২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

স্ত্রী, ছেলে, ছেলে-বউ, নাতনিদের নিয়ে মানববন্ধন

স্ত্রী, ছেলে, ছেলে-বউ, নাতনিদের নিয়ে মানববন্ধন -

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে জমি-সংক্রান্ত বিরোধে মীমাংসা না পেয়ে এক পরিবারের ১০ সদস্য মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছেন। রোববার দুপুরে সোনারগাঁও প্রেস ক্লাবের সামনে ওই ভুক্তভোগী পরিবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। মানববন্ধনে ভুক্তভোগী আলী আরশাদ ও তার পরিবারের ১০ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এতে আলী আরশাদ, স্ত্রী শাহানা বেগম, ছেলে সাব্বির হোসেন বক্তব্য রাখেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ভুক্তভোগী আলী আরশাদ, স্ত্রী শাহানা বেগম, ছেলে রমজান, সাব্বির, আমির হোসেন, দুই ছেলের স্ত্রী মমতাজ বেগম, লিজা আক্তার, নাতনি ফাহমিদা আক্তার, ফারিহা।

মানববন্ধনে ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, দরপত ঠোঁটালিয়া গ্রামের মৃত কদম আলীর ছেলে মো. আলী আরশাদ দরপত ঠোটালিয়া মৌজায় ৩০ শতাংশ জমি ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে ভোগ দখল করে আসছেন। এ জমিতে দীর্ঘদিন ধরে মোহাম্মদ আলী ও সেরাজুল ইসলাম জমি মালিকানা দাবি করেন। ওই জমি নিয়ে ৭-৮ দফায় বিচার শালিস হয়। বিচার শালিশে আলী আরশাদের পক্ষে কাগজপত্র সঠিক থাকলেও ওই এলাকার গ্রাম্য সালিশকারী সালাউদ্দিন বিরোধিতা করেন। এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ দ্বন্দ্ব লাগিয়ে রাখেন। এ নিয়ে থানায় একাধিকবার সোনারগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সেন্টু চন্দ্র সিংহ মীমাংসা করতে ব্যর্থ হন। পরে ভুক্তভোগী আলী আরশাদ সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের কোনো মীমাংসা না পেয়ে ভুক্তভোগী ওই পরিবার আকস্মিকভাবে সোনারগাঁও প্রেস ক্লাবের সামনে এসে ওই পরিবারের ৯ সদস্য মানববন্ধন করেন।

ভূক্তভোগী আলী আরশাদ বলেন, মাহমুদ আর আমি এক সঙ্গে আদমজিতে চাকুরি করতাম। সে সুবাধে মাহমুদ আমার আদমজিতে ১০ শতাংশ জমি বিক্রি করিয়ে আমাকে ৯৮ সালের দিকে আমাকে এ ৩০ শতাংশ জমি ক্রয় করে দেয়। পরে সেই আবার এ জমির মালিকানা দাবি করেন।

সোনারগাঁও পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহজালাল মিয়া বলেন, দীর্ঘদিনের বিরোধ নিরসনের জন্য আমরা ৫-৬বার বিচার সালিসে বসেছি। কিন্তু এ সমাধান করতে পারিনি। একবার সমাধানে এসেও পরে এ সালিশ কেউ মানেননি।

মানবধিকার কর্মী দেলোয়ার হোসেন বলেন, আলী আরশাদের ক্রয়কৃত ১৪৪ নং দাগে মোট জমি ৩১ হতে ৩০ শতাংশ। বিবাদি পক্ষ একই দাগে ৩৫ শতাংশ জমি কিভাবে খরিদ করে মালিকানা দাবি করে? আমরা কাগজপত্র দেখেছি বিবাদি পক্ষের দাবিকৃত ৩৫ শতাংশ জমি হবে ১৪৫ নং দাগে। ভুলবশত বিবাদিরা ১৪৪ নং দাগে জমি দাবি করায় এ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযুক্ত সাউদ্দিনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে তিনি ০১৮১৫৬৫৬৭৪২,০১৯৫৪০৭৮৬৬৪ বন্ধ করে রাখেন।
সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, বিষয়টি আমার জানা রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী পরিবারকে এসিল্যান্ডের সঙ্গে দেখা করতে বলা হয়েছে। আমি এসিল্যান্ডকে বলে দিচ্ছি এটির দ্রুত সমাধান করে দিতে।


আরো সংবাদ