২১ অক্টোবর ২০১৮
উচ্চবর্ণের হিন্দু হত্যা করল দলিতকে

বর্ণবাদের নিষ্ঠুরতার অবসান হোক

-

বর্ণবাদ মানুষ ও মানবতার জন্য এক ধরনের বড় পাপ। এই বর্ণবাদ মানুষকে শুধু ছোট করে না, অপমানও করে; শ্রেণিবৈষম্য সৃষ্টি করে। অথচ সৃষ্টির সেরা মানুষ বর্ণ-ধর্ম-ভাষা ও যেকোনো গোষ্ঠীবাদের ঊর্ধ্বে বিধাতার সৃষ্টি বৈচিত্র্যের অনন্য অংশ। তাই এটা নিয়ে যেকোনো ধরনের বাড়াবাড়ি অত্যন্ত গর্হিত কাজ।
সম্প্রতি ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যে তিনজন দলিতকে কুপিয়ে হত্যা করেছে উচ্চবর্ণের হিন্দুরা। ঘটনার শুরু যথাযথ সম্মান না দেখানোর অভিযোগ থেকে। দুইজন দলিত পায়ের ওপর পা তুলে বসে থাকায় উচ্চবর্ণের হিন্দুরা ‘যথাযথ সম্মান প্রদর্শন না করার’ অভিযোগ করেছিল। ওই দুইজনকে তারা এ নিয়ে অপদস্থও করেছে। দলিতরা থানায় অভিযোগ জানালে গ্রেফতার করা হয় উচ্চবর্ণের এক ব্যক্তিকে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে তারা দলবেঁধে হামলা চালায়। ওই হামলায় নিহত হন তিনজন। আহত হয়েছেন ছয় দলিত। উচ্চবর্ণের হিন্দুদের উপস্থিতিতে পায়ের ওপর পা তুলে বসার কারণে ওই দুই দলিতকে অপদস্থ করা হয়। কারণ, নিম্নবর্ণের দলিতদের উচ্চবর্ণের হিন্দুদের সামনে পায়ের ওপর পা তুলে বসা তাদের দৃষ্টিতে ঘোরতর অসম্মানজনক।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, চান্দ্রাকুমারা ও তার ছেলের সাথে আগে থেকেই দলিতদের আসন্ন পূজা নিয়ে মতদ্বৈধতা চলছিল। তা ছাড়া দলিতদের শহরের রাস্তা পরিষ্কার করে দেয়ার কথা বলা হলেও তারা তা করতে রাজি হয়নি। সেটাও উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলেছিল। হামলার পর আহত দলিতদের দুইজন হাসপাতালে যাওয়ার পথে মারা যান। আরেকজন ব্যক্তি পরে হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
দলিতরা তামিলনাড়ুতে ‘আদি দ্রাবিড়’ নামেও পরিচিত, যাদের ‘অস্পৃশ্য’ মনে করা হয়। দলিতরা ভারতের মোট জনসংখ্যার ১৬ শতাংশ হলেও আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে তারা পিছিয়ে রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে বৈষম্য ও বঞ্চনা রোধে বারবার চেষ্টা করা হলেও নিয়মিত সহিংসতা, ধর্ষণ ও জমি দখলের শিকার হতে হয় তাদের। ভারতীয় সমাজে বর্ণ হিন্দু ছাড়া আর সব ধর্মীয় গোষ্ঠী এবং নিম্নবর্ণের হিন্দুদেরও প্রতিনিয়ত এ ধরনের নিপীড়ন, নির্যাতন, বৈষম্য ও বঞ্চনার শিকার হতে হচ্ছে। এটি বহু ঘটনার একটি মাত্র।
জাতপাতে পিষ্ট ভারতীয় সমাজ এখনো অস্পৃশ্যতার অমূলক ধারণা লালন করে, অথচ ভারত গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের ঐতিহ্যও বহন করে। এ ধরনের ঘটনা মানুষ, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত লজ্জাজনক। এই লজ্জাকর ও মানবতাবিরোধী বর্ণ প্রথার আশু অবসান জরুরি।

 


আরো সংবাদ