১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

দ্বিতীয় দিন বহাল ৭৮, বাতিল  ৬৫ ও স্থগিত ৭

দ্বিতীয় দিন বহাল ৭৮, বাতিল  ৬৫ ও স্থগিত ৭ - সংগৃহীত
  • শনিবার খালেদা জিয়ার শুনানী
  • রায় হবে আফরোজা আব্বাস, আমান ও সুলতানার


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার বাতিল সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিলের দ্বিতীয় দিনে প্রার্থীতা ফিরে পেলেন ৭৮জন। রিটার্নিং কর্মকর্তার বাতিল আদেশ বহাল থাকলো ৬৫জনের বিরুদ্ধে এবং শনিবার শুনানী শেষে আদেশ দেয়া হবে ৭ জনের।

শুনানির দ্বিতীয় দিনে শুক্রবার ১৫০ জনের আপিল আবেদনের মধ্যে ১৪৩ জনের নিষ্পত্তি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আর ৬৫ জনের মধ্যে ছয় জন প্রার্থী ছিলেন যাদের বিরুদ্ধে অন্যপ্রার্থীরা মনোনয়ন বাতিল চেয়ে ইসিতে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তাদের আবেদন নামঞ্জুর করা হয় (বাতিল), এর ফলে এই ছয় ছয়জনের প্রার্থিতা আগের মতো বহালই থাকলো। আজ শনিবার শেষদিনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দীকিসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রার্থীদের আপীলের শুনানী হবে।

অন্যদিকে, রিটার্নিং কর্মকর্তার যাচাই-বাছাইয়ে বাদ পড়া ৭ প্রার্থীর প্রার্থিতার বিষয়টি স্থগিত রাখা হয়েছে। স্থগিতের মধ্যে বিএনপি প্রার্থী ঢাকা ৯ আসনের আফরোজা আব্বাস, ঢাকা -২ আসনের আমানউল্লাহ আমান, ঢাকা ২০ আসনে সুলতানা আহমেদ রয়েছে। আজ তাদের ব্যপারে সিদ্ধান্ত দিবে ইসি।

আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে শুক্রবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদার নেতৃত্বে চার নির্বাচন কমিশনার আপিল শুনানি করেন। পরিচালনা করেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। যারা প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন তাদের মধ্যে ২১জন বিএনপির। আওয়ামীলীগের এক জন, স্বতন্ত্র ১৩ জন, বাকিগুলো অন্যান্য দল।

সকাল ১০টায় শুরু হয় এই আপিল শুনানি। জুমার নামাজ ও মধ্যাহ্ন বিরতি শেষে বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই শুনানি চলে। আবেদন নামঞ্জুর করার মধ্যে রয়েছে জাতীয় পার্টির পটুয়াখালী-১ এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, কুড়িগ্রাম-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরান এইচ সরকার সহ অনেকে।

বিএনপির যারা প্রার্থিতা ফিরে পেলেন তারা হলেন- :

জামালপুর-১ এম রাশিদুজ্জামান মিল্লাত, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আসনের মোঃ মুসলিম উদ্দিন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনের মোহাম্মদ জিয়া উদ্দিন ও আবদুল খালেক, চট্টগ্রাম-৭ আসনে মোঃ আবু আহমেদ হাসনাত, বরগুনা-১ মো. মতিয়ার রহমান তালুকদার, ভোলা-১ গোলাম নাবী আলমগীর, পটুয়াখালী-২ শহিদুল আলম তালুকদার, ঢাকা-১৬ এ কে এম মোয়াজ্জেম হোসেন, কিশোরগঞ্জ-১ খালেদ সাইফুল্লাহ সোহেল খান, মানিকগঞ্জ-২ মঈনুল ইসলাম খান, মুন্সিগঞ্জ-১ মো. আব্দুল্লাহ, মাদারীপুর-১ নাদীরা আক্তার, ঢাকা-১ ফাহিমা হুসাইন জুবলী, কিশোরগঞ্জ-৩ সাইফুল ইসলাম সুমন, নারায়ণগঞ্জ-৪ মোঃ মামুন মাহমুদ, মৌলভীবাজার-১ এবাদুর রহমান চৌধুরী, সুনামগঞ্জ-৪ দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন, টাঙ্গাইল-৬ নুর মোহাম্মদ খান, শরীয়তপুর-১ সরদার এ কে এম নাসির উদ্দীন, নেত্রকোনা-৫ মোঃ আবু তাহের তালুকদার।

আওয়ামী লীগঃ  কুড়িগ্রাম- ৪ আসনের মোঃ জাকির হোসেন।

জাতীয় পাটি ৮জন : চাঁদপুর-৫ খোরশেদ আলম খুশু, বরিশাল-২ মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা), নারায়নগঞ্জ-৪ মো. ঠালাউদ্দিন খোকা, ঢাকা-৮ আসনের মাহমুদা রহমান মুন্নি, ঢাকা-১৬ মোঃ আমানত হোসেন, সিলেট-৫ সেলিম উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ-২ এরশাদ হোসাইন, মানিমগঞ্জ-২ এস এম আব্দুল মান্নান ।

