২৩ আগস্ট ২০১৯

নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

-

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার চাঁদমারীর দুর্ধর্ষ মাদক সম্রাট বিপ্লব (৩১) পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। এ সময় একটি ওয়ান শ্যুটার গান উদ্ধার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় মাদক সংক্রান্ত ১৪টি মামলা রয়েছে। এসব তথ্য জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাত আড়াইটায় চাদঁমারী বস্তি এলাকায় ডিবি পুলিশের সাথে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত বিপ্লব চাঁদমারী এলাকার সুলতান মিয়ার ছেলে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই কামরুল হাসান জানান, বিপ্লবের বিরুদ্ধে শুধু ফতুল্লাতেই ১৪টি মাদকের মামলা রয়েছে। তিনি শীর্ষ মাদক কারবারিদের তালিকাভুক্ত। তাকে গ্রেফতারের জন্য লিংক রোডের পাশে মাইক্রোবাস স্ট্যান্ডের দিকে অভিযানে গেলে ডিবি পুলিশকে লক্ষ্য করে কয়েকজন সন্ত্রাসী গুলি করে। পরে ডিবিও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। এরপর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে সেখানে বিপ্লবের লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

তিনি আরো জানান, বন্দুকযুদ্ধস্থলে আহত হন উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওসমান, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সোহেল এবং দুই কনস্টেবল।

সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবত চাঁদমারী এলাকায় অপ্রতিরোধ্য গতিতে মাদক ব্যবসা করতো বিপ্লব ও তার স্ত্রী সাজুসহ হান্নান-মান্নান, রাসেল, মোহর, আলীর কয়েকটি বাহিনী।

পরে সদর উপজেলার তৎকালীন ইউএনও গাউসুল আজমের নেতৃত্বে চাঁদামারী এলাকাটি মাদকমুক্ত করে সেখানকার শিশু-কিশোরদের জন্যে ‘স্বপ্নডানা’ নামে একটি সেবামূলক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছিলেন। কিন্তু তার পদোন্নতি ও বদলীজনিত কারণে নারায়ণগঞ্জ ত্যাগ করে গেলে আবারো দুর্ধর্ষ বিপ্লব ও তার স্ত্রী সাজু বেগম মাদক ব্যবসা শুরু করে দেয়।

এর সাথে ফিরে আসে হান্নান-মান্নান, মোহর আলী, রাসেল ও আলী বাহিনীও। এ অবস্থায় আবারো চাঁদমারীতে মাদক ব্যবসার বাজার রমরমা হয়ে উঠে। এ সকল বাহিনীর প্রায় অর্ধশত নারী-পুরুষ-শিশু-কিশোর মাদক বিক্রেতা ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংকরোডে জানান দিয়ে মাদক বিক্রি করে আসছিল।

তারা এতটাই বেপরোয়া ও দুর্ধর্ষ প্রকৃতির যে, চাঁদমারী বস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযানের সময় পুলিশ ও মাদকদ্রব্য অধিদফতর কর্মকর্তাদের উপর হামলা করতেও দ্বিধাবোধ করেনি।


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet