১৩ নভেম্বর ২০১৮
সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা

ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে জানতে চেয়ে উকিল নোটিশ

কোটা
কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানতে চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়েছে। - ছবি : নয়া দিগন্ত

চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা জানতে চেয়ে ঢাকা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যাঞ্চেলর (ভিসি), প্রক্টর ও রেজিস্ট্রারসহ মোট ছয়জনকে একটি লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়েছে।

আজ রোববার দুপুরে আন্দোলনে আহত চারজন শিক্ষার্থীর পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হাসনাত কাইয়ুমসহ ১৩ জন আইনজীবী এই নোটিশটি পাঠান। চারজন শিক্ষার্থী হলেন, ফারুক হোসেন, মশিউর রহমান, জসিম উদ্দিন ও তরিকুল ইসলাম।

আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নোটিশের জবাব না পেলে এ বিষয়ে পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ নেয়া হবে জানিয়েছেন ১৩ আইনজীবীর অন্যতম ব্যারিস্টার জ্যেতির্ময় বড়ুয়া।

তিনি বলেন, সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার চেয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদেরকে ঢাকা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে হামলা করা হয়েছে। তারা গুরুতর আহত হয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যথাযথ আইনী সুরক্ষা ও চিকিৎসা দিতে ব্যার্থ হয়েছে। হামলাকারীদের বিরুদ্ধ কি আইনী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে সেটি আমরা জানতে চেয়েছি।

তিনি বলেন, এই শিক্ষার্থীদেরকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে, রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। কিন্তু যারা হামলা করল তাদের বিরুদ্ধে এখনো কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সঠিক সময়ের মধ্যে নোটিশের জবাব না পেলে আমরা পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ নেব।

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরিতে কোটা প্রথা সংস্কার চেয়ে আন্দোলন করে আসছিল। এমন সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর ৩০ জুন ও ১ জুলাই ঢাকা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে। এতে গুরুতর আহত বেশ কয়েকজন। এবং এ ঘটনায় কয়েকজন আন্দোলনকারী নেতাকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আরো পড়ুন :

ঢাবিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলা
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক, ৩০ জুন ২০১৮
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূরসহ অন্তত ৬ জন। আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

আজ শনিবার পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে সকাল ১১টায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী সাধারণ শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীদের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। এ সময় তাদের উপর অতর্কিতে হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় ছাত্রলীগকে দায়ী করা হচ্ছে।

অন্য আহতরা হলেন, সংগঠনের আরেক যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান, আতাউল্লাহ, সাদ্দাম, মাসুদ ও আব্দুল্লাহ।

এদিকে, সংবাদ সম্মেলনে বাধা এবং ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে আগামীকাল থেকে সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন এবং অবরোধের ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান বলেন, সংবাদ সম্মেলনে বাধা ও হামলার প্রতিবাদে আগামীকাল থেকে সকল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন এবং সারাদেশে বিক্ষোভ অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হবে।

কোটা বাতিল বলে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রায় তিন মাস পার হলেও প্রজ্ঞাপন জারির কার্যকর কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় নতুন করে আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছিল কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা।


আরো সংবাদ