স্বতন্ত্র ১৩জন: চট্টগ্রাম-৮ আসনের হাসান মাহমুদ চৌধুরী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ মোঃ গিয়াস উদ্দিন ও মোঃ ছাইফুল্লাহ (হুমায়ুন মিয়া), বরিশাল-২ আসনের একে ফাইয়াজুল হক, পটুয়াখালী-২ মো. মিজানুর রহমান খান, বরিশাল-২ সৈয়দা রুবানা আক্তার, পুটায়াখালী-২ মো. শফিকুল ইসলাম, নারায়গঞ্জ-৪ মো. গিয়াসউদ্দিন, টাঙ্গাইল -৬ মো. আবুল কাসেম, টাঙ্গাইল-৬ এম আশরাফুল ইসলাম, মাদারীপুর-২ আল আমীন মোল্লা, হবিগঞ্জ-১ অধ্যাপক মোঃ আব্দুল হান্নান, ময়মনসিংহ-৮ মাহমুদ হাসান সুমন।

জাকের পাটি ৪জন: পটুয়াখালী-১ আসনের মোঃ আবদুর রশিদ, বরিশাল-১ আসনের মোঃ বাদশা মিয়া, শরীয়তপুর-২ মো. বাদল কাজী, ময়মনসিংহ-৫ মোঃ জহিরুল ইসলাম

ইসলামী আন্দোলন ৬জন: ঢাকা-৩ মো. সুলমান আহম্মদ খান, কিশোরগঞ্জ-২ মো. সালাহউদ্দিন (রুবেল), কিশোরগঞ্জ-৬ মোহাম্মদ মুসা খান, টাঙ্গাইল-৮ মো. আ. লতিফ মিয়া, ময়মনসিংহ-১ মোঃ হাবিবুল্লাহ, ময়মনসিংহ-১১ মোঃ আমান উল্লাহ সরকার

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ৫জন : নরসিংদী-২ জায়েদুল কবীর, গাজীপুর-৩ মো. জহিরুল হক মন্ডল বাচ্চু, কিশোরগঞ্জ-১ মু. আব্দুর রহমান, কিশোরগঞ্জ-৫ সেলিনা সুলতানা, রংপুর-২ শ্রী কুমারেশ চন্দ্র রায়।

কমিউনিষ্ট পার্টি ৫জন: শরিয়তপুর-৩ সুশান্ত ভাওয়াল, কিশোরগঞ্জ-২ নুরুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ-৩ ডা. এনামুল হক (ইদ্রিস) ঢাকা-২ সুকান্ত শফি চৌধুরী, ফরিদপুর-৪ আতাউর রহমান ।

খোলাফত মজলিশ ৩জন: টাঙ্গাইল-৭ সৈয়দ মজিবর রহমান, সুনামগঞ্জ-৪ মোহাম্মদ আজিজুল হক, ঢাকা-১৮ সাইফ উদ্দিন আহমেদ।

ন্যাশনাল পিপলস পাটি ৩জন: টাঙ্গাইল -৬ মামুনুর রহমান, টাঙ্গাইল-৩ এস এম চান মিয়া, সুনামগঞ্জ-৪ মোহাম্মদ দিলোয়ার।

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট: ঢাকা-৮ এস এম সরওয়ার।

গণফোরামঃ হবিগঞ্জ-১ রেজা কিবরিয়া ।

ইসলামী ঐক্যজোট ৩জন ঃ কুমিল্লা-১ আসনে মোঃ আলতাফ হোসেন, সিলেট-৫ এম এ মতিন চৌধুরী, হবিগঞ্জ-৩ মাওলানা আতাউর রহমান ।

বিএনএফ ২জন ঃ টাঙ্গাইল-৩ মোঃ আতাউর রহমান খান, টাঙ্গাইল-৬ সুলতান মাহমুদ
জাতীয় সমাজতাতিন্ত্রক দল-জেএসডিঃ ঢাকা-১৮ শহীদ উদ্দিন মাহমুদ।
এলডিপিঃ নেত্রকোনা-১ মোঃ এম এ করিম আব্বাসী ।
যাদের পেন্ডিং রয়েছে: ব্রহ্মণবাড়িয়া -৫, গাইবান্ধা-১ আফরুজা বারী সাহাবাজ, রংপুর ১ আলহাজ্ব সি এম সাদিক।

