১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
ঈদ মওসুমে অপরাধীদের সহজ সুযোগ

যাত্রাপথ টেনে আনছে মৃত্যু

-

ঈদে সারা দেশে একটি আনন্দের আবহ বিরাজ করে। মুসলিম জনগোষ্ঠীর মধ্যে কোরবানির পশু জবাই নিয়ে কৌতূহল ও আগ্রহ থাকে। মধ্যবিত্ত ও ধনীরা সাধ্য অনুযায়ী পশু জবাই করে থাকেন। নিম্নবিত্তের মানুষেরা আয়োজন করে থাকেন তাদের সাধ্য অনুযায়ী। গরিবেরাও বঞ্চিত থাকেন না ঈদ উপলক্ষে। তাদের ঘরে ঘরে পৌঁছে যায় কোরবানির গোশত। এই আনন্দের ঈদের মধ্যেই বিশৃঙ্খলা, অন্যায়, নিষ্ঠুরতা ও প্রাণহানির খবরও পাওয়া যায়। অপরাধীরা এ মওসুমের ঢিলেঢালা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির মধ্যে অপরাধ ঘটিয়ে নেয়। হত্যা, খুন ও ধর্ষণের ঘটনা ঈদের আনন্দের মধ্যেই ঘটে যায়। ঠিক এই সময় দেশব্যাপী মানুষের চলাচলের প্রবণতাও বেশি থাকে। ঈদের ছুটিতে সড়ক ও নৌপথে দুর্ঘটনা এবং এতে প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে।
এবারো ঈদের ছুটির মধ্যে অনেক হত্যা ও খুনের ঘটনা ঘটেছে। ঢাকার আশুলিয়ায় পৃথক স্থান থেকে দুই নারীসহ চারজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুরান ঢাকা এলাকা ও রাজধানীর রামপুরা থেকে দু’জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ঈদের দিন নারায়ণগঞ্জে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে এক যুবককে। ঢাকাসংলগ্ন কেরানীগঞ্জে হত্যা করা হয়েছে আরেক যুবককে। ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে কুপিয়ে বাবা-ছেলেসহ তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে দুই ভাইকে। ফরিদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে দু’জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। খবর রয়েছে ঈদের মওসুমে ধর্ষণেরও। সারা দেশে খুন, হত্যা, লাশ উদ্ধারসহ নানা ধরনের নৃশংসতার খবর রয়েছে ঈদের দিন ও তার পরের দিনে। এ সময়ে ভোলায় পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই আসামি প্রাণ হারিয়েছে। সারা দেশে নৃশংসতা ও বর্বরতার সম্পূর্ণ চিত্র মিডিয়ায় উঠে আসেনি। কারণ ঈদের মওসুমে প্রায় সব মিডিয়ার কার্যক্রম বন্ধ থাকে। অন্য দিকে, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি থাকে শিথিল। ফলে দাগী অপরাধীদের একটি গোষ্ঠী ঠিক এ সময়টাতে তাদের অপতৎপরতা চালাতে তৎপর হয়।
এবার ঈদের ছুটিতে সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৩৫ জন। ঢাকায় এই সময় সড়ক দুর্ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছেন। ঈদের দিন এবং তার আগে ও পরে সব মিলিয়ে আরো ৩১ জন সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন বলে খবর রয়েছে। এসব ঘটনায় বহু মানুষ আহত হয়েছেন। ঈদের দু’দিন পর সিরাজগঞ্জে বিয়ের যাত্রী বোঝাই দু’টি নৌকা ডুবে তিনজন নিহত হয়েছেন। আগের দিন বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে যমুনার প্রবল স্রোতে যাত্রীবাহী নৌকা ডুবে দুই নারী মারা গেছেন। উভয় ঘটনায় আরো ১৫ জন নিখোঁজ রয়েছেন। উৎসবে অংশগ্রহণ করতে গিয়ে এ ধরনের অনাকাক্সিক্ষত মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।
ঈদের আনন্দের বিরাট জোয়ার বয়ে যায় সারা দেশে। আনন্দের মওসুমে বেদনার বড় আঘাত হয়ে আসে মৃত্যুর ঘটনা। বাংলাদেশে বছরের দুটো ঈদে প্রতিবারই এমন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা দেখা যায়। সড়ক ও নৌপথে প্রাণ হারানো এ সময় যেন সাধারণ একটা ব্যাপার। সড়কপথের বিপুল উন্নতি হয়েছে বলে জোরালো দাবি করছে সরকার। তার পরও কেন সড়কে এত বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে, তার জবাব নেই। আর অপরাধজনিত কর্মকাণ্ড বেড়ে যাওয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর দায়বদ্ধতা রয়েছে নিঃসন্দেহে। ঈদে সারা দেশে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকে। ব্যবসাবাণিজ্য ও অন্যান্য কাজে যারা জড়িত তারাও এ সময় উৎসবের জাতীয় আয়োজনে অংশ নেন। সবাই থাকেন আনন্দের আমেজে। এই সুযোগকে কাজে লাগায় দুর্বৃত্তরা। উৎসবের এ মওসুমে খুনসহ সব অপরাধ ঠেকানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে এ জন্য বিশেষ ও পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে হবে।

 


আরো সংবাদ

আয়কর আপিল ট্রাইব্যুনালে জেলা জজ নিয়োগ দেয়া হবে : আইনমন্ত্রী ডিআইজি প্রিজনস পার্থ গোপালের জামিন নাকচ খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে মৎস্যজীবী দলের মানববন্ধন দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যাংক কর্মকর্তাদের তালিকা পাঠানোর নির্দেশ অধিক সার ব্যবহার পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর : কৃষি মন্ত্রী যথাযথ সেবা পেলে মানুষ কর দিতে উৎসাহিত হবে : এলজিআরডি মন্ত্রী নিরাপদ অভিবাসনের লক্ষ্য পূরণই আমাদের অঙ্গীকার প্রতিবন্ধীদের অধিকার সুরক্ষা আইন ২০১৩ বাস্তবায়নের আবেদন সাইটসের্ভাসের ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে আ’লীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সম্মেলন করার নির্দেশ হাসপাতালে নবজাতক কন্যা ফেলে বাবা-মা উধাও ঢাবিতে ‘ইয়ুথ ইমপ্যাক্ট : আনলিশিং দ্য পাওয়ার অব ইয়ুথ’ শীর্ষক সেমিনার শুরু

সকল