১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

হত্যায় নেতৃত্ব দিয়েছেন বুয়েট ছাত্রলীগের পদধারী নেতারা

-

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যায় ১৯ জনকে আসামি করা হলেও বাদ পড়ে গেছে অন্যতম নির্যাতনকারী অমিত সাহার নাম। তার কক্ষে নিয়েই নির্যাতন চালানো হয় আবরারকে। মামলার এজাহার থেকে তার নাম বাদ পড়ার বিষয়টি নিয়ে গতকাল বুয়েট ক্যাম্পাসজুড়ে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। কেন কী কারণে বাদ গেল অমিত সাহার নাম, সে সম্পর্কে পুলিশও কিছু বলতে পারছে না।

চকবাজার থানা পুলিশ জানায়, আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ যাদের নাম উল্লেখ করেছেন, তারাই আসামি। তিনি ১৯ জনকে আসামি করেছেন। এ দিকে, আবরারের বাবা গতকাল সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি অনেকেরই নামই জানতেন না। অমিত সাহার নামটি তিনি মামলার এজাহারে অন্তর্ভুক্তি চেয়ে আবেদন করবেন। চকবাজার থানার ওসি বলেছেন, অমিত সাহার নাম মামলার এজাহারে নেই।

অমিত সাহা বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপ-সম্পাদক। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর রুমে থাকেন অমিত। এ রুমে নিয়েই আবরারকে মারধর করা হয়। অমিতের সাথে এ রুমে ছাত্রলীগের আরো তিনজন থাকেন। এরা হলেন ছাত্রলীগের বিশ^বিদ্যালয় শাখার উপ-দফতর সম্পাদক মুজতাবা রাফিদ, সমাজসেবাবিষয়ক উপ-সম্পাদক ইফতি মোশারফ। অপর একজন যিনি ঘটনার দু’দিন আগেই পূজার ছুটিতে বাড়িতে চলে গেছেন বলে জানা যায়।
শুরু থেকেই সংবাদমাধ্যমগুলোতে অমিত সাহার নাম এলেও মামলার এজাহার থেকে তার নাম বাদ পড়ায় বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে। গতকাল এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

আসামিদের পরিচয় : আবরার হত্যায় যারা আসামি হয়েছে তারা সবাই ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার সাধারণ সম্পাদকও রয়েছেন আসামিদের তালিকায়। মামলার ১ নম্বর আসামি করা হয়েছে মেহেদী হাসান রাসেলকে (২৪)। তিনি ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার সাধারণ সম্পাদক। তার বাবার নাম রুহুল আমিন, গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের সালথা থানাধীন সূর্যদিয়া রাংগারদিয়া গ্রামে। শেরেবাংলা হলের ৩০১২ নম্বর রুমের ছাত্র তিনি। দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে মুহতাসিম ফুয়াদকে (২৩)। তিনি ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার সহ-সভাপতি। তার বাবার নাম আবু তাহের। গ্রামের বাড়ি ফেনীর ছাগলনাইয়ার দৌলতপুর লাঙ্গলমোড়ায়। একই হলের ২০১০ নম্বর কক্ষের শিক্ষার্থী তিনি। তিন নম্বর আসামি করা হয়েছে ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকারকে (২২)। তার বাবার নাম আনোয়ার হোসেন। গ্রামের বাড়ি রাজশাহীর মোহনপুর থানাধীন বড়ইকুড়িতে। একই হলের ১৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। এ অনিক সরকারই মারধরে মূল নেতৃত্ব দিয়েছে বলে জানা গেছে। চার নম্বর আসামি ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন (২২)। তার বাবার নাম মাকসুদ আলী। গ্রামের বাড়ি রাজশাহীর পবা থানাধীন চৌমহানীর কাপাসিয়ায়।

একই হলের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। পাঁচ নম্বর আসামি ইফতি মোশারফ সকাল (২১)। ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার উপ-সমাজসেবা সম্পাদক। বাবার নাম ফকির মোশারফ হোসেন। স্থায়ী ঠিকানা রাজবাড়ী সদরের ১ নম্বর ওয়ার্ডের ৩৯৫ নম্বর বাসা। একই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষের ও বায়ো মেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচ। ছয় নম্বর আসামি মনিরুজ্জামান মনির (২১)। ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার সাহিত্য সম্পাদক। বাবার নাম মাহতাব আলী। গ্রামের বাড়ি দিনাজপুরের বীরগঞ্জ থানাধীন ভাঙ্গারীপাড়ায়। একই হলের পানিসম্পদ বিভাগের ১৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। সাত নম্বর আসামি ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন (২২)। বাবার নাম শহিদুল ইসলাম। গ্রামের বাড়ি রংপুরের মিঠাপুকুর থানাধীন শঠিবাড়ী এলাকায়। একই হলের মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। আট নম্বর আসামি মাজেদুল ইসলাম (২১) শেরেবাংলা হলের আবাসিক শিক্ষার্থী ও ম্যাটেরিয়াল অ্যান্ড ম্যাটার্লজিক্যাল বিভাগের ছাত্র (১৭তম ব্যাচ)।

নয় নম্বর আসামি মোজাহিদুল ওরফে মোজাহিদুর রহমান (২১)। বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সদস্য। বুয়েটের শেরেবাংলা হলের ৩০৩ নম্বর কক্ষের শিক্ষার্থী ও ইলেকট্রনিকস্ ও ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচ। ১০ নম্বর আসামি তানভীর আহম্মেদ (২১)। তিনি একই হলের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১১ নম্বর আসামি হোসেন মোহাম্মদ তোহা (২০)। তিনি একই হলের ২১১ নম্বর কক্ষের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১২ নম্বর আসামি জিসান (২১) একই হলের ৩০৩ নম্বর কক্ষের ছাত্র ও ইলেকট্রনিকস্ ও ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। এ মামলার ১৩ নম্বর আসামি আকাশ (২১) শেরেবাংলা হলের ১০০৮ নম্বর কক্ষের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১৪ নম্বর আসামি শামীম বিল্লাহ (২০) একই হলের মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১৫ নম্বর আসামি শাদাত (২০) একই হলের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১৬ নম্বর আসামি এহতেশামুল রাব্বি তানিম (২০) ছাত্রলীগের বুয়েট শাখা কমিটির সদস্য এবং একই হলের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১৭ নম্বর আসামি মোর্শেদ (২০) একই হলের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১৮ নম্বর আসামি মোয়াজ (২০) একই হলের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। ১৯ নম্বর আসামি মুনতাসির আল জেমি (২০) ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার সদস্য। তিনি একই হলের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী।


আরো সংবাদ




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik