২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

গাজীপুর-খুলনায় গুড, তিন সিটিতে বেটার নির্বাচন হবে : এইচটি ইমাম

এইচটি ইমাম - সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেছেন, গাজীপুর ও খুলনা সিটি নির্বাচন গুড হয়েছে। তিন (রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট) সিটি করপোরেশনে বেটার নির্বাচন হবে। আমাদের চেষ্টা থাকবে পর্যায়ক্রমে যেন আরো ভালো হয়। বুধবার আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেন তিনি।

এইচ টি ইমাম বলেন, আমরা সবসময় নির্বাচন কমিশনকে সম্পূর্ণ আস্থায় নেই। আমাদের নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বাচন করছেন। নির্বাচন কমিশনে এসেছিলাম সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য কিভাবে আমরা সহযোগিতা করতে পারি, তা জানানোর জন্য।

তিনি বলেন, অনেক সময় বিশেষ করে একটি দল কমিশনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয় এমন বক্তব্য দেন। নির্বাচনকে ছোট করলে আমরা ছোট হই, জাতি ছোট হয়।

বিএনপির অভিযোগ আপনি কমিশনকে সহযোগিতা নয়, নির্বাচনকে নিয়ন্ত্রণ করতে ইসিতে আসেন- এ বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা কাউকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করি না। কারো চরিত্রও হরণ করি না। আমাদের সময় এই কমিশন দায়িত্ব নিয়েছে। তাই আমাদের অনেক দায়িত্ব রয়েছে কমিশনকে সহযোগিতা করার।

গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নিয়ে ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের (ইডাব্লিউজি) বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে এইচটি ইমাম বলেন, তারা একটি কথা বলে বসলেন। তার ওপর ভিত্তি করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্টদূত যে উক্তি করেছেন, তার কোনো পরিসংখ্যান নেই। গাজীপুর ও খুলনায় মাত্র চার দশমিক তিন শতাংশ ভোটকেন্দ্রে অনিয়ম হয়েছে। গাজীপুরে ১১ লাখ ৩৬ হাজার ভোটারের মধ্যে মাত্র ২ জন ভোটার ভোট দিতে পারেননি। আবার এই দুই সিটি নির্বাচনে কোনো ধরনের সহিংসতাও হয়নি। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে হয়েছে। তারপরও একটি দল এসব কিছু নিয়ে অপপ্রচার চালিয়েছে।

রাজশাহী সিটি নির্বাচনে খুলনা ও গাজীপুর সিটি মেয়র প্রচারণায় অংশ নিয়ে আচরণবিধি লঙ্ঘন করেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, গাজীপুর সিটি মেয়র এখনো শপথ নেননি এবং খুলনা সিটি মেয়র শপথ নিলেও দায়িত্বভার প্রহণ করেননি। কাজেই তারা আচরণবিধি লঙ্ঘন করেননি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তিন সিটি নির্বাচনে পুলিশ প্রশাসন হান্ড্রেড পারসেন্ট নিরপেক্ষ থাকবে। বৈঠকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার সঙ্গে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মোঃ রফিকুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী ও ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত ছিলেন।


আরো সংবাদ