: শাজাহানের গীটার ছিল। তাই বাসায় ফিরে সেই গীটার হাতে নিয়ে চেষ্টা করেন বাজাতে। সেই যে শুরু হলো গীটারের সাথে সখ্যতা, তা এখনো আছে। ১৯৭৭ সালে পপ সম্রাট আজম খানের ব্যান্ড দল ‘উচ্চারণ’ এ বাজাতে শুরু করেন। তার সঙ্গে টানা দুই বছর বাজান লাবু। সেখানে থাকাবস্থাতেই প্রফেশনালি গীটার বাজানো শুরু করেন লাবু। এরপর নারায়ণগঞ্জের পাগলাতে অবস্থিত ম্যারি অ্যান্ডারসন এ ব্যান্ড দল সিম্পনির হয়ে বেশ কয়েক বছর গীটার বাজালেন তিনি। পরে ঢাকা অর্কেস্ট্রার হয়ে গীটার বাজানো শুরু করেন পুরো পেশাদারিত্ব নিয়ে। সেই সময় লাবু রহমানের এমন ব্যস্ততা ছিল যে কখন রাত হলো, কখন সকাল হলো তা টেরই পেতেন না তিনি। ১৯৮৬ সালে সাফ গেমসে সমর দাসের সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি। ১৯৭৭ সালে গঠিত ব্যান্ড দল ‘ফিডব্যাক’-এ যোগ দিলেন লাবু ১৯৮৮ সালে। সেই থেকে আজ পর্যন্ত লাবু রহমান নিজেকে ‘ফিডব্যাক’-এর সাথে রেখেছেন। এই দলে যোগ দিয়ে রুমেলের গাওয়া ‘কেন খুলেছো তোমার জানালা’ গানটি লাবু রহমানের কণ্ঠে দারুণ জনপ্রিয়তা পায়।


লাবু রহমান ‘উচ্চারণ’-এ থাকার সময় তার লেখা এবং সুর করা ‘আমি যারে চাইরে সে থাকে মোর এই অন্তরে’ আজম খানের কন্ঠে বেশ জনপ্রিয়তা পায়। লাবু রহমান নিজেও ‘ফিডব্যাক’র হয়ে এই দলেরই বিভিন্ন অ্যালবামে গেয়েছেন ‘সময় হয়েছে তার ফিরে আসবার’,‘ একা কোথাও’সহ আরো বেশ কিছু গান। এছাড়া আলোড়ন সৃষ্টিকারী অ্যালবাম ‘আলোড়ন’সহ আরো বেশ কিছু মিক্সড অ্যালবামেও গান গেয়েছেন তিনি। একজন গীটারিস্ট হিসেবে নিজের অবস্থান নিয়ে আপনি সন্তুষ্ট? জবাবে লুৎফুল আহমেদ ওরফে লাবু রহমান বলেন,‘ আমি একজন গীটারিস্ট হিসেবে ভীষণ সুখী মানুষ। আমি এদেশের এমন কোন শিল্পী নেই যার গানে গীটার বাজাইনি, অবশ্য এই প্রজন্মের শিল্পী ছাড়া। একজন গীটারিস্ট হিসেবে সত্যিই আমি সন্তুষ্ট। কারণ আমি মনেপ্রাণে চেয়েছিলাম একজন গীটারিস্ট হতে, আমার সেই স্বপ্নপূরণ হয়েছে এবং সত্যিই সফল একজন মানুষ। সবার কাছে দোয়া চাই যেন সুস্থ থাকি, ভালো থাকি।’

 


আরো সংবাদ