২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

‘রোহিঙ্গা শরণার্থীদের শিক্ষা ও জীবিকার সুযোগ দিন’

‘রোহিঙ্গা শরণার্থীদের শিক্ষা ও জীবিকার সুযোগ দিন’ - সংগৃহীত

গণহত্যা বিষয়ক জাতিসঙ্ঘের বিশেষ দূত ও আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল আদামা দিয়াং বলেছেন, মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত বাংলাদেশে অবস্থানকালে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের শিক্ষা ও জীবিকার সুযোগ থাকতে হবে, যাতে তারা নিজেদের জীবনমান উন্নত করতে পারে। আমি আশা করি ধর্মীয় ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ, নাগরিক সমাজ এবং সরকারের নীতি নির্ধারকরা রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক আচরণ করে যাবে। তিনি বলেন, শরণার্থী ও স্থানীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে সংলাপের আয়োজন করে ধর্মীয় নেতারা শান্তি ও সহিষ্ণুতকার বার্তা পৌঁছে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন।

শনিবার রাজধানীর এক হোটেলে বাংলাদেশের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান ও ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের ভূমিকা বিষয়ক এক কর্মশালায় তিনি বক্তব্য রাখছিলেন। এতে প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব নজিবুর রহমান রোহিঙ্গা সঙ্কটের প্রেক্ষাপটে আন্ত:ধর্মীয় উদ্যোগের প্রতি সরকারের সমর্থন এবং কক্সবাজারের উন্নয়ন চ্যালেঞ্জ নিয়ে সরকার প্রধানের বার্তা তুলে ধরেন।

জাতিসঙ্ঘের বিশেষ দূত বলেন, রোহিঙ্গাদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করে তাদের আশ্রয় ও সহায়তা দিয়ে বাংলাদেশের জনগন প্রশংসনীয় কাজ করেছে। তবে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান উৎসে অর্থাৎ রাখাইনেই করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব বলেন, রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে জাতিসঙ্ঘ ও নাগরিক সমাজের সাথে কাজ করতে সরকার পূর্ণ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ধর্মীয় নেতৃবৃন্দকেও এ জন্য এগিয়ে আসতে হবে।

শান্তিরক্ষা বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি আজ আসছেন : জাতিসঙ্ঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জেইন পিয়েরে তিনদিনের সফরে আজ ঢাকা আসছেন। শান্তিরক্ষী বাহিনীতে অবদান রাখা ও ত্যাগ স্বীকারের জন্য তিনি বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানাবেন। বাংলাদেশের পর নেপাল, ভারত ও পাকিস্তান যাবেন আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল।

 


আরো সংবাদ