আপিলে যাদের আবেদন খারিজ হয়েছে:
চট্টগ্রাম-৬ এর সামির কাদের চৌধুরী, ফেনী-৩ এর মো. আবদুল লতিফজান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ মো গিয়াস উদ্দিন, কুমিল্লা-২ এর মোঃ আব্দুল মজিদ, বরিশাল-৬ এর ওসমান হোসেইন, পিরোজপুর-৩ এর ডা. সুধীর রঞ্জন বিশ্বাস, ঝালকাঠি-১ এর মো. মনিরুজ্জামান, পটুয়াখালী-১ এর এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, পটুয়াখালী-২ এর মোহাম্মদ মিজানুর রহমান খান, ভোলা-৪ এর এম এ মান্নান হাওলাদার, ঝালকাঠী-১ এর মোহাম্মদ শাহজালাল শামীম, পিরোজপুর-১ এর মনিমোহন বিশ্বাস, বরিশাল-৬ এর নাসরিন জাহান রতনা।

বরিশাল-৪ এর মো. মেজবা উদ্দীন ফরহাদ, ঝালকাঠী-১ এর ইয়াসমিন আক্তার পপি, পিরোজপুর-৩ মো. রুস্তম আলী ফারাজী, ভোলা-২ এর হুমায়ন কবির, নরসিংদী-২ এর আলতামাশ কবীর (অনুপস্থিত), কিশোরগঞ্জ-৪ এর সুরঞ্জন ঘোষ, কিশোরগঞ্জ-৩ এর মোহাম্মদ আম্মান খান, মানিকগঞ্জ-১ এর মোহাম্মদ আতোয়ার হোসেন, ঢাকা-৮ এর আরিফুর রহমান, কিশোরগঞ্জ-২ এর মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান, ঢাকা-১৭ এর মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান খোকন, ঢাকা-৮ এর অবসরপ্রাপ্ত মেজর মামুনুর রশিদ, গোপালগঞ্জ-১ এর শামসুল আলম খান চৌধুরী, কিশোরগঞ্জ-৩ এর মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান নয়ন, নারায়ণগঞ্জ-১ এর মোহাম্মদ রেহান আফজাল, শরীয়তপুর-১ এর মো. আলমগীর হোসেনের আপিল আাবেদন, গোপালগঞ্জ-৩ এ জেড আপু শেখ, মুন্সিগঞ্জ-২ মোহাম্মদ নোমান মিয়া।

কিশোরগঞ্জ-২ মোহাম্মদ লুৎফুর রহমান, ঢাকা-২০ জামাল উদ্দিন আহমেদ, গাজীপুর-১ মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, নারায়ণগঞ্জ-৩ মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ-৩ অনন্যা হোসাইন মৌসুমী, মৌলভীবাজার-৩ আব্দুল মোসাব্বির, হবিগঞ্জ-৩ মোহাম্মদ আ. কাদির, হবিগঞ্জ-৩ মওলানা আতাউর রহমান, সিলেট-২ অধ্যক্ষ এনামুল হক সর্দার, সিলেট-৬ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন মিয়া, সুনামগঞ্জ-১ কামরুজ্জামান কামরুল, সিলেট-২ মহিবুর রহমান, সুনামগঞ্জ-৫ রঞ্জিত কুমার দে, হবিগঞ্জ-১ মোহাম্মদ বদরুর রেজা, হবিগঞ্জ-৪ মোহাম্মদ আব্দুল মমিন, সিলেট-৩ আব্দুল ওদুদ, টাঙ্গাইল-৮ কাজী আশরাফ সিদ্দিকী।

নরসিংদী-২ ইঞ্জিনিয়ার মুহসীন আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ-৩ মোশারফ হোসেন, গাজীপুর-৪ মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন, ঢাকা-১৫ মোহাম্মদ ছলীম উদ্দিন, রংপুর-৩ হাবিবুল হক সরকার, ঠাকুরগাঁও-৩ গোপাল চন্দ্র রায়, গাইবান্ধা-৩ তফিকুল ফামিন মন্ডল, কুড়িগ্রাম-৪ ইমরান এইচ সরকার, কুড়িগ্রাম-৪ এস এম জাহাঙ্গীর, নীলফামারী-৩ মোহাম্মদ আনসার আলী, ময়মনসিংহ-৪ আবু জাফর জাহিদ হোসেন, ময়মনসিংহ-৫ মোহাম্মদ হোসেল মিয়া, শেরপুর-৩ মোহাম্মদ আবু বক্কর সিদ্দিকী ও মানিকগঞ্জ-২ মঈনুল ইসলাম খান।

প্রসঙ্গত প্রথম দিন ১ থেকে ১৬০ জনের মনোনয়নপত্রের আপিল শুনানিতে ৮০ জন বৈধ ও ৭৭ জনের অবেদন খারিজ করে দেয়া হয় । শনিবার ৩১১ থেকে ৫৪৩ পর্যন্ত শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। সকাল দশটায় নির্বাচন কমিশন ভবনে এ শুনানি শুরু হবে চলবে যতক্ষণ না শেষ হয়।


আরো সংবাদ