১৭ জুন ২০১৯

শিকল বেঁধে ৩ নারীকে অমানুষিক নির্যাতন, কেটে দেয়া হলো চুল

নির্যাতনের শিকার তিন নারী - নয়া দিগন্ত

ওদের কারো বয়স ৫০’র বেশী। কারো ৪০। আবার কারো ৩৫ বছর। ওদের নাম ফাতেমা বেগম ওরফে ফতেহ, আসমা বেগম, বানু বেগম। এই তিন নারীকে অমানুষিক নির্যাতন করে গাছের সাথে বেঁধে রাখা হয়েছে। ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে হাত-পা। কেটে নেয়া হয়েছে মাথার চুল। আর এই জঘন্য কান্ড ঘটিয়েছে এলাকার কিছু যুবক। শনিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের বন্দর দক্ষিন কলাবাগ খালপাড় এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

পরে পুলিশ এই তিন নারীকে উদ্ধার করে বন্দর থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। হাসপাতালেই এখন চলছে তাদের চিকিৎসা।

এদিকে এই তিন নারীকে গাছের সাথে বেঁধে অমানুষিক নির্যাতন নিয়ে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে দুই ধরনের বক্তব্য পাওয়া গেছে। একপক্ষ বলছে, পতিতাবৃত্তির অপরাধে স্থানীয় কিছু যুবক ৫০ বছর বয়সী ফাতেমার বাড়িতে হামলা করে ব্যাপক লুটপাট চালায়। এসময় ফাতেমা বেগমের বাড়ি থেকে আসমা বেগম, বানু বেগমকে বের করে বেদম প্রহার করে তারা। পরে শিকল দিয়ে গাছের সাথে বেঁধে মাথার চুল কেটে দেয়া হয়। তবে পতিতাবৃত্তির অভিযোগ করা হলেও ঐ সময় ফাতেমার বাড়ি থেকে কোনো তরুনী কিংবা খদ্দেরকে আটক করতে পারেনি তারা।

অপরপক্ষ বলছে, দাবিকৃত চাঁদা না পেয়ে স্থানীয় একটি বখাটে গ্রুপ ঐ তিন নারীর উপর অমানুষিক নির্যাতন চালিয়েছে। হাসাপাতালের বিছানায় শুয়ে ফাতেমা বেগম জানায়, র্দীঘদিন ধরে একটি চাদাবাজ চত্রু তার কাছে চাদা না পেয়ে অমানুষিক নির্যাতন করেছে।

এলাকার একটি সূত্রে জানা যায়, ফাতেমা ওরফে ফতেহ আগে বাড়িতে দেহব্যবসা চালাতো, কিছুদিন আগেও এলাকার একটি গ্রুপ থানা পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেয় তাকে। পরে আদালত হতে জামিনে বের হয়ে আসে ফাতেমা। এরপর থেকে এলাকার একটি চাঁদাবাজ গ্রুপ তার কাছে নিয়মিত মাসোহারা দাবি করে আসছিল। চাঁদা না পেয়ে একপর্যায়ে ফাতেমার বাড়িতে লুটপাট চালায় তারা। পরে এই তিন নারীকে বেদম মারধর ও গাছের সাথে বেঁধে চুল কেটে দেয়া হয়।

খবর পেয়ে বন্দর ইউপি সদস্য ইউসুফ দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে বন্দর থানা পুলিশকে অবহিত করেন। সংবাদ পেয়ে বন্দর থানার এসআই সাফিউল দ্রুত ঘটনাস্থলে ৩ নারীকে উদ্ধার করে বন্দর উপজেলা কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

বন্দর থানার এসআই সাফিউল ইসলাম জানান, নির্যাতনের সংবাদ পেয়ে ৩ নারীকে উদ্ধার করে বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযোগ পেলে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলাপ করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্থানীয় লোকজন বলছে, কেউ যদি পতিতাবৃত্তির সাথে জড়িত থাকে তাদের আইনের হাতে তুলে দেয়া উচিত। এভাবে কেউ আইন নিজের হাতে তুলে নিয়ে এমন অমানুষিক নির্যাতন করতে পারে না। এই ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবিও জানান তারা।

বন্দর থানার ওসি মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, পতিতাবৃত্তির মতো কোনো বিষয় থাকলে থানায় অবহিত করলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিতাম। এভাবে কেউ আইন নিজের হাতে তুলে নিতে পারে না। এর জন্য পুলিশ আছে, প্রশাসন আছে। নির্যাতিত তিন নারী থানায় অভিযোগ করলে আইন অনুযায়ী তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