১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

শামীম-আইভীর বিরোধ আবারো প্রকাশ্যে

শামীম-আইভীর বিরোধ আবারো প্রকাশ্যে - ছবি : সংগৃহীত

আবারো প্রকাশ্যে এসেছে শামীম ওসমান ও মেয়র আইভীর পুরনো বিরোধ। সাম্প্রতিক দুই ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ নতুন করে দেখা দিয়েছে। শামীম ওসমানের সাবেক এপিএস ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বাবু চন্দন শীল ইতোমধ্যে আইভীকে উৎখাতের হুমকিও দিয়েছেন। অপর দিকে আইভী সমর্থক ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গতকাল এক বিবৃতিতে বলেন, মেয়র আইভী ভেসে আসেননি। আইভীকে উৎখাত করা অতো সহজ না। তার কিছু হলে আমরাও দাঁতভাঙা জবাব দিতে প্রস্তুত আছি। 

শামীম-আইভীর সাম্প্রতিক বিরোধটা শুরু হয় গত ১৫ জুন। আর তা আরো বাড়ে ১৬ জুনের আরেক ঘটনায়।
গত ১৫ জুন ফতুল্লা আলীগঞ্জ খেলার মাঠে এক অনুষ্ঠানে মেয়র আইভী এমপি শামীম ওসমানকে উদ্দেশ্য করে বলেন, উপযুক্ত আন্দোলনের অভাবে, নেতৃত্বের অভাবে আদমজী মাঠ রক্ষা করা যায়নি। সংসদ সদস্যের (শামীম ওসমান) কাছে আমার প্রশ্ন, আপনি অনেক বড় বড় কথা বলেন, দুই মিনিটে আপনি নারায়ণগঞ্জকে তছনছ করে দেবেন, পাঁচ মিনিটে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট দখল করে প্রধানমন্ত্রীকে রক্ষা করবেন, সেইগুলো কি শুধু আপনার মুখের বুলি? তা না হলে আপনার এলাকার মধ্যে কেন মাঠ দখল হয়ে যাবে? 
উল্লেখ্য, আলীগঞ্জ খেলার মাঠ গণপূর্ত বিভাগ সম্প্রতি দখল নিতে এসে জনগণের তোপের মুখে ফিরে যায়। ওই মাঠ গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তাদের আবাসনের জন্য একনেকে অনুমোদন দেয়া হয়। 

শামীম ওসমানকে উদ্দেশ্য করে মেয়র আইভী বলেন, আপনার এলাকার মধ্যে মাঠ রক্ষা না করে আপনি নারায়ণগঞ্জের ওসমানী স্টেডিয়ামকে দখল করে নিজের বাবার নাম দিয়েছেন কেন? পৌরসভার ৯ একর জায়গা দিয়েছে ওসমানী স্টেডিয়ামকে। আপনি সেখানে ৪ একর জায়গা কেন দখল করেছেন? আপনি আমাদের কাছে জায়গা চাইতেন, আমি মুক্তিযোদ্ধা এ কে এম সামসুজ্জোহা স্টেডিয়াম করে দিতাম। আমি আপনার বাবার নামে রাস্তা করে দিয়েছি, কোনো কার্পণ্য করিনি। দখল করবেন কেন, দখলের স্বভাবটা আপনার বন্ধ করুন। আপনি এখানে আসুন, জনগণের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করুন। এটা আপনার কাছে আমি অনুরোধ করলাম।
শামীম ওসমানের উদ্দেশ্যে আইভী বলেন, তিন বারের এমপি হয়েছেন। আপনি কেন ফতুল্লাকে ফতুল্লা পৌরসভা ঘোষণা দিয়ে, ফতুল্লা কুতুবপুরের জনগণকে পৌরসভার মান মর্যাদা দেবেন না? কাদেরকে সুবিধা দেয়ার জন্য? কী কারণে লাখ লাখ টাকা কোটি কোটি টাকা এখান থেকে হাতছাড়া হয়ে যাবে। কেন জনগণ সুবিধা পাবে না? 

আইভীর এ বক্তব্যের পর ওই রাতেই শামীম ওসমানের একান্ত ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন, মেয়র আইভী আপনি থামেন। দখলবাজি কে করে? শামীম ওসমান নাকি আপনি ও আপনার পরিবার? আপনি আপনার লোক দিয়ে সিটি করপোরেশনের সব টেন্ডার নিজের দখলে রেখেছেন। আপনার বাবা জিওস পুকুর, বাড়িসহ বহু হিন্দু সম্পত্তি দখল করেছেন।

পরদিন ১৬ জুন চাষাঢ়ায় আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলায় নিহতদের স্মৃতিস্তম্ভে ফুলের তোড়া দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপনকালে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি চন্দনশীল বলেন, বোমা হামলায় নিহতদের নামফলকের পাশে ময়লার ডাস্টবিন রাখায় আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। এজন্য নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়রকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়ে ময়লার ডাস্টবিন সরাতে হবে। মেয়র আইভীকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমা চাইতে হবে, না হলে তাকে উৎখাতের জন্য যা যা করার দরকার তাই করব। বাবু চন্দনশীলের ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে আইভীপন্থী হিসেবে পরিচিত জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এ স্মৃতিস্তম্ভ মেয়র আইভীই বানিয়েছেন। শামীম ওসমান এত বড় বড় কথা বলেন, ওই স্মৃতিস্তম্ভ তিনি বানানওনি এবং কোনো শহীদ পরিবারের সদস্যদের খোঁজখবরও নেননি। 

আইভী বোমা হামলায় নিহতদের পরিবারের বিভিন্নজনকে মেয়রের কোটা থেকে দোকান বরাদ্দ ও তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করেন। আজ যারা মায়াকান্না করছেন তারা তখন কোথায় ছিলেন?


আরো সংবাদ