২১ আগস্ট ২০১৯

স্কুল ছাত্রীর ময়নাতদন্ত রিপোর্টে ধর্ষণের আলমত

স্কুল ছাত্রীর ময়নাতদন্ত রিপোর্টে ধর্ষণের আলমত - সংগৃহীত

পাকুন্দিয়ায় নানা বাড়িতে প্রেমিকের ডাকে সাড়া দিয়ে ঘর থেকে বাইরে বেরিয়ে নিহত হওয়া নবম শ্রেণির ছাত্রী স্মৃতি আক্তার রীমাকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বিকালে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে স্মৃতি আক্তার রীমার লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়।

ময়নাতদন্ত শেষে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তে ধর্ষণের সুস্পষ্ট প্রমাণ মিলেছে। তার পায়ুপথ ও যৌনাঙ্গ রক্তাক্ত ছিল।

এর আগে সকাল ১১টার দিকে পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী ইউনিয়নের গাংধোয়ারচর গ্রামে নানার বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ের একটি বরই গাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায় কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

নিহত স্মৃতি আক্তার রীমা জেলার হোসেনপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের মেয়ে এবং হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী।

এদিকে ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যার পর নিহত স্কুল ছাত্রী স্মৃতি আক্তার রীমার লাশ হোসেনপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। জামাইল গ্রামের বাড়ির সামনে রাত ১০টায় নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে, মায়ের সাথেই রীমা প্রায়ই বেড়াতে যেতো পাকুন্দিয়া উপজেলার গাংধোয়ারচর গ্রামে নানার বাড়িতে। এই আসা-যাওয়ার সুবাদে নানা বাড়ির পাশের চরফরাদী গ্রামের খুরশিদ উদ্দিনের ছেলে জাহিদের সাথে পরিচয় হয় রীমা। এই পরিচয় থেকে রীমার সঙ্গে প্রেমের ফাঁদ পাতে জাহিদ। এই ফাঁদে পা দিয়ে অবশেষে লাশ হতে হলো মাত্রই ১৫ বছরে পা দেওয়া এই কিশোরীকে।

রীমার মামা মোস্তফা জানান, মঙ্গলবার (১৬ই জুলাই) বিকালে অসুস্থ নানীকে দেখতে মায়ের সাথে নানার বাড়িতে এসেছিল রীমা। বুধবার (১৭ই জুলাই) রাতে জাহিদ রীমাকে ডেকে বাড়ি থেকে সামনের পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়। পরে তার বন্ধু একই গ্রামের রুবেল মিয়ার ছেলে পলাশসহ আরও ২-৩জন মিলে রীমাকে গণধর্ষণের পর হত্যা করে বরই গাছের ডালে ঝুলিয়ে রাখে।

বড়ই গাছ থেকে ২০ হাত উত্তর পাশে ধর্ষণের আলামত হিসেবে কয়েকটি কনডম ও সেক্সুয়াল বড়ি পড়েছিল বলেও মোস্তফা জানান।
এ ব্যাপারে পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মফিজুর রহমান বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) রাতে নিহত স্কুলছাত্রীর লাশ তার পৈত্রিক বাড়িতে দাফন করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নিহতের মা আঙ্গুরা খাতুন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও ওসি মো. মফিজুর রহমান জানান।


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet