১৪ নভেম্বর ২০১৮

আবার কমলো স্বর্ণের দাম

স্বর্ণ - ছবি : সংগৃহীত

মাত্র ১৭ দিনের মাথায় দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম আরেক দফা কমানো হয়েছে। এবারো কমানো হয়েছে ভরিপ্রতি এক হাজার ১৬৬ টাকা। গতকাল দাম কমানোর এ ঘোষণা দিয়েছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। এর আগে গত ২০ জুলাই স্বর্ণের দাম ভরিপ্রতি এক হাজার ১৬৬ টাকা কমানো হয়েছিল। তার আগে কমানো হয় এক মাস আগে, গত ২০ জুন।

বাজুসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম কমার কারণে দেশের বাজারে তা সমন্বয় করতে এ দাম কমানো হয়েছে। সংগঠনটি সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা জানান, দেশের স্বর্ণের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে সঙ্গে ওঠানামা করে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়লে আমরা বাড়াই, কমলে কমাই। বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমেছে, তাই বিশ্ববাজারের সঙ্গে সমন্বয় করতে দেশের বাজারেও দাম কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
বাজুস জানায়, নতুন দাম অনুযায়ী ভরিতি (১১ দশমিক ৬৬৪ প্রাম) ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৭ হাজার ৪৭২ টাকা। এ ছাড়া ২১ ক্যারেট ৪৫ হাজার ১৯৮ টাকা এবং ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৪০ হাজার ১২৪ টাকা। আজ সোমবার থেকে সারা দেশে এ দাম কার্যকর হবে। তবে অপরিবর্তিত থাকবে সনাতন পদ্ধতির দাম।

গতকাল পর্যন্ত প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম ছিল এক হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৪৮ হাজার ৬৩৮ টাকা। এ ছাড়া ২১ ও ১৮ ক্যারেটের দাম ছিল যথাক্রমে ৪৬ হাজার ৩৬৪ টাকা ও ৪১ হাজার ২৯০ টাকা। আর প্রতি ভরি সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম নির্ধারণ ছিল ২৭ হাজার ৫৮৫ টাকা। প্রতি ভরি ২১ ক্যারেট রূপার দাম নির্ধারিত রয়েছে এক হাজার ৫০ টাকা।

আরো পড়ুন :

৪ ব্যবসায়ীকে দুদকে তলব

বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধভাবে ৮ মিলিয়ন ডলার দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগ অনুসন্ধানে চার ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল রোববার দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে তাদের তলব করে পৃথক চিঠি পাঠানো হয়েছে। দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন সই করা চিঠিতে ব্যবসায়ীদের আগামী ১২ আগস্ট হাজির হতে বলা হয়েছে। দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তলবকৃতরা হলেন- আর এ কে কনজুমার প্রোডাক্টস লিমিটেডের পরিচালক মোহাম্মদ আমির হোসাইন, পরিচালক এম এ মালেক, রোজা প্রোপার্টিজ লিমেটেডের মো: আসফাক উদ্দিন আহমেদ এবং আর এ কে পেইন্টস লিমেটেডের পরিচালক সাইলিন জামান আক্তার। এর আগে ৩ আগস্ট এ অভিযোগে বিএনপি নেতা মোসাদ্দেক আলী ফালু ও তলবকৃত ব্যবসায়ীসহ ৯ জনকে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।

নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্তরা হলেনÑ বিএনপি নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালু, আর এ কে পেইন্টস লিমিটেডের পরিচালক এস এ কে ইকরামুজ্জামান, তার ছেলে ও আরএকে কনজুমার প্রোডাক্টস লিমিটেডের পরিচালক মো: কামারুজ্জামান, একই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মোহাম্মদ আমির হোসাইন, পরিচালক এম এ মালেক, জুলপাহার বাংলাদেশ লিমিটেডের পরিচালক সৈয়দ এ কে আনোয়ারুজ্জামান, রোজা প্রোপার্টিজ লিমেটেডের মো: আসফাক উদ্দিন আহমেদ, আরএকে পাওয়ার লিমিটেডের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মাকসুদুল করিম এবং আরএকে পেইন্টস লিমেটেডের পরিচালক সাইলিন জামান আক্তার। 

অভিযোগের বিষয়ে দুদক সূত্রে জানা যায়, মোসাদ্দেক আলী ফালু ও অন্যদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি, তথ্য গোপন ও জালিয়াতিপূর্বক অবৈধ উপায়ে ৮ মিলিয়ন ডলার মানিলন্ডারিংয়ের মাধ্যমে দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগ রয়েছে। তারা বিদেশে অফশোর কোম্পানি খুলে মানিল্ডারিং ও হুন্ডির মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশে অর্থ পাচার করেছেন। এ বিষয়ে প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায়ও অভিযোগ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা দেশত্যাগ করার চেষ্টা করেছেন, এমন তথ্য থাকায় তাদের বিদেশগমনে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে দুই সদস্যের টিম অভিযোগটি অনুসন্ধান করছেন। টিমের অন্য সদস্য হলেন সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান।


আরো সংবাদ